চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আফ্রিদি-ওয়াহাবের তোপে হারের খাতায় টেলরের সেঞ্চুরি

একসময় মনে হচ্ছিল পাকিস্তান আড়াইশতেও যেতে পারবে না। সেখান থেকে গেল পৌনে তিনশয়। জিম্বাবুয়ে জবাব দিতে নামলে দুর্দান্ত সেঞ্চুরিতে আশা জাগালেন ব্রেন্ডন টেলর। কিন্তু শাহিন শাহ আফ্রিদি ও ওয়াহাব রিয়াজের পেস তোপে বাকিরা তাকে সমর্থন দিতে পারলেন না। জয়ের পাল্লাটা ঝুঁকে গেল স্বাগতিকদের দিকে।

করোনাকালে মাঠে গড়ানো আরেকটি সিরিজে রাওয়ালপিন্ডিতে ২৬ রানের জয়ে সিরিজ শুরু করেছে পাকিস্তান। আফ্রিদি ৫টি ও ওয়াহাব ৪টি করে উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা টেলরের ঝলমলে ১১২ রানের ইনিংসকে হারের খাতায় ঠেলে দেন।

বিজ্ঞাপন

সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে শুরুতে ব্যাট করে নির্ধারিত ওভারে ৮ উইকেটে ২৮১ রান তোলে পাকিস্তান। লক্ষ্য তাড়ায় নেমে ২ বল হাতে রেখে গুটিয়ে যাওয়ার সময় জিম্বাবুয়ে যেতে পারে ২৫৫ পর্যন্ত।

ইমাম-উল-হকের ৫৮, হারিস সোহেলের ৭১, ইমাদ ওয়াসিমের অপরাজিত ৩৪, ফাহিম আশরাফের ২৩ ও আবিদ আলির ২১ রানে পৌনে তিনশর সংগ্রহ গড়ে পাকিস্তান।

বিজ্ঞাপন

রানতাড়ায় নেমে শুরুটা ভালো না হলেও ক্রেইগ আরভিনকে (৪১) নিয়ে খেলা গোছাতে থাকেন সেঞ্চুরিয়ান টেলর। দুজনে ৭১ রান যোগ করেন।

আরভিন ফিরে গেলে ওয়েসলে মাদভেরে (৫৫) হন টেলরের সঙ্গী। এই জুটিতে আসে ১১৯ রান। দুজনেই পরপর ফিরে গেলে বাকিরা রানের ধারাটা ধরে রাখতে পারেননি। ততক্ষণে প্রয়োজনীয় রানরেটটাও চড়ে যায়।

টেলর ১১ চার ও ৩ ছক্কায় ১১৭ বলে ১১২ রানের ইনিংস খেলে যান। ক্যারিয়ারের ১১তম ওয়ানডে শতক তার।

পাকিস্তানকে জয়ের পথে রাখা শাহিন আফ্রিদি ১০ ওভারে ৪৯ রানে ৫ উইকেট। ওয়াহাব রিয়াজ ৯.৪ ওভারে ৪১ রানে ৪ উইকেট নেন। দুজনের উইকেট ভাগাভাগির দিনে অন্য উইকেটটি গেছে ইমাদ ওয়াসিমের ঝুলিতে।