চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আইএস বধূ শামীমা বাংলাদেশের নয়, জন্মগতভাবে ব্রিটিশ নাগরিক

জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস-এ যোগ দেয়া শামীমা বেগম বাংলাদেশের নাগরিক নয়, জন্মগতভাবে ব্রিটিশ নাগরিক। দ্বৈত নাগরিকত্বের জন্য সে কখনো আবেদন করেনি বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবর জানিয়েছে, যুক্তরাজ্য থেকে শামীমা বেগমের নাগরিকত্ব বাতিল করা হয়েছে। তবে যুক্তরাজ্যর পাশাপাশি বাংলাদেশেরও নাগরিক হওয়ার বিষয়টি নিয়ে সচেতন বাংলাদেশ। বাংলাদেশ নিশ্চিত করতে চায় সে বাংলাদেশের নাগরিক নয়। জন্মসূত্রে সে ব্রিটিশ নাগরিক এবং কখনোই বাংলাদেশে দ্বৈত নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করেনি।

বিজ্ঞাপন

বিবৃতিতে আরো উল্লেখ করা হয়, বাবা-মায়ের সংযোগ থাকা সত্ত্বেও সে কখনো বাংলাদেশ সফরও করেনি। সুতরাং এখন তাকে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে দেয়ার প্রশ্নই আসেনা। এই সব বিষয় বিবেচনায় নিয়ে যেকোনো ধরনের সন্ত্রাসবাদ ও চরমপন্থার ব্যাপারে বাংলাদেশের জিরো টলারেন্স নীতি রয়েছে। 

বিজ্ঞাপন

দ্বৈত নাগরিকত্ব থাকার প্রসঙ্গে শামীমা বেগমের নাগরিকত্ব বাতিল করতে চাইছিলো ব্রিটেন।

ডেইলি মিররে প্রকাশিত এক খবরে ব্রিটিশ আইনজীবী ডেভিড অ্যান্ডারসন কিউসি বলেছেন, ব্রিটিশ নাগরিক হিসেবে জন্ম নেয়া দ্বৈত নাগরিকত্ব না থাকাদের নাগরিকত্ব চাইলেই কেড়ে নেওয়া যাবে না।

আবার নিজের দ্বৈত নাগরিকত্ব নেই বলে জানিয়েছেন শামীমা নিজেই। তবে এই ধরনের কার্যক্রমের বিরুদ্ধে কোনো আইনী পদক্ষেপ নিবে বলে জানিয়েছে পরিবারটি।

এর আগেও ক্যামেরার সামনে আইএসের হয়ে হত্যাকাণ্ড করেছে শামীমা। তাই তাকে আবার ব্রিটেনে প্রবেশ করতে দিলে আবারও সন্ত্রাসী আক্রমণ হবে বলে মন্তব্য করেছেন সেখানকার হোম সেক্রেটারি সাজিদ জাভিদ।

Bellow Post-Green View