চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ
Channeliadds-30.01.24Nagod

স্কুল শিক্ষার্থীদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে জমা ১৪২০ কোটি টাকা, অ্যাকাউন্ট বেড়েছে ২ লাখ

স্কুল ব্যাংকিংয়ের আওতায় এবছর জুন মাস পর্যন্ত মোট ১৫ লাখ ৪০ হাজার অ্যাকাউন্ট খুলেছে শিক্ষার্থীরা। যা গতবছরের জুন মাস পর্যন্ত ছিল ১৩ লাখ ৩৪ হাজার। এ হিসাবে এক বছরের ব্যবধানে অ্যাকাউন্ট সংখ্যা বেড়েছে ২ লাখ ৬ হাজার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

ওইসব অ্যাকাউন্টে জমা অর্থের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে প্রায় ১ হাজার ৪২০ কোটি টাকা। যা গত বছরের তুলনায় প্রায় ২৬ শতাংশ বেশি। তবে শহরের তুলনায় গ্রামে এই হিসাব খোলার প্রবণতা কম।

আর্থিক খাতের বিশ্লেষকরা বলেছেন, এটা ব্যাংকিং খাতের জন্য ইতিবাচক। এই ধারা অব্যাহত থাকলে দীর্ঘমেয়াদী সুবিধা পাওয়া যাবে। এর আওতা বাড়াতে গ্রামে স্কুল ব্যাংকিংয়ের যাবতীয় সুবিধা তুলে ধরতে হবে।

Reneta April 2023

ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে সঞ্চয় প্রবণতা তৈরি করতে এবং তাদের ব্যাংকিং সেবার আওতায় আনতে ২০১০ সালে বাংলাদেশ ব্যাংকের তৎকালীন গভর্নর ড. আতিউর রহমান এক নির্দেশনার মাধ্যমে স্কুল শিক্ষার্থীদের অ্যাকাউন্ট খোলার সুযোগ তৈরি করে দেন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আইডি কার্ড নিয়ে একজন শিক্ষার্থী মাত্র ১০০ টাকা জমার বিপরীতে যে কোনো ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট খুলতে পারে। তবে সেজন্য শিক্ষার্থীদের অভিভাবকের সম্মতি নিতে হয়।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, এটা আর্থিক স্বাক্ষতরতার একটা অংশ। নতুন প্রজন্মদের কিভাবে ব্যাংকিং করতে হয়, কিভাবে সঞ্চয় করতে হয় এসব শেখার একটা উপায়।

তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা তাদের অর্থ ব্যাংকে দীর্ঘমেয়াদের জন্য রাখে। এতে উপকৃত হচ্ছে ব্যাংকিং খাত। কারণ ব্যাংকে আমানতকারীরা স্বল্প সময়ের জন্য আমানত রাখে। কিন্তু ব্যাংককে ঋণ দিতে হয় দীর্ঘমেয়াদে। ফলে ব্যাংকে মাঝে মাঝে তারল্য সংকটও দেখা দেয়। কিন্তু শিক্ষার্থীরাও তাদের জমা অর্থ দীর্ঘদিন পরে উত্তোলন করে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, স্কুল ব্যাংকিংয়ের আওতায় গত জুন নাগাদ মোট ১৫ লাখ ৪০ হাজার অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে। গত বছরের একই সময় পর্যন্ত অ্যাকাউন্ট ছিল ১৩ লাখ ৩৪ হাজার। গত এক বছরে অ্যাকাউন্টের সংখ্যা বেড়েছে ২ লাখ ৬ হাজার বা ১৫ দশমিক ৪০ শতাংশ।

তবে শহরের তুলনায় গ্রামে এই হিসাব খোলার প্রবণতা খুবই কম। স্কুল ব্যাংকিং হিসাবের মধ্যে শহরে রয়েছে ৯ লাখ ৪২ হাজার বা ৬১ দশমিক ২০ শতাংশ। আর গ্রামে রয়েছে ৫ লাখ ৯৭ হাজার অ্যাকাউন্ট বা ৩৮ দশমিক ৮০ শতাংশ। স্কুল শিক্ষার্থীদের মোট অ্যাকাউন্টের মধ্যে ছাত্র রয়েছে ৮ লাখ ৯৪ হাজার ছাত্রের হিসাবে জমা রয়েছে ৭৭৭ কোটি টাকা। আর ৬ লাখ ৪৬ হাজার ছাত্রীর অ্যাকাউন্টে জমা হয়েছে ৬৪৩ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান

এ বিষয়ে ড. আতিউর রহমান বলেন, শিক্ষার্থীদের স্কুল ব্যাংকিং সম্পর্কে ধারণা দিতে হবে। সেজন্য ব্যাংকগুলোকে প্রত্যন্ত অঞ্চলে স্কুল ব্যাংকিংয়ের প্রচারণা চালাতে হবে। আর এ বিষয়ে উদ্যোগ নিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে।

স্কুল ব্যাংকিংয়ে অ্যাকাউন্ট খোলায় সবচেয়ে এগিয়ে আছে ইসলামী ব্যাংক। মোট অ্যাকাউন্টের ১৫ দশমিক ৮৮ শতাংশ রয়েছে এ ব্যাংকে। এছাড়া ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকে রয়েছে ১৩ দশমিক ৯৫ শতাংশ।

সরকারি ব্যাংকগুলোর মধ্যে ১২ দশমিক ৬৫ হিসাব খুলে শীর্ষে রয়েছে অগ্রণী ব্যাংক। এছাড়া রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকে ৮ দশমিক ৩১ ও উত্তরা ব্যাংকে ৫ দশমিক ৫৫ শতাংশ। এই ৫ ব্যাংকে রয়েছে ৫৬ দশমিক ৩৫ শতাংশ অ্যাকাউন্ট।

তবে সার্বিকভাবে অ্যাকাউন্ট বাড়লেও বিশেষায়িত ও বিদেশি ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট কমেছে। জুনে বিশেষায়িত ব্যাংকগুলোর অ্যাকাউন্ট কমে ১ লাখ ২৮ হাজারে নেমেছে। গত ডিসেম্বরে এসব ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট ছিল প্রায় ১ লাখ ৩৯ হাজার। অর্থাৎ ৬ মাসের ব্যবধানে ব্যাংকগুলোর অ্যাকাউন্ট কমেছে প্রায় ১১ হাজার। আর বিদেশি ব্যাংকগুলোর ৩ মাস আগের তুলনায় ২ দশমিক ৪৩ শতাংশ অ্যাকাউন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ২৬০টি। তবে রাষ্ট্রীয় মালিকানার বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে এই সময় প্রায় ১২ হাজার অ্যাকাউন্ট বেড়ে ৪ লাখ ৩৬ হাজার ছাড়িয়েছে। আর বেসরকারি ব্যাংকগুলোতে ৬ মাসে অ্যাকাউন্টের সংখ্যা প্রায় ৮৫ হাজার বেড়ে ৯ লাখ ৭৪ হাজারে উঠেছে।