চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

একদিনে শনাক্ত ৪ হাজার ছাড়াল, মৃত্যু ৬

দেশে কোভিড-১৯ সংক্রমণের ৬৭৮তম দিনে শেষ ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৮ হাজার ১২৯ জন।

এই সময়ে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন আরও চার হাজার ৩৭৮ জন। শনাক্তের হার ১৪ দশমিক ৬৬ শতাংশ। আগের দিন বৃহস্পতিবার শনাক্ত হয়েছিল তিন হাজার ৩৫৯ জন। এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হয়েছেন ১৬ লাখ নয় হাজার ৪২ জন।

এর আগে গত ৯ ডিসেম্বর দ্বিতীয়বারের মতো এবং গত ২০ নভেম্বর দেশে প্রথমবারের মতো করোনায় মৃত্যুহীন দিন দেখে বাংলাদেশ। গত ৫ আগস্ট দেশে সর্বোচ্চ ২৬৪ জন রোগী মারা যায়। গত ২৮ জুলাই সর্বোচ্চ শনাক্ত হয় ১৬ হাজার ২৩০ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবীরের সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ‍শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় (অ্যান্টিজেন টেস্টসহ) ২৯ হাজার ৮৭১টি পরীক্ষায় চার হাজার ৩৭৮ জন এই ভাইরাসে শনাক্ত হয়েছেন। এই সময়ে পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১৪ দশমিক ৬৬ শতাংশ। তবে শুরু থেকে মোট পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৬৩ শতাংশ।

সরকারি ব্যবস্থাপনায় এখন পর্যন্ত ৮১ লাখ ৪১ হাজার ২১৯টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে, বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ৩৬ লাখ ৬৬ হাজার ৮৭৩টি নমুনা। অর্থাৎ মোট পরীক্ষা করা হয়েছে এক কোটি ১৮ লাখ আট হাজার ৯২টি নমুনা। এর মধ্যে শনাক্ত হয়েছেন ১৬ লাখ নয় হাজার ৪২ জন। তাদের মধ্যে ২৪ ঘণ্টায় ৩৫১ জনসহ মোট ১৫ লাখ ৫২ হাজার ৩০৬ জন সুস্থ হয়েছেন। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৬ দশমিক ৪৭ শতাংশ।

বিজ্ঞাপন

গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত ছয়জনের মধ্যে দু’জন পুরুষ ও চারজন নারী। তাদের হাসপাতালে (সরকারি পাঁচ, বেসরকারি এক) মৃত্যু হয়েছে। তারা সহ মৃতের মোট সংখ্যা ২৮ হাজার ১২৯ জন। মোট শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুহার এক দশমিক ৭৫ শতাংশ।

এখন পর্যন্ত সরকারি হাসপাতালে মারা গিয়েছেন ২৩ হাজার ৯০৬ জন, যার শতকরা হার ৮৪ দশমিক ৯৯ শতাংশ। বেসরকারি হাসপাতালে মারা গিয়েছেন তিন হাজার ৪১২ জন, যার শতকরা হার ১২ দশমিক ১৩ শতাংশ। বাসায় ৭৭৭ জন মারা গিয়েছেন, যার শতকরা হার দুই দশমিক ৭৬। এছাড়াও মৃত অবস্থায় হাসপাতালে এসেছেন ৩৪ জন, যার শতকরা হার দশমিক ১২ শতাংশ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, এখন পর্যন্ত ১৭ হাজার ৯৮৫ জন পুরুষ মারা গেছেন যা মোট মৃত্যুর ৬৩ দশমিক ৯৪ শতাংশ এবং ১০ হাজার ১৪৪ জন নারী মৃত্যুবরণ করেছেন যা মোট মৃত্যুর ৩৬ দশমিক ছয় শতাংশ।

বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত ছয়জনের মধ্যে একুশ থেকে ত্রিশ বয়সী একজন, ত্রিশোর্ধ্ব একজন, চল্লিশোর্ধ্ব একজন, ষাটোর্ধ্ব একজন, সত্তরঊর্ধ্ব একজন ও আশিঊর্ধ্ব একজন। আর বিভাগওয়ারী হিসাবে ঢাকা বিভাগে তিনজন, চট্টগ্রাম বিভাগে দু’জন ও রাজশাহী বিভাগে একজন।

ওয়ার্ল্ডোমিটারসের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত ৩২ কোটি ১১ লাখের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। অন্যদিকে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৫৫ লাখ ৪০ হাজারের বেশি মানুষ। তবে সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন ২৬ কোটি ৪৩ লাখের বেশি।

বিজ্ঞাপন