চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ইতিহাস বলে এটাই শেষ মহামারী নয়: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বলেছেন, করোনাভাইরাস সংকটই বিশ্বের শেষ মহামারী হবে না। তাছাড়া মানব স্বাস্থ্যের উন্নয়ন প্রচেষ্টা ব্যর্থ হবে যদি জলবায়ু পরিবর্তন ও প্রাণীদের কল্যাণে দৃষ্টি না দেওয়া হয়।

টেড্রস অ্যাধানম গ্যাব্রিয়েসুস এই ধরনের প্রাদুর্ভাবের ক্ষেত্রে বিপজ্জনকভাবে স্বল্পদৃষ্টি দিয়ে পরবর্তী মহামারীর জন্য প্রস্তুতি না নিয়ে শুধু টাকা খরচ করার নিন্দা জানান।

বিজ্ঞাপন

রোববার মহামারি প্রস্তুতির আন্তর্জাতিক দিবসে এক ভিডিও বার্তায় একথা বলেন তিনি।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক বলেন, করোনাভাইরাস মহামারী আমাদের শিক্ষা নেওয়ার সময় ছিল। দীর্ঘ সময় আতঙ্ক ও অবজ্ঞার ভিত্তিতে বিশ্ব পরিচালনা করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

‘প্রাদুর্ভাব দেখা দিলেই আমরা টাকা খরচ করা শুরু করেছি। পরে সেটা শেষ হয়ে গেলে আমরা আবার ভুলে গেছি আর পরবর্তীটা থামানোর কোনো প্রচেষ্টাই নেইনি। এটা ভয়ানক স্বল্পদৃষ্টির কাজ এবং সত্যি বলতে বোঝার মতো নয়।’

টেড্রস বলেন, ইতিহাস বলে এটাই শেষ মহামারী নয় আর মহামারী জীবনের একটি বাস্তবতা। এই মহামারি দেখিয়েছে যে মানুষের স্বাস্থ্য, প্রাণী ও গ্রহের সঙ্গে সংযোগটা অনেক গভীর। তাই মানব স্বাস্থ্যের উন্নয়নের যেকোন প্রচেষ্টা ব্যর্থ হবে যদি না মানুষ ও প্রাণীর প্রবল সংযোগটা এবং জলবায়ু পরিবর্তনের অস্তিত্বের হুমকি যা আমাদের পৃথিবীকে কম বাসযোগ্য করে তুলছে তা উপলব্ধি না করা হয়।

টেড্রস আরও বলেন, গত ১২ মাসে বিশ্ব অনেক উত্থান পতন দেখেছে, সামাজিক ও অর্থনৈতিক। সকল দেশের এখন জরুরি অবস্থা প্রতিরোধ, শনাক্তকরণ ও হ্রাস করার জন্য প্রস্তুতি সক্ষমতাতে বিনিয়োগ করা উচিত।

সেই সঙ্গে প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা জোরদার করার আহ্বান জানান তিনি।

মহামারি মোকাবেলায় প্রতিরোধ, প্রস্তুতি এবং অংশীদারিত্বের গুরুত্ব প্রচারের জন্য জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ ২৭ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক মহামারী প্রস্তুতি দিবস পালনের আহ্বান জানিয়েছে।