চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

এক বনাম দুইয়ের লড়াই দেখতে মুখিয়ে টেনিস দুনিয়া

২৩ মিনিট, ৩৩ মিনিট, ২৭ মিনিট। একটা সেমিফাইনাল ম্যাচ শেষ হতে সময় নিল মাত্র ১ ঘণ্টা ২০ মিনিট!। তিন সেটের ম্যাচ তা বলাই বাহুল্য। ফলাফল ৬-০, ৬-২, ৬-২। স্কোরলাইন দেখেই বোঝা যাচ্ছে নোভাক জোকোভিচ কেমন ফর্মে ছিলেন ফরাসি প্রতিদ্বন্দ্বী লুকাস পাউলির বিরুদ্ধে। রেকর্ড গড়ে মেলবোর্ন পার্কে সাতটার মধ্যে সাতটা সেমিফাইনাল জিতে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ফাইনালে পৌঁছালেন বিশ্বের একনম্বর টেনিস তারকা।

ম্যাচ শেষ হওয়ার পর আরও বেশ কয়েকটি তথ্য উঠে আসছে টেনিস সার্কিটে। জোকোভিচ ২০১০’র পর থেকে এখনো পর্যন্ত গ্র্যান্ডস্লামে ২৭টি ম্যাচ ফরাসি খেলোয়াড়দের বিরুদ্ধে খেলেছেন। জিতেছেন সব ক’টিতে। শেষবার হেরেছিলেন জো উইলফ্রেড সোঙ্গার কাছে, এই অস্ট্রেলিয়ান ওপেনেরই কোয়ার্টার ফাইনালে ২০১০ সালে।

Advertisement

লুকাসকে একটিও ব্রেক পয়েন্ট না দিয়ে ক্লিনিক্যাল ম্যাচ খেলেন জোকার। ম্যাচের স্কোরই সব বলে দিচ্ছে। একের পর এক আনফোর্সড এরর এবং ডাবল ফল্টের জেরে জেরবার হন লুকাস। তার পর জোকার ছিলেন এমন বিধ্বংসী মেজাজে।

রোববার ফাইনালে তিনি মুখোমুখি হবেন বিশ্বের ২ নম্বর রাফায়েল নাদালের। এক নম্বর বনাম দু’ নম্বরের লড়াই দেখার জন্য মুখিয়ে বিশ্ব। তার ওপর এ বছর নাদালও রয়েছেন দুর্দান্ত ফর্মে। ২০১২ সালে ৫ ঘণ্টা ৫৩ মিনিটের সবচেয়ে বেশি সময় ধরে চলা গ্র্যান্ডস্লাম ফাইনাল খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে এদের দু’ জনের। হয়তো তেমনই একটা ম্যাচ অপেক্ষা করছে রোববার।