চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

অ্যান্ডারসনের মাইলফলকের দিনে প্রোটিয়াদের টানলেন ডি কক

২২ গজে অনন্য নজির গড়লেন জেমস অ্যান্ডারসন। বিশ্বের প্রথম বোলার হিসাবে খেলে ফেললেন ১৫০টি টেস্ট। তার আগে কোনো স্পেশালিস্ট বোলারের এই কৃতিত্ব নেই। ইংলিশ পেসারের রেকর্ডের দিনে বিপদে পড়েছিল সাউথ আফ্রিকা। সেখান থেকে দলকে টানলেন কুইনটন ডি কক।

সাউথ আফ্রিকার বিরুদ্ধে প্রথম টেস্টের প্রথম দিনেই এই মাইলস্টোন স্পর্শ করলেন এই প্রজন্মের অন্যতম সেরা ফাস্টবোলার অ্যান্ডারসন। সেঞ্চুরিয়নের সুপারস্পোর্ট পার্কে বক্সিং-ডে টেস্ট শুরুর আগে অ্যান্ডারসনের হাতে বিশেষ ক্যাপ তুলে দেন ইংল্যান্ডের সাবেক অধিনায়ক নাসির হুসেইন।

রেকর্ডের এই ম্যাচে প্রথম উইকেটটিও নেন অ্যান্ডারসন। এদিন টস জিতে স্বাগতিকদের ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানান জো রুট। ডিন এলগার ও এইডেন মার্করাম ব্যাট করতে নামেন। অ্যান্ডারসন বল হাতে শুরু করেন। প্রথম ওভারের প্রথম বলেই এলগারকে আউট করে দেন তিনি। জস বাটলারের হাতে ক্যাচ তুলে দেন প্রোটিয়া ওপেনার। রায়ান সাইডবটম, জিওফ আর্নল্ড ও মরিস টেটের পর অ্যান্ডারসন ইংল্যান্ডের চতুর্থ বোলার; যিনি টেস্ট ম্যাচের প্রথম বলেই উইকেট নেয়ার স্বাদ পান। আর্নল্ড আবার এই কৃতিত্ব দু’বার দেখিয়েছেন।

অ্যান্ডারসনের দেখানো পথ অনুসরণ করেন অন্যরা। ইংলিশ পেস আক্রমণের তোপে ১০০ রানের আগেই চার উইকেট হারায় প্রোটিয়ারা। সেখান থেকে দলকে টানে ডি কক। তবে দলে টানলেও শেষ পর্যন্ত আক্ষেপ নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় তাকে। পাঁচ রানে জন্য সেঞ্চুরি হাতছাড়া হয় তার। ৯৫ রান করে আউট হন ডি কক।

ডি কক ছাড়া প্রোটিয়াদের হয়ে বলার মতো ইনিংস খেলেছেন জুবায়ের হামজা ৩৯, ডোয়েন প্রিটোরিয়াস ৩৩, ফ্যাফ ডু প্লেসিস ২৯ ও ভারনন ফিল্যান্ডার অপরাজিত ২৮। আট ওভার বাকি থাকতেই দিনের খেলা শেষ হয়ে যায়। তাকে ৯ উইকেটে ২৭৭ রান তোলে সাউথ আফ্রিকা।

বিজ্ঞাপন

ইংল্যান্ডের হয়ে স্যাম কারেন ৪টি ও স্টুয়ার্ট ব্রড তিনটি উইকেট নেন। এছাড়া আর্চারের দখলে এক উইকেট।

২০০৩ সালে ২২ মে মাত্র ২০ বছর বয়সে ইংল্যান্ডের হয়ে টেস্ট অভিষেক হয় অ্যান্ডারসনের। এখন সর্বকালের সেরা পেসারদের তালিকায় নিজের নাম নথিভুক্ত করে ফেলেছেন তিনি। ২৬.৯৪ গড়ে অ্যান্ডারসন নিয়েছেন ৫৭৬টি উইকেট।

এর আগে শেন ওয়ার্নের ঝুলিতে ছিল বোলার হিসাবে সর্বাধিক টেস্ট খেলার কৃতিত্ব। ক্রিকেটের দীর্ঘতম ফরম্যাটে অজি কিংবদন্তি ১৪৫টি ম্য়াচ খেলেছিলেন। ওয়ার্নের পরে তিনে রয়েছেন অ্যান্ডারসনের সতীর্থ ব্রড। ১৩৫ নম্বর টেস্ট খেলছেন তিনি।

ইংল্যান্ডের ক্রিকেটারদের মধ্যে সর্বাধিক টেস্ট খেলা ক্রিকেটারদের তালিকায় দুই আছেন অ্যান্ডারন। একে অ্যালিস্টর কুক (১৬১)। এরপর অ্যান্ডারসন, ব্রড, অ্যালেক স্টুয়ার্ট (১৩৩)। পাঁচে ইয়ান বেল/ গ্রাহাম গুচ (১১৮)।

সার্বিক বিচারে সবচেয়ে বেশি টেস্ট খেলা ক্রিকেটারদের তালিকায় সাত নম্বরে অ্যান্ডারসন। সবার উপরে শচীন টেন্ডুলকার (২০০টি টেস্ট), দুই নম্বরে রিকি পন্টিং ও স্টিভ ওয়াহ (১৬৮), তিনে জ্যাক ক্যালিস (১৬৬), চারে শিবনারায়ণ চন্দরপল ও রাহুল দ্রাবিড় (১৬৪)। এরপর পাঁচে অ্যালিস্টার কুক (১৬১) ও ছয়ে অ্যালান বর্ডার (১৫৬)।)

বিজ্ঞাপন