চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

একটি করে কেন্দ্রে জয়ে চলছে ট্রাম্প-বাইডেন হাড্ডাহাড্ডি লড়াই

মার্কিন নিবার্চনে চূড়ান্ত ভোট গ্রহণ চলছে। এরই মধ্যে নিউ হ্যাম্পশায়ার রাজ্যে একটি করে কেন্দ্রে জয় পেয়েছেন দুই প্রার্থী। জনমত জরিপ অনুযায়ী জো বাইডেনই প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হবেন? নাকি গতবারের মতো জরিপকে ভুল প্রমাণ করে আবারও সবাইকে চমকে দেবেন ডোনাল্ড ট্রাম্প? এমনই নানা সমীকরণ বিশ্বের সামনে। এবার রেকর্ড আগাম ভোট পড়ায় লড়াইয়ের শেষটা আদালত পর্যন্ত গড়াতে পারে। ট্রাম্পের বিভিন্ন বক্তব্যের কারণে বিশেষজ্ঞরা নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতারও আশঙ্কা করছেন।

সময়ের ভিন্নতার কারণে যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় ভিন্ন সময়ে ভোটকেন্দ্রগুলো খোলা হয়। ঐতিহ্য মেনে নিউ হ্যাম্পশায়ার রাজ্যের ডিক্সভিল নচ শহরের একটি কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ ও গণনা শেষ হয়েছে। এর একটিতে সব ভোট পেয়ে জয় পেয়েছেন বাইডেন। অন্যটিতে ১৬-৫ ভোটে জিতেছেন ট্রাম্প।

বিজ্ঞাপন

ভোটগ্রহণ চলছে ভেরমোন্টের, কানেকটিকাট, ইন্ডিয়ানা, কেনটাকি, মাইন, নিউ জার্সি, নিউইয়র্ক, ভার্জিনিয়া, ডেলাওয়ার, ডিস্ট্রিক্ট অব কলম্বিয়া, ফ্লোরিডা, জর্জিয়া, ইলিনয়, লুইজিয়ানা, মিশিগান, মিসৌরি, পেনসিলভানিয়া, রোড আইল্যান্ড, সাউথ ক্যারোলিনা, ক্যালিফোর্নিয়া, আইডাহো এবং নেভাডায়। সবশেষ ভোটগ্রহণ হাওয়াই অঙ্গরাজ্যে।

তবে করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার মার্কিন নির্বাচনের চিত্র অন্যরকম। নির্বাচনে জনস্বাস্থ্যই প্রধান ইস্যু। কারণ যুক্তরাষ্ট্রে এরই মধ্যে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত প্রায় ১ কোটি, মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৩৭ হাজার জনের। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার অভিযোগ আছে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে। সঙ্গে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের বিষয়ে ট্রাম্পের প্রশংসাও আছে।

বিজ্ঞাপন

তবে ভোটের দিনের জন্য অপেক্ষা করেননি অনেক ভোটার। মোট ২৪ কোটি ভোটারের মধ্যে ১৯ কোটির মত ভোটার এবার নিবন্ধন করেছেন। দুই প্রেসিডেন্ট প্রার্থীসহ আগাম ভোট দিয়ে ফেলেছেন ৯ কোটি ৬০ লাখ।

মার্কিন ইতিহাসে এভাবে আগাম ভোটের রেকর্ড হওয়ায় নির্বাচনের দিনই ফল পাওয়া সম্ভব নয় বলে মনে করা হচ্ছে। এমনকি লেগে যেতে পারে কয়েক দিন। দেশটিতে এ বছর প্রায় অর্ধেক রাজ্যে ডাকযোগে দেয়া ভোটের ব্যালট পৌঁছাবে নির্বাচনের পরে। যে কারণে কিছু রাজ্যের সব ভোট গণনা শেষ করতে তেসরা নভেম্বরের পরও আরও কয়েকদিন সময় দরকার হবে।

আগেই পোস্টাল ব্যালটে কারচুপির আশঙ্কার কথা জানিয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। প্রত্যাশিত ফল না পেলে আদালতে যাওয়ার হুমকিও দিয়ে রেখেছেন তিনি। ফল পাওয়ার আগেই নিজেকে বিজয়ী ঘোষণা করে তেসরা নভেম্বর রাতে হোয়াইট হাউজে তার পার্টির ঘোষণাও জনমনে শঙ্কা জাগিয়েছে।

৭৪ বছর বয়সী ডোনাল্ড ট্রাম্প লড়ছেন দ্বিতীয় মেয়াদে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হওয়ার জন্য। জয়ী হতে ব্যর্থ হলে ১৯৯২ সালে জর্জ এইচ ডব্লিউ বুশের পর তিনি হবেন পুনঃনির্বাচিত হতে ব্যর্থ প্রথম প্রেসিডেন্ট। আর ৭৭ বছর বয়সী ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন জিতে গেলে তিনি হবেন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথমবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়া সবচেয়ে বেশি বয়সী প্রার্থী।