২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা

পাকিস্তানী গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইয়ের মদদে একুশে আগস্টের গ্রেনেড হামলায় অংশ নিয়েছিলো ৫ জঙ্গি সংগঠন। যারা আফগান যুদ্ধ শেষে তালেবানি কায়দায় বাংলাদেশে নাশকতার উদ্দেশ্যে কাজ শুরু করেছিলো। এদের সংগঠিত করা হয় হাওয়া ভবন থেকে তারেক রহমানের নেতৃত্বে। আদালতে দেয়া সাক্ষী-জেরায় এই তথ্য দিয়েছেন মামলার সর্বশেষ সাক্ষী ও তদন্ত কর্মকর্তা আব্দুল কাহার আকন্দ। একুশে আগস্টের গ্রেনেড হামলা মামলার সর্বশেষ সাক্ষী ও তদন্ত কর্মকর্তা আব্দুল কাহার আকন্দ টানা কয়েকটি কার্যদিবসে ঢাকার এক নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে সাক্ষ্য দেন। এরপর তাকে কয়েকজন আসামির পক্ষ থেকে এরইমধ্যে জেরা করা হয়েছে। সোমবার হরকাতুল জিহাদের শীর্ষ নেতা মুফতি হান্নানের পক্ষে তাকে জেরা করেন আইনজীবীরা। রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান আইনজীবী সৈ

By পরাগ আজিম on সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৬ ১৯:০১

একুশে আগস্টের গ্রেনেড হামলার পর অবিস্ফোরিত গ্রেনেড ধ্বংস করা হয়েছিলো আদালতের অনুমতি ছাড়া। মামলার সাক্ষ্যে এই তথ্য জানিয়ে ওয়ান ইলেভেনের সময়কার তদন্ত কর্মকর্তা ফজলুল কবীর বলেছেন, আদালতের অনুমতি ছাড়া অবিস্ফোরিত গ্রেনেড ধ্বংস করা আইনসঙ্গত ছিলো না। একুশে আগস্টের গ্রেনেড হামলা মামলার ২২৪তম সাক্ষী সিআইডির সাবেক এএসপি ফজলুল কবীর। ওয়ান ইলেভেনের সময় তার তদন্তেই প্রথম মামলাটি সঠিক গতিপথ পায়। ওই তদন্তে বেরিয়ে আসে হামলার সঙ্গে সরাসরি হরকাতুল জিহাদের সংশ্লিষ্টতা। মুফতি হান্নান, মাওলানা তাজউদ্দিনসহ আসামী করা হয় চারদলীয় জোট সরকারের উপমন্ত্রী আব্দুস সালাম পিন্টুকে। ২০০৭ সালে তদন্তের দায়িত্ব নিয়ে চার্জশিট দিয়েছিলেন পরের বছর। তদন্ত প্রক্রিয়ার খুঁটিনাটি নিয়ে আদালতে সাক্ষ্য দেয়া শুরু করেছেন

By পরাগ আজিম on বুধবার, ০১ জুন ২০১৬ ১৮:৫০