চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আদিবাসী অস্ট্রেলিয়ানরা ২ হাজার বছর আগে কলা চাষ করতেন: গবেষণা

একদল প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষক দাবি করেছেন, মানব ইতিহাসে ২ হাজার বছর আগে আদিবাসী অস্ট্রেলিয়ানরা কলা চাষ করতেন।

প্রত্নতাত্ত্বিকদের বরাত দিয়ে বিবিসি বলছে, অস্ট্রেলিয়ার আদিবাসীদের দ্বারা পরিচালিত প্রাচীন কলা খামারের নিদর্শন খুঁজে পেয়েছেন প্রত্নতত্ত্ববিদরা।

বিজ্ঞাপন

তারা বলছেন, অস্ট্রেলিয়ার উত্তরে ছোট্ট দ্বীপ টরেস স্ট্রেইটে পাওয়া গেছে ২ হাজার ১৪৫ বছর আগের এ ধরনের নিদর্শন।

গবেষকরা ঘটনাস্থলে কলার মাইক্রোফসিল, চাষাবাদের পাথরের সরঞ্জাম, কাঠকয়লা এবং কলা চাষের জন্য তৈরিকৃত দেয়ালের কিছু প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন বিষয়ে নিশ্চিত হয়েছেন।

গবেষকরা বলছেন, অস্ট্রেলিয়ার আদিবাসীরা কেবলমাত্র ‘শিকারী‘ ছিলেন বলে যে লোককথা প্রচলিত আছে এই নব-আবিষ্কারের মাধ্যমে সে অপবাদ ঘুছে যাবে।

বিজ্ঞাপন

বুধবার অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এবং সিডনি বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক তাদের গবেষণার এ ফলাফল প্রকাশ করেছেন।

গবেষক দলের প্রধান রবার্ট উইলিয়ামস বলেন, আমাদের গবেষণার ফলাফল বলছে যে, আমাদের গবেষণায় দেখা গেছে, মাবুয়াগের গোগমুল্গাল পূর্বপুরুষরা কমপক্ষে ২,০০০ বছর পূর্বে পশ্চিম টরেস স্ট্রেইটে সুশৃঙ্খল বিবিধ চাষ এবং উদ্যানচর্চায় জড়িত ছিল।

তিনি বলেন, টরেস স্ট্রেইটকে ঐতিহাসিকভাবে নিউ গিনি আদিবাসী গোষ্ঠী-বর্তমানে ইন্দোনেশিয়ার অংশ এবং পাপুয়া নিউগিনি-যারা কৃষিক্ষেত্র অনুশীলন করতো তাদের মধ্যে বিভাজন রেখা হিসেবে দেখানো হয়। ইতিহাসে এই আদিবাসীদের শিকারী হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছিলো। কিন্তু আমাদের অনুসন্ধানে উভয় অঞ্চলজুড়ে উদ্যানচর্চার ক্ষেত্রে টরেস স্ট্রেইট একটি সেতুবন্ধন ও সহায়তাকারী হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে।

সেসময় স্থানীয় কৃষি ব্যবস্থায় আঞ্চলিক খাদ্যের মধ্যে কাঁচামাল হিসেবে ইয়ামস, তারো এবং কলা জাতীয় খাদ্য অন্তর্ভুক্ত ছিলো বলে দাবি করেন গবেষকরা।

গবেষক উইলিয়ামস আরও বলেন, খাদ্য আদিবাসী সংস্কৃতির একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গএবং পরিচয়। এই গবেষণায় তাদের সেই অনুশীলনের বয়স ও গভীরতা প্রমাণিত হয়েছে।

কিন্তু ব্রিটিশরা ঔপনিবেশিকরণের সময় আদিবাসী কৃষি ব্যবস্থার প্রমাণ অস্বীকার করে এবং তারা দাবি করে যে, ওই এলাকার জমি অনাবাদী ও অনধিকৃত ছিলো। কিন্তু বিষয়টি ভুল। সেখানে চাষাবাদ হতো।