২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করেছে এ দেশীয় বিশ্বাসঘাতক চক্রটি। ইতিহাসের এই বর্বর জঘন্যতম হত্যাকাণ্ডটির পরে অত্যন্ত লজ্জাজনক ভাবে সারাদেশ চুপসে গিয়েছিল। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় এই হত্যাকাণ্ডের খবর প্রকাশ না করে তখন মুশতাকের রাষ্ট্রক্ষমতা গ্রহণকেই ফলাও করে প্রচার করে।১৬ আগস্ট ১৯৭৫ তারিখের দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় শিরোনাম ছিল: মুশতাকের নেতৃত্বে সশস্ত্র বাহিনীর ক্ষমতা গ্রহণ'। পত্রিকাটির সম্পাদকীয় কলামের শিরোনাম ছিল: ঐতিহাসিক নবযাত্রা' দৈনিক ইত্তেফাকে আরও শিরোনাম ছিল: উপরাষ্ট্রপতি ১০ জন মন্ত্রী ও ৬ জন প্রতিমন্ত্রীর শপথ গ্রহণ/জাতির বৃহত্তর স্বার্থে শাসনভার গ্রহণ/যুক্তরাষ্ট্র স্বাভাবিক কূটনৈতিক কাজকর্ম চালাইয়া য

By এখলাসুর রহমান on বুধবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৭ ১৬:১৩

আর মাত্র দশ দিন পর ১ বছর পূর্ণ হবে শিশু মিথিলার। বাবা স্থানীয় যুবলীগ (মাদারীপুর) নেতা ‍লিটন মুন্সী আর মা মাফিয়া আক্তার। লিটন-মাফিয়া দম্পতির প্রথম সন্তানের জন্মদিন ঘিরে তাদের আয়োজন কমতি ছিলো না। শিশু মিথিলার জন্য কাপড় কিনতে ৯দিন আগে ঢাকা এসেছিলেন লিটন। কিন্তু তার আর বাচ্চার কাপড় নিয়ে বাড়ি ফেরা হলো না। ঘাতকের বুলেট এবং গ্রেনেডের স্প্রিন্টার কেড়ে নিলো লিটনের প্রাণ। যে লিটনের বাড়িতে ফেরার কথা ছিলো বাচ্চার কাপড় হাতে করে, তাকে ফিরতে হলো লাশ হয়ে।লিটনের বাবা আইয়ু্ব আলী মুন্সী বলেন: আওয়ামী লীগের মিছিল দেখলে লিটনকে আটকে রাখা যেতো না। সব সময় সোচ্চার ছিলো শোষিত বঞ্চিত মানুষের পক্ষে। তাইতো, আগেই বাড়ি ফেরার কথা থাকলেও-আওয়ামী লীগের সমাবেশের খবরে ঢাকাতেই থেকে যায়। কিন্তু কী হলো? আমার ছেলেক

By মাহবুব মোর্শেদ on সোমবার, ২১ অগাস্ট ২০১৭ ১৭:৫৮

কিছুক্ষণের মধ্যেই বঙ্গবন্ধু এভিনিউ থেকে সন্ত্রাস ও বোমা হামলার বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের মিছিল হবে। মিছিলে থাকবেন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনা। হাজার হাজার মানুষের স্রোত সমাবেশে। হাজারো মানুষের সমাগমে রীতিমতো মহাসমাবেশের রূপ নিয়েছে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের চতুর্দিক।ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বঙ্গবন্ধুর বাসভবনের সামনে গিয়ে মিছিল শেষ হবার কথা। তাই মঞ্চ নির্মাণ না করে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে একটি ট্রাককে মঞ্চ হিসাবে ব্যবহার করা হয়। ট্রাকের ওপর সে সময়ের প্রায় সব কেন্দ্রীয় নেতা রয়েছেন। চারিদিকে দু’বার ঘুরেছি। গরমে ত্রাহি অবস্থা!ভ্যাপসা গরমে সেদিনের সেই বিকেলে আমরা বেশ কয়েকজন সাংবাদিক রমনা ভবনের সিঁড়িতে বসে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যের নোট নিচ্ছিলাম। নিয়মিত তার

