চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আরও ৬ কোটি ডোজ সিনোফার্মের ভ্যাকসিন কেনার অনুমোদন

চীনের সিনোফার্মের আরও ৬ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন কেনার অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। নভেম্বরের মধ্যেই এই ভ্যাকসিন পাওয়া যাবে।

বুধবার অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে ভার্চুয়ালি ২৭তম সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে ব্রিফিংয়ে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

তিনি বলেন, সিনোফার্ম থেকে ৬ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছি। দেশের ১৩ কোটি ৮২ লাখ জনগোষ্ঠীকে ভ্যাকসিন দিতে হবে। সেজন্য ২৭ কোটি ৬৫ লাখ ভ্যাকসিন কেনা প্রয়োজন। এর মধ্যে ২ কোটি ৫৫ লাখ আমাদের হাতে আছে। বাকিটা সংগ্রহ করতে হবে। আজ ৬ কোটি ডোজ কেনার জন্য অনুমোদন দেয়া হয়েছে। বাকিটা পর্যায়ক্রমে আনা হবে।

ভ্যাকসিনের দামের বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, দাম কত তা বলব না। আগের নির্ধারিত যে দাম আছে তার চেয়ে বাড়েনি।

সবমিলে যে ২৭ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন লাগবে তার জন্য মোট কতো টাকা লাগতে পারে, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দাম এখনো চূড়ান্ত হয়নি। হলে জানা যাবে। সে জন্য আমরা বলতে পারছি না।

বিজ্ঞাপন

এ প্রসঙ্গে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. সামসুল আরেফিন বলেন, ভ্যাকসিনের বিষয়ে চীনের সঙ্গে নন-ডিসক্লোজার একটি এগ্রিমেন্ট আছে। সেজন্য দামটি প্রকাশ করা যাবে না। আশা করি ৬০ মিলিয়ন সিনোফার্মের ভ্যাকসিন পাবো। আগামী নভেম্বরের মধ্যে এ ভ্যাকসিন পাবো বলে আশা করছি।

আজকের ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা বৈঠকে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের অধীন স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কর্তৃক চীনা প্রতিষ্ঠান সিনোফার্ম থেকে ৬০ মিলিয়ন ডোজ ভ্যাকসিন সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে (ডিপিএম) চুক্তিপত্রে উল্লিখিত একক মূল্যে কেনার অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

এর আগে সরকার চীনের কাছ থেকে সিনোফার্মের দেড় কোটি ডোজ ভ্যাকসিন ক্রয় করে। তার মধ্যে ৭০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন ইতোমধ্যে দেশে এসে পৌঁছেছে।

এর বাইরে কোভ্যাক্স ফ্যাসিলিটির আওতায় আরও ১৭ লাখ ডোজ সিনোফার্মের ভ্যাকসিন এসেছে। চীন থেকে উপহার হিসেবে বাংলাদেশ পেয়েছে আরও ১১ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন।

এছাড়া ১ম ও ২য় শ্রেণির শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে সরবরাহের জন্য ৭৬ লাখ ৪২ হাজার ৭১টি বই ছাপানো, বাধাই এবং বিতরণ বাবদ ১৮ কোটি ৩৩ লাখ ৩৪ হাজার টাকার ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন করেছে ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।

বিজ্ঞাপন