চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

এন মল্লিক পরিবহন নিয়ে অপপ্রচার চলছে: মালিকপক্ষ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সম্প্রতি গুলিস্তান টু নবাবগঞ্জ রুটে চলাচলকারী ‘এন মল্লিক’ পরিবহন নিয়ে একটি মহল বিভ্রান্তিমূলক তথ্য দিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন মালিকপক্ষ।

মালিকপক্ষের দাবি, গত ১২ বছর ধরে সুনামের সঙ্গে যাত্রীসেবা দিয়ে যাচ্ছে এন মল্লিক পরিবহন। কিন্তু সম্প্রতি একটি মহল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়িয়ে এই পরিবহনের সুনাম নষ্ট করার চেষ্টা চালাচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

এমন অভিযোগের পর পুলিশ কর্তৃপক্ষ বলছে, বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে। শিগগিরই অপপ্রচারের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধানে দেখা যায়, কয়েকদিন আগে ‘আরিয়ান আহমেদ মিরাজ’ নামে একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী তার প্রোফাইল থেকে প্রচার করে ‘আবারও একটি বাচ্চাকে মেরে ফেললো এন মল্লিক পরিবহন।’ সেই পোস্টে এন মল্লিক পরিবহনের একটি গাড়ির (১৫২১ নং) ছবি ব্যবহার করা হয়।

এছাড়াও ‘ঢাকা-নবাবগঞ্জের আলো’ নামের একটি ফেসবুক পেজ থেকেও একই রকমের বিভ্রান্তিমূলক তথ্য প্রচার করা হয়। সেখানে কমেন্টে ‘সেলিম বিডি’ নামের একজন লিখেন ‘জ্বালো জ্বালো এন মল্লিকে আগুন জ্বালো। এন মল্লিকের যতো বাস আছে সবগুলোতে আগুন ধরিয়ে দিন।’

বিজ্ঞাপন

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন উস্কানিমূলক কথাবার্তায় নিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ার আশঙ্কায় ওয়ারী থানায় গত বৃহস্পতিবার সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন এন মল্লিক পরিবহনের স্বত্বাধিকারী নার্গিস মল্লিক। সেই জিডি নম্বর ৮৭৭।

ঘটনা নিয়ে নার্গিস মল্লিক চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, ‘সম্প্রতি গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচারিত হয়েছে একজন প্রতিবন্ধী নারীকে আমার বাসের হেল্পার ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিয়েছে। যদিও সেটা ছিল আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অংশ। কারণ ওই প্রতিবন্ধী মহিলাকে আমার পরিবহন সব সময় ফ্রি সার্ভিস দিয়েছে। কোনো দুস্কৃতিকারী মহল ওই সময় গাড়ির চালক ও হেল্পারকে দিয়ে উদ্দেশ্যমূলকভাবে এই কাজটি করায়। পরে ঘটনাটি গণমাধ্যমে প্রকাশ পেলে পুলিশ ওই চালক ও হেল্পারকে গ্রেপ্তার করে। তারা এখন কারা হাজতে রয়েছে। পাশাপাশি ওই গাড়িটিকে (নম্বর-১৫২১) পুলিশ জব্দ করে কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় রাখা হয়েছে। এরপর ফেসবুকে নতুন করে বিভ্রান্তিমূলক পোস্ট দেয়া হচ্ছে সেই জব্দ করা গাড়ির নম্বার দিয়েই।’

তিনি বলেন, ‘যে গাড়ি থেকে প্রতিবন্ধী মহিলাকে ফেলে দেয়া হয়েছে, ওই গাড়ির চালক ও হেল্পারকে কারণ দর্শানোর নোটিশসহ চাকুরিচ্যুত করা হবে। তারা কারাগার থেকে বের হলে কোম্পানি এই ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।’

নার্গিস মল্লিক আরও বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষ্যে রাজধানী বিদেশী প্রধানমন্ত্রী-রাষ্ট্রপতিসহ কূটনৈতিকরা অবস্থান করছে। এমন সময়ে যদি ভিত্তিহীন সংবাদ ছড়িয়ে দুস্কৃতিকারীরা বাসে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা না ঘটাতে পারে সেজন্য আমি আইনে আশ্রয় নিয়ে থানায় জিডি করেছি।’

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে ওয়ারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিজুর রহমান চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, আমরা এ বিষয়ে কাজ করছি। তদন্ত প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।