চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আশুলিয়ায় কমার্স ব্যাংকে ডাকাতি, নিহত ৮

আশুলিয়ার কাঠগড়া বাজার এলাকায় দিনে দুপুরে ব্যাংক ডাকাতির সময় ডাকাতদের গুলিতে ব্যাংক ম্যানেজারসহ ৭ জন নিহত হয়েছেন, আহত হয়েছেন ১৪ জন। পরে গণপিটুনিতে এক ডাকাতের মৃত্যু হয়, আহত হয় আরেক ডাকাত।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মোটরসাইকেল ও প্রাইভেটকারে এসে একদল সশস্ত্র ডাকাত দুপুর আড়াইটার দিকে বাংলাদেশ কমার্শ ব্যাংক এর কাঠগড়া বাজার শাখায় ঢুকে পড়ে। আতঙ্ক ছড়াতে প্রথমেই তারা হাতবোমা ও পরে এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়তে থাকে।

ডাকাতদের গুলি ও বোমায় বাংক কর্মকর্তাসহ বেশ কয়েকজন আহত হন। তাদের মধ্যে ব্যাংক ম্যানেজার ওয়ালীউল্লাহ, নিরাপত্তা কর্মী ইব্রাহিম, গ্রাহক সাহাবুদ্দিন পলাশ ও মুনির এবং ঝাল মুড়ি বিক্রেতা নুরুজ্জামান মারা যান। পরে মারা যান আরও দু’জন।

আহতদের উদ্ধার করে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

ডাকাতির ঘটনা জানতে পেরে স্থানীয়রা ধাওয়া দিয়ে মোটরসাইকেল আরোহী দুই ডাকাতকে ধরে ফেলে। গণপিটুনিতে তাদের একজন মারা যায়, আহত হয় আরেক ডাকাত।

Advertisement

ধরা পড়া ডাকাতদের কাছ থেকে প্রায় ৭ লাখ টাকা পাওয়া যায়। ব্যাংক থেকে ওই পরিমাণ টাকাই লুট হয়েছিলো বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে।

ডাকাতদের কাছ থেকে তিনটি উচ্চ ক্ষমতার বোমা এবং সঙ্গে থাকা মোটর সাইকেল উদ্ধার করেছে পুলিশ।

ব্যাংক শাখাটির ভেতরেও অবিস্ফোরিত বোমা  পাওয়া যায়। উদ্ধার করা তাজা বোমা নিস্ক্রিয় করার চেষ্টা করছেন বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দল।

পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক জানান, নাশকতা ঘটানোর উদ্দেশ্যেই এই ডাকাতি বলে প্রাথমিকভাবে সন্দেহ করা হচ্ছে। 

গোয়েন্দা পুলিশের সহকারি কমিশনার ওবায়দুল হক বলেন, আপাত: দৃষ্টিতে মনে হচ্ছে অস্ত্রধারীরা হত্যাকাণ্ডের উদ্দেশ্যেই ব্যাংকে এসেছিলো। তবে শুরুতে ডাকাতির ঘটনা হিসেবে  বিবেচনা করে তারা তদন্ত শুরু করেছেন।

গোয়েন্দারা সিসি ক্যামেরার ফুটেজ নিয়ে গেছেন। তাতে দেখা গেছে, তিনজন ব্যাংকটিতে ঢুকেই গুলি ছুঁড়তে শুরু করে। এ কারণে হত্যাকাণ্ডই মূল টার্গেট ছিলো বলে গোয়েন্দারা মনে করছেন।

একসময়ের রাষ্ট্রীয় মালিকানার বাংলাদেশ কমার্স বাংক এখন বেসরকারি মালিকানায় থাকলেও সরকারের কিছু শেয়ার এখনও আছে।