চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

অস্ত্র উদ্ধার অভিযান শেষে যা বললেন পুলিশ প্রধান

রাজধানীর উত্তরার দিয়াবাড়িতে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার অভিযান শেষ করে পুলিশ প্রধান বলেছেন, বড় ধরনের নাশকতা ঘটাতেই অস্ত্র ও গোলাবারুদের মজুদ করা হয়েছিল। নাশকতা পরিকল্পনা পুলিশের অভিযানের কারণেই নস্যাৎ হয়ে গেছে বলে দাবি করেছেন তিনি।

শনিবার রাতে রাজধানীতে সবচেয়ে বড় অবৈধ অস্ত্রের সন্ধান পাওয়া যায় উত্তরার ১৬ নম্বর সেক্টরের বৌদ্ধ মন্দিরের পাশে দিয়াবাড়ি খালে। রাতের অভিযানের পর রোববার সকাল ৮টায় আবারো তল্লাশি শুরু করে পুলিশ ও ফায়ারসার্ভিস।

দুপুর পর্যন্ত টানা তল্লাশি চালায় ফায়ার সার্ভিসের ৭ সদস্যের ডুবুরি দল। পাওয়া যায় এসএমজি’র ৩২টি ম্যাগজিন এবং পিস্তল বানানোর ৮টি ক্লিনিং রড।

ফায়ার সার্ভিসের ডিএডি মো. সালেহ বলেন, ‘সকাল থেকে শুরু করে পুরো লেক ৩ বার সার্চ করা হয়েছে। এতে ৩২টি ম্যাগাজিন এবং ক্লিনিং রড উদ্ধার করেছি।’

বিজ্ঞাপন

উদ্ধার অভিযান দেখতে আসেন পুলিশের মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক। আগের রাত থেকে উদ্ধার হওয়া অস্ত্র ও গোলাবারুদের চালান কারা কী কারণে মজুদ করেছিলো সে বিষয়ে কথা বলেন তিনি।

পুলিশ মহাপরিদর্শক শহীদুল হক বলেন, ‘এগুলো বেআইনি অস্ত্র। ডিএমপি’র গোয়েন্দা শাখা এই অস্ত্র চালানের ব্যাপারে তদন্ত করবে। তদন্তে এসব অস্ত্র কী উদ্দেশ্যে, কারা এনেছিল তা বের করা হবে। তবে এটা সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্রের কাজ বলে ধারণা করা হচ্ছে।’

শনিবার দুপুর ৩টার দিকে নম্বরবিহীন একটি কালো জিপ থেকে খালে ব্যাগ ফেলতে দেখে একজন পুলিশ কনস্টেবল খবর দেন তুরাগ থানায়। টহল পুলিশ আসায় জিপ নিয়ে তারা চলে যায়।

পরে পুলিশ এসে উদ্ধার করে সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে বড় অস্ত্রের মজুদ। ডুবুরি দল রাতেই কয়েক ঘণ্টার অভিযানে উদ্ধার করে ৯৭টি পিস্তল, ১ হাজার ৬০ রাউন্ড গুলি, ৪৬২টি ম্যাগজিন ও ১০টি বেয়নেট।

বিজ্ঞাপন