চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

শিশু আয়শাকে গলা টিপে হত্যা করা হয়েছে

রাজধানীর ভাটারায় সাড়ে ছয় বছরের শিশু আয়শা আক্তারকে গলা টিপে হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগ।

পুলিশ বলছে, নিহত শিশুর বাবা একটি হত্যা মামলা করেছেন। আসামিকে আইনের আওতায় আনতে অভিযান চলছে।

বৃহস্পতিবার রাতে ভাটারার বারোবিঘা এলাকার একটি বাসার ভেতর থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় আয়েশা আক্তারের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

শুক্রবার ঢাকা মেডিক্যালের মর্গে শিশুটির মরদেহের ময়নাতদন্ত শেষে ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ বলেন: শিশুটির হাত বাঁধা ছিল, এমন চিহ্ন পাওয়া গেছে। এছাড়া গলায় নখের চিহ্ন পাওয়া গেছে। মুখেও আঘাত রয়েছে। একইসঙ্গে শিশুটির মুখে কাপড় জাতীয় কিছু একটা ঢোকানো হয়েছিল। এক কথায় শিশুটিকে গলা টিপে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

হত্যার আগে শিশুটিকে ধর্ষণ করা হয়েছিল কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন: আলামত সংগ্রহ করে পরীক্ষাগারে পাঠানো হবে।

আয়েশার বাবা ইয়াসিন মুন্সি বলেন, বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টা থেকে তার মেয়েকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। তখন তিনি বাড্ডায় তার কাপড় দোকানে ছিলেন। খবর পেয়ে বাসায় যেতে যেতে শুনেন মেয়েকে ভাড়াটিয়ার বাসা থেকে তাকে হাত-পা বাঁধা ও মুখে কাপড় দেয়া অবস্থায় পাওয়া গেছে। এ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতাল ও পরে ঢাকা মেডিক্যালে নিয়ে এলে দায়িত্বরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

জানা যায়, বারোবিঘা এলাকায় ইয়াসিন মুন্সীর নিজের বাসা। ছয় থেকে সাতটি টিনশেডের ঘর আছে তার। দুইটি ঘরে তারা থাকেন। বাকিগুলো ভাড়া দিয়েছেন।

ভাটারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুক্তারুজ্জামান বলেন: শিশুটির বাবা ইয়াসিন মুন্সি আরেক ভাড়াটিয়ার ছেলে এনামুলের (১৫) বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা করেছেন। আসামিকে আইনের আওতায় আনতে পুলিশি অভিযান চলছে।

বিজ্ঞাপন