চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আমিষ: ভালোবাসার মানুষকে খুশি করতে কত দূর যাওয়া সম্ভব?

গেল বছরের শেষ দিকে ভারতের প্রখ্যাত নির্মাতা অনুরাগ কাশ্যপ একটি টুইট করেন। টুইটে তিনি বলেন, ২২ নভেম্বর আসামের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাচ্ছে ‘আমিষ’ নামে একটি ছবি। এবং তিনি এও বলেন ‘ভারতে আমিষ-এর মতো ছবি আপনি আর দেখেননি’।

স্বভাবতই ছবিটি নিয়ে আগ্রহ তৈরি হয় সিনেমাপ্রেমীদের মনে। অন্তত যারা অনুরাগের সিনেমার ভক্ত! তাছাড়া আসামে এই ছবিটি অনুরাগের ‘গুড-ব্যাড ফিল্মস’-এর প্রথম পরিবেশনা! বেশকিছু আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবেও বেশ প্রশংসিত হয় ছবিটি। বাংলাদেশের সিনেপ্রেমীদেরকেও ছুঁয়ে গেছে আমিষ। সোশ্যাল মিডিয়ায় চলছে আলোচনা। গেল নভেম্বরে ছবিটি মুক্তির পর ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বেশকিছু রিভিউ ছেপেছিলো। তারমধ্যে একটি রিভিউ লিখেন শুভ্রা গুপ্ত। সিনেমা নিয়ে সেই আলোচনাটির অনুবাদ থাকলো এখানে:

কতো ভাবে ভালবাসা যায়? খুব সহজ উত্তর এবং চমকে দেয়ার মতো: এই পৃথিবীতে যত অনুভূতিশীল প্রাণী আছে এবং ভালবাসা প্রকাশের যতগুলো উপায় আছে। আরেকটি মানুষের সঙ্গে আপনার গভীর সংযোগ স্থাপন ছাড়া সত্যিকারের ভালবাসা আর কিছুই নয়।

বিজ্ঞাপন

ছবির দুই কেন্দ্রীয় চরিত্রের সঙ্গে নির্মাতা

বিজ্ঞাপন

ভাস্কর হাজারিকার ‘আমিষ’ সিনেমাটি শুরু হয় খুব সাধারণ ভাবে। এক তরুণ তার অসুস্থ বন্ধুকে সারিয়ে তুলতে ছুটে যায় মধ্যবয়সী এক নারী ডাক্তারের কাছে। রোগীর যন্ত্রণার কথা শুনে সেখানে যেতে রাজি হন সেই ডাক্তার। এভাবেই পরিচয় হয় পিএইচডি শিক্ষার্থী সুমন এবং ডাক্তার নির্মলির। তাদের ঘনিষ্ঠতা সেখান থেকেই শুরু।

ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে বিভিন্ন রকমের খাদ্যাভ্যাস এবং মাংসের প্রকারভেদ নিয়েই সুমনের পড়াশোনা। দুজন একান্তে খাবার (মাংস) নিয়ে আলোচনা এবং নানা স্বাদের খাবার (মাংস) খাওয়ার টানে ঘনিষ্ঠতা বাড়তে থাকে তাদের মাঝে। স্বামীর অনুপস্থিতিতে সুমনের সহচার্য তার ভালো লাগতে শুরু করে নির্মলির।

সুমন ও নির্মলির আগ্রহ যেই বিষয়ে, তা তারা কাউকে বলতে পারে না। ফলে তারা ডুবে যেতে থাকে ঘোর অন্ধকারে।

‘আমিষ’ সিনেমাটি প্রথমে বেশ হালকা মেজাজের মনে হলেও শেষ পর্যন্ত চমকে দেয়ার মতো সিনেমা। হাজারিকা এই সিনেমাটিকে এমন এক যায়গায় নিয়ে গিয়েছেন, যা কখনো কেউ সাহস করেনি। এই সিনেমার মাধ্যমে গভীর এবং অসস্তিকর কিছু প্রশ্ন তোলা হয়েছে: ভালোবাসার মানুষটিকে খুশি করার জন্য কত দূর যাওয়া সম্ভব? কোনটা নিষিদ্ধ? কোথায় থেমে যাওয়া উচিত? থামা কি উচিত?

দুর্বল চিত্তের মানুষের এই সিনেমাটি দেখা উচিত নয়। ‘আমিষ’ কোনো সাধারণ সিনেমা নয়, হাজারিকার অনন্য এক সৃষ্টি।

২০১৯ সালের অসমীয়া সিনেমা ‘আমিষ’। ছবির মূল দুটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন লিমা দাস এবং অর্ঘ্যদীপ বড়ুয়া।