চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে জীবনের ঝুঁকিও বেড়েছে: হানিফ

অগ্নি সুরক্ষা নিয়ে সেমিনার

আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেছেন: দেশে উন্নয়ন হচ্ছে, আধুনিক হওয়ায় দেশে হাই-রাইজ বিল্ডিং হচ্ছে। এই সমস্ত ভবন যত বাড়ছে মানুষের কাজের সুযোগ-সুবিধা বাড়ছে। দেশ উন্নত হওয়ার পাশাপাশি মানুষের জীবনের ঝুঁকিও বাড়ছে। আমাদের এ বিষয়ে এখনই সচেতন হতে হবে।

সোমবার আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপ-কমিটি আয়োজিত ‘ভবনের কর্মদক্ষতা ভিত্তিক অগ্নি সুরক্ষা: বর্তমান প্রেক্ষিত’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

হানিফ বলেন: হাই-রাইজ ভবন হওয়ায় এটাই প্রমাণ করে দেশের অর্থনীতি দ্রুত অগ্রসর হচ্ছে। আধুনিক হওয়ার সাথে সাথে আমাদের ঝুঁকিও বাড়ছে। এফ আর টাওয়ারের আগুনের প্রাণহানি মানুষ চোখের সামনে দেখে। এ আগুন দেশের মানুষকে একটা ঝাঁকি দিয়েছে। এই ঝাঁকি প্রয়োজন ছিলো। মর্মান্তিক এ ঘটনা আমাদের মাঝে দাগ কেটেছে।

সচেতনতার প্রসঙ্গে টেনে তিনি বলেন: ফায়ার সেফটি এবং ফায়ার সার্ভিস দুইটি আলাদা বিষয়। আমাদের আগুনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। আমাদের ভবনে যাতে আগুন না লাগে সে বিষয়টিকে প্রাধান্য দিতে হবে। আমাদের বিল্ডিংগুলোকে সেই ভাবে তৈরি করতে হবে। বিল্ডিং এর ডিজাইন তৈরি করার ক্ষেত্রে সেফটির বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

‘‘দেশে বেশির ভাগ আগুন লাগার কারণ হিসেবে দেখা গেছে শর্টসার্কিট। শর্টসার্কিট থেকে বেশি আগুন লেগেছে। নিম্ন মানের সুইচ-তার ব্যবহারের কারণে এমনটি হয়। সরকারি ভবনগুলোতেও দেখা যায় সরকারি কর্মকর্তাদের যোগসাজশে দুর্নীতির মাধ্যমে নিম্ন মানের জিনিস ব্যবহার করা হয়।’’

এ সময় তিনি ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের প্রসংশা করে বলেন: আমাদের দেশের ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ডেডিকেটেড। নিজেদের জীবন বাজী রেখে আগুন মানুষকে বাঁচানো ঝুঁকি নেয়। এটা বিদেশে তেমন দেখা যায় না। কুর্মিটোলা ফায়ার স্টেশনের ফায়ারম্যান মোহাম্মদ সোহেল রানা এ নজির দেখিয়েছেন।

আমাদের দেশে প্রতিটি বিষয় নিয়ে রাজনীতি করা হয়। আমাদেরকে এ মানসিকতা থেকে বেড়িয়ে আসতে হবে।

রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশনের কাউন্সিল হলে আয়োজিত সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপ-কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. হোসেন মনসুর।

সেমিনারে আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইন্জিনিয়ার আবদুস সবুর, রাজউকের সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল হুদা প্রমুখ।