By ফরিদ আহমেদ on সোমবার, ২১ অগাস্ট ২০১৭ ১২:৫৮

২০০৪ সালে ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার সন্ত্রাস বিরোধী সমাবেশে গ্রেনেড হামলার অন্যতম হোতা পাকিস্তানি জঙ্গি ইউসুফ ভাট। ভয়ঙ্কর এই জঙ্গি ২১ আগস্টের নারকীয় হামলা ছাড়াও আরো চারটি হামলার সাথে জড়িত। বাংলাদেশে জঙ্গিবাদ বিস্তারেও কাজ করেছে এই জঙ্গি।নারকীয় হামলার মূলহোতা আবু ইউসুফ ভাট আরো কিছু নামে পরিচিত ছিল, যেমন: আব্দুল মাজেদ ভাট এবং আব্দুল মজিদ। জন্মসূত্রে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরের বাসিন্দা সে। পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই নিয়ন্ত্রিত জঙ্গি সংগঠন হিযবুল মুজাহিদিনের শীর্ষ পর্যায়ের নেতা ইউসুফ।৯০ দশকে কাশ্মীর ছেড়ে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরে চলে যায় ইউসুফ, তাকে নাগরিকত্ব দেয় পাকিস্তান। হিযবুল মুজাহিদিনের নেতা সৈয়দ সালাউদ্দিনের নির্দেশে ২০০০ সাল

By আরেফিন তানজীব on রবিবার , ২০ অগাস্ট ২০১৭ ২২:৪৫

২১ আগস্টের ঘটনাকে ন্যাক্কারজনক আখ্যা দিয়ে সেই ঘটনাকে বিএনপি ঘৃণা করে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু।রোববার এক প্রশ্নের জবাবে চ্যানেল আই অনলাইনকে দুদু বলেন, ২১ আগস্টের ঘটনা বিচারাধীন। এটি নিয়ে কথা বলা উচিত না। তবে এই ঘটনাকে আমরা ঘৃণা করি, বিএনপি ঘৃণা করে। এ ধরনের ঘটনা এদেশে আর দ্বিতীয়বার সংঘটিত হোক তা আমরা চাই না।তিনি বলেন, গণতান্ত্রিক নিয়ম হলো বিভিন্ন রাজনৈতিক দল সভা করবে, সমাবেশ করবে। অপর পক্ষ তা বন্ধ করার চেষ্টা করবে, এমনটা হতে পারে না। এ ধরনের ঘটনাকে বিএনপি ঘৃণা করে। আমরা সব সময় একুশে আগস্টের ঘটনার বিরোধিতা করি।ন্যাক্কারজনক এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত অপরাধীকে বের করে আনা প্রয়োজন বলে মন্তব্য করে দুদু বলেন, কিন্তু আওয়ামী লীগ তা করছ

By সাইফুল্লাহ সাদেক on রবিবার , ২০ অগাস্ট ২০১৭ ২২:২৫

আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করতে গভীর ষড়যন্ত্রের নীলনকশার অন্যতম প্রকাশ ছিল ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে গ্রেনেড হামলা। রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে জঙ্গি সংগঠনের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা ভয়ঙ্কর সে হামলায় নেতৃত্ব দেয়। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে বহুল আলোচিত 'হাওয়া ভবনে' বসে হামলার পরিকল্পনা হয়েছিল।বীভৎস গ্রেনেড হামলা মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী, আদলতে একাধিক সাক্ষীর সাক্ষ্য এবং আসামিদের জবানবন্দীতে এসব কথা উঠে আসে।সাক্ষীদের জবানবন্দি ও আসামিদের স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে সম্পূরক অভিযোগপত্রে বলা হয়, তৎকালীন চারদলীয় জোট সরকারের উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুর ছোট ভাই হরকাতুল জিহাদের (হুজি) নেতা মাওলানা তাজউদ্দিন ও হুজি নেতা মুফতি আবদুল হান্নানের সহায়তায় ২০০৩ সালে কা

