চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ইভিএম ভোটকক্ষে ভোটার ৪৫০ এর বেশি নয়: ইসি

আসন্ন জাতীয় একাদশ সংসদ নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারের জন্য নির্ধারিত ছয় আসনের প্রতি ভোটকক্ষে ভোটারের সংখ্যা ৪০০ থেকে ৪৫০ জনের মধ্যে রাখার সুপারিশ করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

প্রয়োজনে ভোটকেন্দ্রের গেজেট সংশোধনের জন্যও বলেছে ইসি।

বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) ইসির সহকারী সচিব (নির্বাচন পরিচালনা-১) রৌশন আরা বেগম স্বাক্ষরিত একটি নির্দেশনা জারি হয়েছে।

নির্দেশনায় বলা হয়, ‘একাদশ জাতীয় নির্বাচনে রংপুর-৩, খুলনা-২, সাতক্ষীরা-২, ঢাকা-৬, ঢাকা-১৩ ও চট্টগ্রাম-৯ এই ছয় আসনে ইভিএমের মাধ্যমে ভোটের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। এই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণের লক্ষ্যে নির্ধারিত ছয় আসনের জন্য কক্ষ প্রতি ভোটার বিন্যাস ৪০০ থেকে ৪৫০ এর মধ্যে সীমাবদ্ধ রেখে ভোটকেন্দ্রের গেজেটে ভোটকক্ষের সংখ্যায় ও প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে অস্থায়ী কক্ষের সংখ্যায় সংশোধনের প্রস্তাব পাঠানো প্রয়োজন।’

Advertisement

জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম স্বাক্ষরিত আরেকটি চিঠিতে বলা হয়, ‘ছয় আসনে ৮৪৫টি ভোটকেন্দ্র এবং পাঁচ হাজার ৫১টি ভোটকক্ষ থাকবে। পাঁচ শতাংশ হারে অতিরিক্তসহ মোট প্রিজাইডিং অফিসার ৮৮৭, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার পাঁচ হাজার ৩০৪ ও পোলিং অফিসার ১০ হাজার ৬০৮ জন থাকবেন। এ লক্ষ্যে ছয়টি আসনের ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ ও প্রশিক্ষক প্রশিক্ষণ আয়োজন করা প্রয়োজন।’

এই ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ প্রদানের জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক প্রশিক্ষক তৈরি করতে আসনভিত্তিক ৫০ থেকে ৬০ জনের একটি প্যানেল প্রস্তুত করতে জাতীয় পরিচয়পত্র, ভোটার তালিকা ও নির্বাচন ব্যবস্থাপনায় তথ্য প্রযুক্তির প্রয়োগ সংক্রান্ত কমিটির সভায় নির্দেশনা দেওয়া হয় দ্বিতীয় চিঠিতে।

জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য ৪০ হাজার ১৯৯টি ভোটকেন্দ্রের তালিকা চূড়ান্ত করে ইতোমধ্যে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে ইসি। ভোটের কমপক্ষে ২৫ দিন আগে আসনভিত্তিক ভোটকেন্দ্রের প্রজ্ঞাপন জারির আইনি বাধ্যবাধকতা থাকায় ৪ ডিসেম্বর এ কাজ শেষে করেছে ইসি।

প্রতিটি সংসদীয় আসনের জন্য আলাদা আলাদা প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।