চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ইসরায়েল ও ইহুদিরা বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাসের উৎস: করবিন

ইসলাম নয়, বরং ইসরায়েল ও ইহুদিরা বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাসবাদের উৎস বলে মন্তব্য করেছেন ব্রিটিশ লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন।

ইরানের একটি রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে সাক্ষাতকারে করবিন বলেন, মধ্যপ্রাচ্যকে অস্থিতিশীল করতে ইসলামিক সন্ত্রাসী হামলা এবং বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাসবাদের পেছনে ইসরায়েলের হাত রয়েছে।

বিজ্ঞাপন

তিনি আইএসআইএস এবং ইসলামকে না বলে ইসরায়েল ও ইহুদিদেরকে বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদের মূল উৎস হিসাবে বর্ণনা করেছেন।

শুধু তাই নয়, তার বক্তব্য অনুযায়ী তিনি হামাস ও হিজবুল্লাহ সন্ত্রাসীদের সঙ্গে দেখা করেছিলেন এবং তাদের ‘বন্ধু’ও বলেছিলেন।

করবিন বলেন, ফিলিস্তিন ও ইসরায়েল-এর মধ্যে সমস্যা লাঘবে হামাস ও হিজবুল্লাহকে বাদ দিয়ে আলোচনা করলে শান্তি ফিরবে না।

‘‘আপনি যাদের সাথে একমত হন তাদের সাথে কথা বলার মাধ্যমে আপনি অগ্রগতি অর্জন করেন না। যদি সমগ্র অঞ্চলে শান্তি অর্জন করতে হয় তবে আপনাকে সকলের অধিকার মোকাবেলা করতে হব।’’

পশ্চিমা বিশ্বের কাছে হামাস ও হিজবুল্লাহ ইসলামিক সন্ত্রাসী সংগঠন। তারা এন্টি সেমিটিক মতাদর্শধারী।  তাদের লক্ষ্য ইসরায়েল ও ইহুদিদের নিশ্চিহ্ন করে স্বাধীন ফিলিস্তিন প্রতিষ্ঠা করা।  সেই লক্ষ্য বাস্তবায়নে এই সংগঠন বারবার সমস্ত ইহুদিদের মাঝে গণহত্যা চালানোর আহ্বান জানিয়ে থাকে।

বিজ্ঞাপন

একটি সূত্র মতে, ব্রিটিশ করদাতারা ইসলামিক সন্ত্রাসবাদের জন্য ২২০ মিলিয়ন ডলার দিয়ে থাকে। যা ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ ‘আল্লাহর নামে’ সন্ত্রাসী হামলা চালিয়েছিলো এমন মুসলিম সন্ত্রাসীদের বেতন দেয়। ফিলিস্তিানি কর্তৃপক্ষ ২০১৭ সালের বাজেটের ৩৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সন্ত্রাসীদের প্রদান করেছে, যা মোট বাজেটের ৭% এবং তার বিদেশি সহায়তা প্রাপ্তির ৫০%!

জানা যায়, তিন থেকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত মুসলিম সন্ত্রাসীদের প্রতি মাসে ৫৮০ ডলার দিয়ে থাকে ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ।  প্রতি মাসে ২০ বছর বা তার বেশি জেল খাটা সন্ত্রাসীদের অর্থ প্রদান করে ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ।

এমতাবস্থায় জেরেমি করবিনের বক্তব্য তাকে সমালোচনার মুখোমুখি করেছে।

জেরেমি করবিন একজন বামপন্থি ব্রিটিশ রাজনীতিক। সাধারণ মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্ম জেরেমি বার্নার্ড করবিনের। উইল্টশায়ার কাউন্টির কিংটন সেন্ট মাইকেল নামে ছবির মত এক গ্রামে ছেলেবেলা কাটে তার। চার ভাইয়ের সবচেয়ে ছোট ছিলেন তিনি। মা ছিলেন শিক্ষক, বাবা ছিলেন প্রকৌশলী। কিন্তু দুজনেই যুদ্ধবিরোধী আন্দোলনের কর্মী ছিলেন। বাড়িতে রাজনীতি নিয়ে নিয়মিত আলোচনা বিতর্ক হতো। জেরেমি করবিনের বড় ভাই পিয়েরস একজন কড়া বামপন্থি।

স্কুল ছাড়ার প্রায় পরপরই পোশাক শ্রমিকদের ইউনিয়নের সাথে যুক্ত হন জেরেমি করবিন। পরে ইঞ্জিনিয়ারিং এবং ইলেকট্রিকাল ইউনিয়নে এবং ন্যাশনাল ইউনিয়ন অব পাবলিক এমপ্লয়িজের সাথে যুক্ত হন।  কিন্তু আসল উৎসাহ ছিলো লেবার পার্টি। ১৯৭৪ সালে লেবার পার্টির পক্ষ থেকে উত্তর লন্ডনের হ্যারিংগে কাউন্সিলের নির্বাচিত হন তিনি।

১৯৮৩ তে লন্ডনের ইজলিংটন এলাকা থেকে লেবার পার্টির হয়ে প্রথম এমপি নির্বাচিত হন মি. করবিন। তখন থেকে বারবারই তিনি সেখানকার এমপি। সম্প্রতি তিনি ব্রিটেনের লেবার পার্টির কাণ্ডারি হয়ে উঠেছেন।

অনেক ব্রিটিশের ধারণা, জেরেমি করবিন কোনোভাবে ব্রিটিনের প্রধানমন্ত্রী হলে ব্রিটেনে ইহুদিরা নিরাপদে থাকেন কিনা সন্দেহ আছে। ধারণা করা হয়, তিনি ইহুদিদের ব্যাপারে ইতিবাচক নন।

Bellow Post-Green View