চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আম্পানে কক্সবাজার উপকূলে আতংক

ঘূর্ণিঝড় আম্পানের কারণে কক্সবাজার উপকূলজুড়ে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত মাইকিং করে মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে আসার আহ্বান জানালেও বেশিরভাগ মানুষ তাতে সাড়া দেননি।

কক্সবাজারের পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রদীপ কুমার গোস্বামী জানান, কক্সবাজারের ৫৯৬ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ এর মধ্যে ৮০০ মিটার এখনো খোলা। ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে ১৭৩০ মিটার। ৫ টি স্থানে কাজ চলছে। ঘূর্ণিঝড় আম্পানেও বেড়িবাঁধ খোলা থাকায় উপকূলের বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

বিজ্ঞাপন

কুতুবদিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, আমরা মঙ্গলবার বিকাল থেকে নিচু এলাকায় মাইকিং করছি মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে চলে আসার জন্য। কিন্তু কোনো মানুষ এখন পর্যন্ত আশ্রয় কেন্দ্রে আসেনি।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফ বলেন, মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে যাওয়ার জন্য প্রতিটি এলাকায় মাইকিং করা হয়েছে। আশ্রয় কেন্দ্রগুলো প্রস্তুত রাখা হয়েছে। তবে অবস্থা খারাপ হলে প্রয়োজনে নিচু এলাকার মানুষজনকে যেকোনো ভাবে আশ্রয় কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হবে। সেরকম প্রস্তুতি আর যানবাহন রয়েছে।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন জানিয়েছেন, ৫৭৬ টি আশ্রয় কেন্দ্র, ২৫ টি মুজিব কিল্লা প্রস্তুত রয়েছে। অবস্থা খারাপ হলে মানুষকে যে কোনভাবে আশ্রয় কেন্দ্রে নিয়ে আসা হবে। আশ্রয় নেওয়া মানুষগুলো যাতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে আশ্রয় নিতে পারে সেই ব্যবস্থা করে রাখা হয়েছে।

প্রস্তুত রয়েছে ৭১ টি মেডিকেল টিম। ৮ টি রেপিড রেসপন্স টিম প্রস্তুত রাখার পাশাপাশি খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুমও।