১৬ই ডিসেম্বর

বিজয়ের মানে একেক জনের কাছে একেক রকম। কেউ সেটাকে পোশাকে প্রকাশ করেন আবার কেউ প্রকাশ করেন কাজে। সাপ্তাহিকের নির্বাহী সম্পাদক শুভ কিবরিয়া সেই বিষয়টি সামনে এনে ফেসবুকে একটি পোষ্ট দিয়েছেন। সেখানে তিনি লিখেছেন, মেয়ের জন্ম নিবন্ধনের জন্য ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের নির্ধারিত অফিসে গেলাম। নিয়ত করেছিলাম যতই ঘুরতে হোক না কেন এই কাজের জন্য কোনো টাকা -পয়সা ওখানে দেব না। এটা বিনে পয়সার সার্ভিস। প্রথম দিন অদ্ভুত অভিজ্ঞতা হলো। প্রথম যে রুমে গিয়ে ফর্ম পুরণ করলাম, ভদ্রলোক বিরস মুখের মানুষ। আমাকে আর কি করতে হবে জানতে চাইলে জিজ্ঞেস করলেন তাড়াতাড়ি নিতে চাইলে ...টাকা লাগবে। আমার পরিচয় দিয়ে বললাম টাকা তো দেয়া সম্ভব না। তাছাড়া আমার আর্জেন্ট চাহিদাও নেই। ভদ্রলোক দ্রুত অন্য রুম দেখিয়ে সেখানে যেতে বললেন। অ

By চ্যানেল আই অনলাইন on শুক্রবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৬ ২০:০১

অনেক অনেক দুশ্চিন্তার রাত কাটানোর পর সেই রাতে যেন অবশেষে একটু স্বস্তিতে ঘুমিয়েছিল সারাদেশের মানুষ। আকাশ ভরা জোছনা নিয়ে সেই রাতে চাঁদ উঠেছিলো বাংলায়। আগের নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ আর তারও আগের অনেক অনেক বছরের সংগ্রামের ইতিহাস বিজয়ে ইতি টেনেছিলো ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর। সেই রাতের মায়াময়ী চাঁদঘেরা রাতটিকে তাই অ্যাখ্যায়িত করা হয়েছিল কোজাগরী পূর্ণিমার রাত হিসেবে। চাঁদ উঠেছিলো বাঙালির মনে, ঘরে-ঘরে। একদিকে বিজয় উল্লাস, অন্যদিকে প্রিয়জন হারানোর বেদনা। একদিকে দেশ স্বাধীন হওয়ার আনন্দ, অন্যদিকে প্রিয়জনের মরদেহের সন্ধান। একদিকে যতটুকু পাওয়া যায় ততটুকু দিয়েই মিষ্টিমুখ, অন্যদিকে স্বজনের কুলখানি-চেহলামের প্রস্তুতি। এরকমই ছিল ১৬ ডিসেম্বর, একাত্তরের সেই রাত। ওইসময়ের বর্ণনা দিয়ে ‘একাত্

By শর্মিলা সিনড্রেলা on বৃহস্পতিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৬ ২২:৪৬