চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আপনি ডিপজল, আমি মান্না: হৃদয়ের কথায় আপ্লুত চঞ্চল

সোশাল মিডিয়ার এই যুগে প্রিয় তারকা মুখ নিয়ে ভক্তদের উন্মাদনা আগের চেয়ে অনেকটাই কমেছে! কারণ এখন যে কেউ চাইলেই প্রিয় তারকার উদ্দেশে ছুড়ে দিতে পারেন নিজের ভালো কিংবা মন্দ লাগার অনুভূতি। কিংবা ভার্চুয়াল দুনিয়ায় তারকা-ভক্তদের মধ্যে নিয়মিত হয় মন্তব্য চালাচালি।

কিন্তু যারা সোশাল মিডিয়ার বাইরে, তাদের কাছে প্রিয় তারকাকে কাছে পাওয়ার অনুভূতি সেই আগের মতোই, অকৃত্রিম! সেটাই যেন আরো একবার প্রমাণ করলেন বালক হৃদয়।

হৃদয়কে কারো চেনার কথা নয়, কিন্তু অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরীর একটি ভিডিও ক্লিপের কারণে হয়তো অনেকেই তাকে চিনে ফেলেছেন। অন্তত ১৬ লাখের বেশি মানুষ এখন পর্যন্ত তাকে দেখেছেন। চঞ্চল চৌধুরীর শেয়ার করা ভিডিওটি পছন্দ করেছেন প্রায় দেড়লাখ মানুষ, সেইসঙ্গে মন্তব্য পড়েছে অন্তত ছয় হাজার!

চঞ্চলের শেয়ার করা ভিডিওতে কী আছে, যা এতো মানুষের মধ্যে সাড়া ফেললো? এক কথায় এর উত্তরে বলা যায়, প্রিয় তারকার প্রতি অগাধ ভালোবাসা আর সারল্য মাখা আবেগ। সোশাল মিডিয়ায় যে সারল্য দেখে মুগ্ধ হচ্ছেন দর্শক!

বিজ্ঞাপন

২ মিনিট ৪২ সেকেন্ডের ভিডিও থেকে জানা যায়, হৃদয়ের বাড়ি ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে। পরিবার সহ তারা উত্তরার অদূরে জামতলা নামক কোনো জায়গায় থাকেন। অন্য আট দশজন বালকের মতো স্বাভাবিকভাবে কথা না বলতে পারলেও বুদ্ধিতে তীক্ষ্ণ হৃদয়। সম্প্রতি উত্তরায় একটি নাটকের শুটিং করতে গিয়ে হৃদয়ের সাথে সাক্ষাৎ হয় চঞ্চল চৌধুরীর।

শুটিংস্পটে চঞ্চল চৌধুরীকে দেখেই দৌড়ে গিয়ে জড়িয়ে ধরেন, এমনটাই জানালেন ‘আয়নাবাজি’র এই অভিনেতা। হৃদয়ের সাথে সাক্ষাৎ প্রসঙ্গে বলেন,  ‘কিছুদিন আগে উত্তরায় একটা শুটিং লোকেশনে ওর সাথে দেখা… দৌড়ে এসে আমাকে জড়িয়ে ধরলো। তারপরের অংশটুকু আমার মেকআপ আর্টিস্ট মোবাইল ফোনে রেকর্ড করেছিল।’

ভিডিওতে দেখা যায়, চঞ্চলকে জড়িয়ে ধরে হৃদয় বলছেন ‘নিথুয়া পাথারে’ গানের মাধ্যমে তাকে চেনেন। এসময় গানটির কিছু অংশ গেয়েও শোনান হৃদয়। এরপর তার অনুরোধে ‘সর্বোত মঙ্গল রাধে’ গানটি গেয়ে শোনান চঞ্চল।

প্রিয় অভিনেতাকে কাছে পেয়েছে ছোট্ট হৃদয়ের আবদার যেন ফুরাচ্ছিলো না। গানের অনুরোধের পর চঞ্চলের সঙ্গে ‘ডায়ালগ’ দেয়ারও প্রস্তাব জানান হৃদয়। ভিডিওতে চঞ্চলকে উদ্দেশ করে হৃদয়কে বলতে দেখা যায়, ‘আপনার লগে একটা ডায়ালগ দিমু। আপনি ডিপজল, আমি মান্না…’।

হৃদয়ের এমন অকৃত্রিম ভালোবাসায় আপ্লুত হন চঞ্চল। প্রিয় তারকার প্রতি এমন আবেগ,  ভালোবাসার কাছে অন্যসব কিছু তুচ্ছ। সেটাও যেন বলতে ভুল করলেন না চঞ্চল। জানালেন, ‘এতো মানুষের ভালোবাসা… এটাই আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ অর্জন, শ্রেষ্ঠ পুরস্কার।’

বিজ্ঞাপন