চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

উপমহাদেশের নারী অধিকার ব্যক্তিত্ব কমলা ভাসিন মারা গেছেন

উপমহাদেশের প্রখ্যাত নারী অধিকার কর্মী কমলা ভাসিন মারা গেছেন। শনিবার ভারতীয় সময় পৌনে ৩টার দিকে তিনি মারা যান।

বেশ কিছুদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন কমলা ভাসিন। কয়েকমাস আগে তার ক্যান্সার ধরা পড়ে। শুক্রবার অবস্থার অবনতি হলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

দক্ষিণ এশিয়ার নারীবাদী আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা ব্যক্তিত্ব তিনি। পশ্চিমা নারীবাদী ধ্যানধারণার সঙ্গে স্থানীয় প্রেক্ষিত যুক্ত করে সহজ ভাষায় তিনি এ উপমহাদেশে নারীবাদ প্রচার করেছেন, নারীপুরুষ বৈষম্যহীন সমাজ গঠনের মৌলিক ভাবনাগুলো সঞ্চালিত করেছেন। তিনি একজন খ্যাতিমান জেন্ডার প্রশিক্ষক।

বিজ্ঞাপন

কাজের সুবাদে তিনি প্রায় বাংলাদেশে আসতেন এবং বাংলাদেশে নারী আন্দোলনকে সাম্প্রতিক সময়ে সক্রিয় রাখতে তার ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ।

১৯৪৬ সালের ২৪ এপ্রিল জন্ম নেওয়া কমলা বড় হয়েছেন ভারতের রাজস্থানে। রাজস্থান বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই তিনি অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেছিলেন। জেন্ডার সমতা, মানবাধিকার, শান্তি প্রতিষ্ঠাসহ বেশিকিছু বিষয় নিয়ে তার শক্তিশালী লেখালেখি আছে।

২০১৬ সালে নারীর প্রতি সহিংসতাকে বিশ্বের সবচেয়ে বড় যুদ্ধ উল্লেখ করে অবস্থার পরিবর্তনে ভয়মুক্ত হয়ে প্রত্যেক নারীকে বদলে ফেলার আহ্বান জানান কমলা ভাসিন।

তিনি নিজেকে একজন গীতিকার হিসেবে পরিচয় দিতে ভালোবাসতেন। বিভিন্ন গণআন্দোলনের সময় তিনি গান লিখেছেন। শিশুদের জন্য, নারীদের হয়ে নানা সময় তিনি কবিতা লিখেছেন। নিজের সম্পর্কে তার মূল্যায়ন ছিলো: আমি একজন নারীবাদী, আমি একজন মানবাধিকার কর্মী, আমি একজন কবি, সমাজসচেতন মানুষ, আমি কমলা।