চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আমরা বিস্মিত হয়েছি, ব্যথিত হয়েছি: গ্রামীণফোন সিইও

গ্রামীণফোনের ব্যান্ডউইথ কমানোর সিদ্ধান্তে বিস্ময় ও হতাশা প্রকাশ করেছেন মোবাইল অপারেটর প্রতিষ্ঠান গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মাইকেল ফলি। তিনি বলেছেন: ‘আমরা বিস্মিত হয়েছি, ব্যথিত হয়েছি।’

বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি)’র এই নির্দেশনা বাংলাদেশের মানুষ এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর বাড়তি চাপ সৃষ্টি করবে উল্লেখ করে গ্রামীণফোনের পক্ষ থেকে এই নির্দেশনা তুলে নেয়ার জন্য বিটিআরসিকে অনুরোধ জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন

রোববার বেলা সাড়ে ১১ টায় রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে গ্রামীণফোন সিইও এ কথা বলেন।

মাইকেল ফলি বলেন, ‘আলোচনার মাধ্যমে আমরা সমস্যার সমাধান করতে চাই। আমরা আরবিট্রেশন অ্যাক্ট’র মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করতে চাই। এজন্য আমরা বিটিআরসি’কে চিঠি দিয়েছি। তবে এখনো এর কোনো জবাব পাইনি আমরা। আশা করছি এর একটি গঠনমূলক সমাধান হবে।’

বিজ্ঞাপন

বিটিআরসি যে ১২ হাজার কোটি টাকার বেশি দাবি করেছে সেটি যুক্তিযুক্ত কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে গ্রামীণফোনের কর্মকর্তারা বলেন, ‘আরবিট্রেশন প্রক্রিয়ায় যে পরিমাণ অর্থের হিসেব আসবে আমরা তা পরিশোধ করব।’

এ সময় গ্রামীণফোনের শীর্ষ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বকেয়া অর্থ পরিশোধ না করায় গ্রামীণফোন ও রবির বিরুদ্ধে গত বৃহস্পতিবার শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানায় সরকার। শীর্ষ এই দুই মোবাইল ফোন অপারেটরের ব্যান্ডউইথ বৃহস্পতিবারই আংশিকভাবে ব্লক করার নির্দেশ দেয়া হয়। এর ফলে গ্রাহকরা কল ড্রপ ও ইন্টারনেট সেবায় ধীরগতির সমস্যার মুখে পড়বেন।

বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি) এর জ্যেষ্ঠ সহকারী পরিচালক জাকির হোসেন এ বিষয়ে জানান, বকেয়া অর্থ পরিশোধ না করা পর্যন্ত গ্রামীণফোনের ৩০ শতাংশ ও রবির ১৫ শতাংশ ব্যান্ডউইথ ব্লক করে রাখা হবে। সরকারের পক্ষ থেকে দেয়া এই নির্দেশনা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হাতে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাদের ব্যান্ডউইথ আংশিক ব্লক করে দেয়া হবে।

Bellow Post-Green View