অভিজিৎ রায়

জঙ্গিদের বড় ভাই বলে পরিচিত চাকরিচ্যুত মেজর জিয়ার নির্দেশেই বিজ্ঞানমনস্ক লেখক অভিজিৎ রায়কে হত্যা করে আনসারউল্লাহ বাংলা টীমের জঙ্গিরা। রাজধানীর বাউনিয়া এলাকা থেকে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের জালে আটকের পর জঙ্গি নেতা শাহরিয়ার ওরফে মোজাম্মেল হুসেইন ওরফে সায়মন আদালতে স্বীকারোক্তিতে এ কথা জানিয়েছে। তদন্তকারী কর্মকর্তরা জানিয়েছেন, আটকের পর জিজ্ঞাসায় হত্যাকাণ্ডে জড়িত বলে স্বীকার করলে জঙ্গি নেতা সায়মনকে অভিজিৎ হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। পরে সে আদালতে স্বীকারোক্তি দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করলে, তাকে ঢাকার সিএমএম আদালতে হাজির করা হয়। সেখানে ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে জবানবন্দি দেয় সায়মন। নিজেকে জঙ্গিরদের সঙ্গে কথোপকথনের ফেসবুক পেজ

By এনামূল কবীর রূপম on রবিবার , ১৯ নভেম্বর ২০১৭ ২০:৫০

মুক্তমনা ব্লগের প্রতিষ্ঠাতা, লেখক ও ব্লগার অভিজিৎ রায় হত্যায় অভিযুক্ত আসামি আবু সিদ্দিক সোহেলকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট। রোববার দিবাগত রাতে রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পুলিশের দাবি, অভিজিৎ রায়কে হত্যায় সরাসরি অংশ নেয় সোহেল। সে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের (আগের নাম আনসারুল্লাহ  বাংলা টিম) সক্রিয় সদস্য। ২০১৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি রাতে অমর একুশে গ্রন্থমেলা থেকে ফেরার পথে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় অভিজিৎ রায়কে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। অভিজিৎয়ের ওপর দুর্বৃত্তদের হামলার সময় তার সঙ্গে ছিলেন স্ত্রী রাফিদা আহমেদ। এ সময় তিনিও গুরুতর আহত হন। পরে ঘটনাস্থলে থাকা সিসিটিভির ফুটেজ থেকে অভিজিৎ রায়ের সন্দেহভাজন

By চ্যানেল আই অনলাইন on সোমবার, ০৬ নভেম্বর ২০১৭ ১২:৪৯

বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক অজয় রায় মনে করেন, অসাম্প্রদায়িক চেতনা নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের মধ্যদিয়ে স্বাধীন হওয়া বাংলাদেশের যাত্রা ছিল প্রগতির পথে। ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবার শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান ছিল সেখানে। কিন্তু ধর্মীয় উগ্রবাদ, মৌলবাদ এবং জঙ্গিবাদের আগ্রাসনে বাংলাদেশের চিরচেনা সে চেহারা আজ অনেকটাই বিবর্ণ। রাষ্ট্রের প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে ধর্মীয়করণের চেষ্টায় সে অগ্রযাত্রা থমকে গিয়ে হঠাৎই যেন উল্টোপথে হাঁটছে বাংলাদেশ। দুই বছর আগে ধর্মীয় উগ্রবাদীদের হাতে নিহত বিজ্ঞান লেখক ও ব্লগার অভিজিৎ রায়ের বাবা চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, 'আদর্শিক এবং চরিত্রগত দিক থেকে বাংলাদেশ উদার, ধর্মনিরপেক্ষ এবং গণতান্ত্রিক একটি রাষ্ট্র। কিন্তু ধর্মীয় উগ্রবাদ এবং জঙ্গিবাদের হানায় প্রগতির পথে অগ্রসর না

By সাখাওয়াত আল আমিন on শনিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ২১:৪৯

