চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ইশতিয়াকের পাঠকপ্রিয় উপন্যাসের চরিত্ররা এবার ছোট পর্দায়

ঈদে আসছে ইশতিয়াক আহমেদের উপন্যাস 'সাদা প্রাইভেট' অবলম্বনে তারকাবহুল টেলিছবি

তরুণ লেখক হিসেবে ইশতিয়াক আহমেদ সুপরিচিত। সাংবাদিকতা, লেখক পরিচয় ছাপিয়ে তিনি একজন নির্মাতাও। তার সৃজনশীল লেখালিখি পাঠকরা যেমন পছন্দ করেন, তেমনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেয়া স্ট্যাট্যাসগুলোও অনুসারীরা লুফে নেন!

বলা বাহুল্য, গত কয়েক বছরে ইশতিয়াক আহমেদ লেখক হিসেবে আলাদা পাঠক শ্রেণি তৈরি করেছেন। এ লেখকের ‘আপেলশাস্ত্র’ বই থেকে নির্মাতা সঞ্জয় সমাদ্দার বানিয়েছিলেন থ্রিলারধর্মী টেলিফিল্ম ‘পলিটিক্স’। টানটান উত্তেজনার ওই টেলিফিল্মে অভিনয় করেছিলেন অপূর্ব। ২০২০ সালে অনলাইনে উন্মুক্তের পর সাড়াও ফেলেছিল ‘পলিটিক্স’।

Reneta June
‘সাদা প্রাইভেট’ টেলিছবির একটি দৃশ্য

বিজ্ঞাপন

আবারও ইশতিয়াক আহমেদের উপন্যাস থেকে নির্মিত হচ্ছে টেলিফিল্ম। ২০১৯ সালে বইমেলায় প্রকাশিত এই লেখকের ‘সাদা প্রাইভেট’ উপন্যাস অবলম্বনে টেলিফিল্ম বানিয়েছে বঙ্গ। লেখক জানান, জানতে পারি বঙ্গের চিফ কনটেন্ট মুশফিকুর রহমান বইটি এক রাতে একটানা পড়ে কান্না করেন। পরে পরিচালককে জানান এই গল্প দিয়ে ফিকশন বানাতে।

ইশতিয়াক আহমেদ বলেন, ‘উপন্যাসটি তাদেরই পছন্দ করা। তাদের উদ্যোগে নির্মিত হচ্ছে। আমার কাছে এই অনুভূতি অত্যন্ত আনন্দের।’

এদিকে, ইশতিয়াক আহমেদ জানান, তার যতগুলো বই এখন পর্যন্ত প্রকাশিত হয়েছে, পাঠক প্রিয়তা ও প্রশংসার দিক থেকে ‘সাদা প্রাইভেট’ অন্যতম। টেলিফিল্মে এর বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন বর্ষীয়ান অভিনেতা তারিক আনাম খান, জিয়াউল হক পলাশ, ইরফান সাজ্জাদ, রুকাইয়া জাহান চমক, ফারহানা মিঠু, মৌসুমী হামিদ।

পরিচালনা করছেন আশিকুর রহমান। নির্মাতা জানিয়েছেন, ইতোমধ্যে শুটিং শেষ হয়েছে সাদা প্রাইভেটের। প্রচার হবে ঈদে বঙ্গ প্রযোজিত ‘বব সিরিজ’ এ। টেলিফিল্মটির চিত্রনাট্যও করেন ইশতিয়াক আহমেদ।

‘সাদা প্রাইভেট’ টেলিছবির আরেকটি দৃশ্যে তারিক আনাম ও পলাশ

নিজের লেখা সৃষ্টি যখন পর্দায় তুলে ধরা হয় তখন অন্যরকম ভালো লাগার অনুভূতি কাজ করে বলে জানান ইশতিয়াক আহমেদ। চ্যানেল আই অনলাইনকে তিনি বলেন, হুমায়ূন আহমেদ স্যার এত জনপ্রিয় ছিলেন যে তার লেখা বই প্রকাশের সাথে সাথে নাটক সিনেমা বানানো হতো। কিন্তু আমার এই উপন্যাসটি যে ভিজ্যুয়াল মাধ্যমে যাচ্ছে এটা আরও বেশি মানুষের কাছে পৌঁছুবে, এটা লেখক আমার জন্য আনন্দের এবং উৎসাহের।

তবে উপন্যাস থেকে ফিকশন নির্মাণে কিছু প্রতিবন্ধতা আছে। সেই শঙ্কা প্রকাশ করে ইশতিয়াক আহমেদ বলেন, কিছু প্রতিবন্ধকতা অনেক সময় থাকে। এর মধ্যে সময় ও বাজেট অন্যতম। তবে আমার এই গল্পে থ্রিলিং কিছু নেই। আবেগ অনুভূতি আনন্দ বেদনাগুলো যদি সঠিকভাবে যদি তুলে আনা যায় তবে বই পড়ে মানুষ যেমন পছন্দ করছে ফিকশন দেখেও পছন্দ করবে বলা আমি বিশ্বাস করি।