চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

এই হাসিখুশি ছেলেটার কোন ডিপ্রেশন থাকতে পারে?

বড়ো অন্ধকার সময়ে একাকিত্বের যন্ত্রণায় চলে গেলেন তরুণ, চিত্রাভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুত! ভারতীয় সিনেমা জগতে শোকের ছায়া!

এই মৃত্যু অবিশ্বাস্য! হ্যাঁ, খুবই কষ্টকর মেনে নেওয়া! তবুও মৃত্যুর মতো সত্যি নেই এই জগতে! মাত্র ৩৪ বছর বয়সে জীবন যুদ্ধে জিতেও, শেষ জেতার খেলায় আত্মহত্যা করলেন সুশান্ত সিং রাজপুত। বীরের খেলা ভাঙলো মাঠের কিনারে! হ্যাঁ সুশান্ত সিং রাজপুত আত্মহত্যা করেছেন। এম এস ধোনি দ্য আনটোল্ড স্টোরি খ্যাত অভিনেতার আত্মহত্যার খবর গোটা ভারত জুড়ে নেমেছে শোকের ছায়া!

বিজ্ঞাপন

বিগত ছয়মাস ধরে ক্লিনিক্যাল ডিপ্রেশন চলছিল। তিনি লক ডাউনের কারণে গত তিনমাস গৃহবন্দী। মাত্র ৩৪ বছর বয়সে সাফল্য, অর্থ, শিক্ষা সবই জয় করেছিলেন তিনি৷ ফিটনেস ফ্রিক, আড্ডাবাজ, পজিটিভিটি, দিল্লির ইঞ্জিনিয়ার থেকে মুম্বাইয়ের তারকা তবুও অবশেষে মৃত্যুর কাছে হার মানলেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

অল্প বয়সীদের মধ্যে তাঁর জনপ্রিয়তা ছিল তুঙ্গে! দায়িত্ব জ্ঞানহীনের মতো চলে যাওয়াটা মেনে নিতে পারছে অল্পবয়সী তরুণীরা! সোশাল মিডিয়া তোলপাড় তাঁর শোকের ছায়াতে। ক্যারিয়ারের শীর্ষে থেকেও কেন শেষে আত্মহননের পথ বেছে নিলেন সুশান্ত, তা ভেবে হয়রান ভারতীয় ইন্ডাস্ট্রি।

প্রাথমিক সূত্রে খবর, রবিবার সকালে সুশান্তের বাড়ির পরিচারক পুলিশকে এই দুঃসংবাদ দেয়! তবে ঠিক কখন এমন ঘটনা ঘটেছে, সে তথ্য এখনও স্পষ্ট করে মেলেনি। বান্দ্রা পুলিশও শেষ পর্যন্ত সুশান্তের মৃত্যুর খবর সংবাদমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন। এদিন বান্দ্রার নিজস্ব ফ্ল্যাটে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলন্ত উদ্ধার হয়েছে সুশান্তের নিথর দেহ।

গত সোমবারই সুশান্তের প্রাক্তন ম্যানেজার দিশা সালিয়ানের রহস্য মৃত্যুর খবর সামনে আসে। পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, দিশাও আত্মহত্যায় করেছে! প্রাক্তন ম্যানেজারের মৃত্যুর খবরে মঙ্গলবার সুশান্ত সিং রাজপুত তাঁর ইনস্টাগ্রামে লিখেছিলেন ‘অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক খবর। দিশার পরিবার ও বন্ধুদের প্রতি জানাই সমবেদনা। তোমার আত্মার শান্তি কামনা করি’।

সেই ঘটনার পাঁচ দিনের মাথায়, তরুণ এই অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুত কেন আত্মহত্যা করলেন, সেই নিয়ে এখনও দ্বন্দ্বে রয়েছে পুলিশ ।

২০০৮ সালে প্রথম বালাজি টেলিফ্লিমসের ‘কিস দেশ মে হ্যায় মেরা দিল’ এর মাধ্যমে অভিনয় এ ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুত। প্রথমবার লিড রোলে দর্শক তাকে দেখেছে একতা কাপুরের ‘পবিত্র রিসকা’ ধারাবাহিকে। রাতারাতি গোটা ভারতের সিনে প্রেমী মানুষের মনের মণিকোঠায় এক বিশেষ পরিচিত মুখ হিসেবে জায়গা করে নিয়েছিলেন সুশান্ত। এরপর ২০১৩ সালে ‘কই পো ছে’ ছবির সঙ্গে রুপালি সফর শুরু করেন সুশান্ত। ক্যারিয়ারের শুরুতেই একের পর এক ছক্কা হাঁকিয়েছেন তরুণ এই অভিনেতা।

বর্তমান প্রজন্মের অন্যতম প্রতিভাবান তারকা হিসাবে তাকে মনে হতো। বক্স অফিসে তার শেষ ছবি ছিল ‘ছিঁছোড়ে’। যদিও নেটফ্লিক্সের ছবি ‘ড্রাইভ’ শেষবার দেখা গিয়েছে তাকে।
এই হাসিখুশি ছেলেটার কোন ডিপ্রেশন থাকতে পারে? সিরিয়ালের এতো জনপ্রিয়তা, ‘কই পো চে’র মতো ছবি, ব্যোমকেশ বক্সী, মহেন্দ্র সিং ধোনির মতো চরিত্র, শেষ ছবি ব্লকব্লাস্টার ‘ছিছোড়ে’। গোটা ছবিটা আত্মহত্যার বিরুদ্ধে, জীবনকে উদযাপন করা নিয়ে। এই তরুণ অভিনেতা আত্মহত্যা করেছেন! ভাবতে পারা কঠিন! তবুও বড়ো অসময়ে চলে গেলেন প্রতিভাবান এই তরুণ অভিনেতা!