আগামীকাল ২৬ ফেব্রুয়ারি মুক্তমনা লেখক ও ব্লগার অভিজিৎ রায়সহ সন্ত্রাসীদের হাতে নিহত গণজাগরণ মঞ্চের সকল কর্মী ও ব্লগারদের স্মরণে দিনব্যাপী কর্মসূচি পালন করবে গণজাগরণ মঞ্চ। গণজাগরণ মঞ্চ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, ২০১৩ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি গণজাগরণ মঞ্চের আন্দোলন শুরুর পর থেকে বিভিন্ন মৌলবাদী ও ধর্মান্ধ গোষ্ঠীর হাতে তাদের ২২ জনেরও অধিক কর্মী নিহত হয়েছেন। জাফর মুন্সী, রাজিব হায়দার থেকে শুরু করে সর্বশেষ নাজিমুদ্দিন সামাদ পর্যন্ত দীর্ঘ হয়েছে এই লাশের মিছিল। এসব হত্যাকাণ্ডের বিচার না হওয়ায় একদিকে যেমন নিহতদের পরিবার ন্যায়বিচার বঞ্চিত হয়েছে, অন্যদিকে খুনিরা হয়েছে বেপরোয়া। তারা নির্বিঘ্নে একের পর এক নির্মম হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে চলেছে। যদি দ্রুত বিচার সম্পন্ন করে হত্যাকারীদের দৃ

By চ্যানেল আই অনলাইন on শনিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১৫:২৯

মুক্তমনা ব্লগের প্রতিষ্ঠাতা ও বিজ্ঞানমনস্ক লেখক অভিজিৎ রায়ের সব হত্যাকারীকে চিহ্নিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। তাদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে বলে জানিয়েছেন ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া। এর আগে ২০১৬ সালের ২১ আগস্ট অভিজিৎ রায়ের সন্দেহভাজন খুনিদের ভিডিও প্রকাশ করে তাদেরকে গ্রেফতারে নগরবাসীর সহায়তা চায় ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ-ডিএমপি। ২০১৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি রাতে অমর একুশে গ্রন্থমেলা থেকে ফেরার পথে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় অভিজিৎ রায়কে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। অভিজিৎয়ের ওপর দুর্বৃত্তদের হামলার সময় তার সঙ্গে ছিলেন স্ত্রী রাফিদা আহমেদ। এ সময় তিনিও গুরুতর আহত হন।

By চ্যানেল আই অনলাইন on মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০১৭ ১২:৩৩

হত্যাকাণ্ডের শিকার হওয়া লেখক অভিজিৎ রায়ের সন্দেহভাজন খুনি ‘শরীফ’ পুলিশের ‘ক্রসফায়ার’-এ নিহত হওয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন অভিজিতের বাবা দেশ বরেণ্য অধ্যাপক অজয় রায়। আইনি প্রক্রিয়ায় খুনিদের বিচার চান তিনি। অধ্যাপক অজয়ের এই মন্তব্যের উপরে তৈরি একটি প্রতিবেদন ফেসবুকে শেয়ার করে স্বামী হত্যাকারীর বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড নিয়ে কড়া সমালোচনা করেছেন নিহত লেখক-ব্লগার অভিজিৎ রায়ের স্ত্রী বন্যা আহমেদ।ফেসবুক স্ট্যাটাসে বন্যা লিখেছেন,’ কতগুলো জিনিস আরও পরিষ্কার হলো; বাংলাদেশের পুলিশকে অবশ্যই ধন্যবাদ দেওয়া উচিত আমাদের মত 'মগা পাবলিককে' এত পরিষ্কার করে ব্যাপারগুলো বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য। বুঝতে পারলাম আবারো সাধারণ মানুষ দেশে কখনো বিচার পাবে না। দেশের সরকার এবং পুলিশ ইচ্ছা করলেই এদের ধরতে পারে,

By চ্যানেল আই অনলাইন on মঙ্গলবার, ২১ জুন ২০১৬ ২৩:০৫

গতবছর বইমেলায় নৃশংসভাবে নিহত বিজ্ঞান লেখক ও ব্লগার অভিজিৎ রায়কে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছে গণজাগরণ মঞ্চ। গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা অভিজিৎ রায়ের হত্যাকাণ্ডের জায়গাটিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।শুক্রবার ঢাকা দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির অভিজিৎ চত্বরে এ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। সেসময় তাদের সাথে ছিলেন নিহত অভিজিৎ রায়ের বাবা ঢাকা বিশ্ববিদ্যায়লের অধ্যাপক অজয় রায়। গতবছর ২৬ ফেব্রুয়ারি বইমেলা থেকে ফেরার সময় টিএসসির কাছে সোহরাওয়ার্দি গেটের কাছে লেখক অভিজিৎ রায় ও তার স্ত্রী রাফিদা আহমেদ বন্যার ওপর হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। এতে অভিজিৎ নিহত হন এবং গুরুতর আহত হন বন্যা।

গতবছর বইমেলায় নৃশংসভাবে নিহত বিজ্ঞান লেখক ও ব্লগার অভিজিৎ রায়কে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছে গণজাগরণ মঞ্চ। গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা অভিজিৎ রায়ের হত্যাকাণ্ডের জায়গাটিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।শুক্রবার ঢাকা দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির অভিজিৎ চত্বরে এ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। সেসময় তাদের সাথে ছিলেন নিহত অভিজিৎ রায়ের বাবা ঢাকা বিশ্ববিদ্যায়লের অধ্যাপক অজয় রায়। গতবছর ২৬ ফেব্রুয়ারি বইমেলা থেকে ফেরার সময় টিএসসির কাছে সোহরাওয়ার্দি গেটের কাছে লেখক অভিজিৎ রায় ও তার স্ত্রী রাফিদা আহমেদ বন্যার ওপর হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। এতে অভিজিৎ নিহত হন এবং গুরুতর আহত হন বন্যা।

গতবছর বইমেলায় নৃশংসভাবে নিহত বিজ্ঞান লেখক ও ব্লগার অভিজিৎ রায়কে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছে গণজাগরণ মঞ্চ। গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা অভিজিৎ রায়ের হত্যাকাণ্ডের জায়গাটিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।শুক্রবার ঢাকা দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির অভিজিৎ চত্বরে এ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। সেসময় তাদের সাথে ছিলেন নিহত অভিজিৎ রায়ের বাবা ঢাকা বিশ্ববিদ্যায়লের অধ্যাপক অজয় রায়। গতবছর ২৬ ফেব্রুয়ারি বইমেলা থেকে ফেরার সময় টিএসসির কাছে সোহরাওয়ার্দি গেটের কাছে লেখক অভিজিৎ রায় ও তার স্ত্রী রাফিদা আহমেদ বন্যার ওপর হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। এতে অভিজিৎ নিহত হন এবং গুরুতর আহত হন বন্যা।

গতবছর বইমেলায় নৃশংসভাবে নিহত বিজ্ঞান লেখক ও ব্লগার অভিজিৎ রায়কে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছে গণজাগরণ মঞ্চ। গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা অভিজিৎ রায়ের হত্যাকাণ্ডের জায়গাটিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।শুক্রবার ঢাকা দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির অভিজিৎ চত্বরে এ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। সেসময় তাদের সাথে ছিলেন নিহত অভিজিৎ রায়ের বাবা ঢাকা বিশ্ববিদ্যায়লের অধ্যাপক অজয় রায়। গতবছর ২৬ ফেব্রুয়ারি বইমেলা থেকে ফেরার সময় টিএসসির কাছে সোহরাওয়ার্দি গেটের কাছে লেখক অভিজিৎ রায় ও তার স্ত্রী রাফিদা আহমেদ বন্যার ওপর হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। এতে অভিজিৎ নিহত হন এবং গুরুতর আহত হন বন্যা।