By আরেফিন তানজীব on রবিবার , ২০ অগাস্ট ২০১৭ ২২:২৫

২১ আগস্ট, ২০০৪। বাংলাদেশের ইতিহাসের এক গভীর কলঙ্কজনক দিন। বিএনপি-জামায়াত জোটের রাজনৈতিক প্রতিহিংসার চূড়ান্ত নিদর্শন প্রদর্শিত হয়েছিল এই দিন। মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তিকে দেশ থেকে চিরতরে নির্মূল করে দেয়ার হীন উদ্দেশ্য নিয়ে হায়েনা রুপী ‘হাওয়া ভবন’ গং তার হিংস্রতম রুপ দেখিয়েছিল। গ্রেনেড হামলা চালানো হয়েছিল বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে অনুষ্ঠিত আওয়ামীলীগের সমাবেশে। অথচ আওয়ামী লীগের সেই সমাবেশ ছিল সন্ত্রাস এবং জঙ্গিবাদ বিরোধী শান্তিপূর্ণ সমাবেশ। সময় ৫টা বেজে ২২ মিনিট। তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা তার বক্তব্য শেষ করছেন। ফটোসাংবাদিকদের অনুরোধে কয়েক মুহূর্ত দাঁড়ালেন তিনি। ঠিক সেই সময় অস্থায়ী স্টেজ হিসেবে ব্যবহৃত ট্রাককে লক্ষ্য করে চারদিক থেকে একের পর এক গ্রেন

By আমিনুল হক পলাশ on রবিবার , ২০ অগাস্ট ২০১৭ ২২:১২

বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সমাবেশে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় তৎকালীন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের নির্দেশেই গোয়েন্দা সংস্থাগুলো অংশ হয়েছিল বলে আসামী ও সাক্ষীদের জবানবন্দিতে জানা যায়।গ্রেনেড হামলার অন্যতম পরিকল্পনাকারী ও গ্রেনেড সরবরাহকারী মাওলানা তাজউদ্দিনকে পাকিস্তানে পাঠিয়েছিল প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তরের (ডিজিএফআই) জঙ্গি দমন-সংক্রান্ত ব্যুরো, যা জানতেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াও। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার সম্পূরক অভিযোগপত্রে এই তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে।সম্পূরক অভিযোগপত্রে বলা হয়, বাবরের নির্দেশে ও তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর জ্ঞাতসারে মাওলানা তাজউদ্দিনকে বিদেশে পাঠানো হয়েছে। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সহকারী লে. কমান্ডার (অব.)

By আরেফিন তানজীব on রবিবার , ২০ অগাস্ট ২০১৭ ২২:১১

বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সমাবেশে ২০০৪ সালে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় সব ধরণের সাহায্য ও সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছিলেন তারেক রহমান।নিষিদ্ধ ঘোষিত হরকাতুল জিহাদ (হুজি) নেতা মুফতি আবদুল হান্নান (পরে ব্রিটিশ হাইকমিশনারের উপর গ্রেনেড হামলা মামলায় মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত) আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এসব কথা জানিয়েছে।২০০৮ সালের ১ নভেম্বর ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে মুফতি হান্নান জবানবন্দি দেয়।সন্ত্রাসবিরোধী জনসমাবেশে গ্রেনেড হামলা চালিয়ে তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেতা শেখ হাসিনাকে হত্যার নীলনকশা সাজানো হয়েছিল বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে বহুল আলোচিত 'হাওয়া ভবনে', এমনটাই মুফতি হান্নানের জবানবন্দিতে প্রকাশ পায়। ওই গ্রেনেড হামলায় বিএনপির বর্

By আরেফিন তানজীব on রবিবার , ২০ অগাস্ট ২০১৭ ২২:০৪

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, বিএনপির সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট তারেক রহমানকে একুশে আগস্ট প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা চেষ্টা ঘটনার মাস্টারমাইন্ড। তাকে দেশে ফিরিয়ে এনে ওই মামলায় বিচারের মুখোমুখি করতে কুটনৈতিক প্রচেষ্টায় অগ্রগতি হয়েছে বলেও জানিয়েছেন মন্ত্রী।শুক্রবার রাজধানীতে এক অনুষ্ঠান শেষে লন্ডনে অবস্থানরত তারেক রহমানকে নিয়ে সাংবাদিকদের কাছে এসব কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার টার্গেট নিয়ে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে সন্ত্রাসীদের গ্রেনেড হামলার পরিকল্পনাকারী হিসেবে অভিযুক্ত তারেক রহমানের অনুপস্থিতিতে ওই মামলার বিচারকাজ এখন শেষ পর্যায়ে।তবে ষড়যন্ত্রকারীরা এখনও বসে নেই, তারা এখনও হত্যার ষড়যন্ত্র চালিয়

By এনামূল কবীর রূপম on শুক্রবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৭ ১৩:০৮