সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড

সাগর-রুনি হত্যার বিচার না হওয়া পর্যন্ত বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে সোচ্চার থাকবেন বলে নিহত দম্পতির একমাত্র সন্তান মাহির সরওয়ার মেঘকে কথা দিয়েছেন সাংবাদিকেরা। সাগর-রুনি হত্যার ৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে ওই হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবিতে আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে উপস্থিত থাকা মেঘকে এমন প্রতিজ্ঞার কথা জানান তারা। এসময় উপস্থিত সাংবাদিকেরা হাত উচিয়ে একাত্মতা প্রকাশ করেন। শনিবার বেলা ১২ টায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) প্রাঙ্গণে আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশের শুরুতেই সাগর-রুনি স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। প্রতিবাদ সমাবেশে নিহত সাংবাদিক মেহেরুন রুনির ভাই নওশের আলম রোমান বলেন, ' আমরা বিচারের আশা ছেড়ে দিলেও আমরা বিচার চাই। আপনারা সাংবাদিকরা সজাগ থাকলে এই হত্যাকাণ্ড ধামাচাপা পড়বে ন

By এস এম আশিকুজ্জামান on শনিবার, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১৮:৫২

চোখের সামনে বাবা-মাকে নির্মমভাবে খুন হতে দেখার দুঃসহ স্মৃতি নিয়েই বেড়ে উঠছে মেঘ। সে হয়তো জানেও না তাকে নিয়ে তার  মা মেহেরুন রুনি এবং বাবা সাগর সারোয়ারের কী স্বপ্ন ছিল। তবু নিজের মনের মত করে স্বপ্ন একেঁ চলেছে মেঘ। চতুর্থ শ্রেণি পড়ুয়া মেঘের দুচোখ জুড়ে স্বপ্ন এখন বড় ক্রিকেটার হয়ে দেশের জন্য লড়ে যাওয়া। মা বাবা দুজনেই ছিলেন সাংবাদিক। যারা সবসময় অন্যায়-অবিচার ও দুর্নীতিকে জনসমক্ষে তুলে ধরে দেশের সেবায় নিয়োজিত ছিলেন। কে জানে, একমাত্র সন্তানকে নিয়ে হয়তো তাদেরও স্বপ্ন ছিল সে বড় হয়ে দেশের জন্য কাজ করুক, দেশের হয়ে লড়ুক। আপন খেয়ালেই হয়তো বাবা মায়ের এ স্বপ্ন নিজের মনে ধারণ করে ফেলেছে মেঘ। তার দুচোখ জুড়ে স্বপ্ন এখন কেবলই একজন ক্রিকেটার হওয়া। শনিবার সকালে দুই মামা নওশের আলম রোমান এবং নওজেশ আলম

By সাখাওয়াত আল আমিন on শনিবার, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১৪:০৭

নিহত মেহেরুন রুনির ছোট ভাই নওশের আলম রোমান বলেন, সাগর-রুনির হত্যাকাণ্ডের বিচারের আশা ছেড়ে দিয়েছি। যদি কখনো বিচার সম্ভব হয় সেটি হবে অলৌকিকভাবে। কারণ হ্ত্যাকাণ্ডের সঙ্গে প্রভাবশালী কেউ জড়িত রয়েছে, আর না হয় তদন্তকারী সংস্থার ব্যর্থতা রয়েছে। গত পাঁচ বছরে এই মামলার তদন্তকারী সংস্থা আদালতে কোনো প্রতিবেদন দাখিল করেনি, সেকারণে দীর্ঘ পাঁচবছরেও আমরা বিচার পাইনি। খুব সহজে সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ডের বিচার হবে বলে আশা করেন না রোমান । শনিবার সকালে সাগর-রুনির কবর জিয়ারত করতে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এমন মন্তব্য করেন। সকাল ১০টা ২৫ মিনিটে সাগর-রুনির একমাত্র ছেলে মেঘ তার বাবা -মায়ের কবর জিয়ারত করতে যান। মেঘের সঙ্গে ছিলেন তার দুই মামা রোমান ও নওজেশ আলম। উল্লেখ্য, ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর পশ

By সাখাওয়াত আল আমিন on শনিবার, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১১:৪২

গত পাঁচ বছরে সাগর-রুনির পরিবারে তৈরি হয়েছে পাহাড় সমান হতাশা। মেহেরুন রুনির মা নুরুন্নাহার মির্জা পুরোপুরি বাকরুদ্ধ। গণমাধ্যমের সাথে কথা বলতে অনীহা তার। প্রায় একই ধরণের অভিব্যক্তি জানালেও সাগর সরওয়ারের মা সালেহা মুনির এখনও আশা ছাড়েননি। তবে, পাঁচ বছরের অভিজ্ঞতায় রুনির ছোটভাই নওশের আলম রোমান বিরক্ত। ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের ভাড়া বাসায় খুন হন সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনি। নির্মম ও আলোচিত ওই হত্যাকাণ্ডের পর ৪৮ ঘন্টার মধ্যে খুনিদের গ্রেফতারের আশ্বাস থাকলেও তা আর হয়ে ওঠেনি। বছর ঘুরে ১১ ফেব্রুয়ারি আসার আগে ও পরে গণমাধ্যমে কিছু শিরোনাম হয় মামলার তদন্ত কার্যক্রম সর্ম্পকে, এরপরে আবার তা চাপা পড়ে যায়। এখন পর্যন্ত তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্

By আব্দুল্লাহ আল সাফি on শনিবার, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ০০:০৯

নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার হওয়া সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনির একমাত্র ছেলে মাহীর সরওয়ার মেঘ চাপা কান্না নিয়ে বেড়ে উঠছে মামা-নানীর ছায়ায়। বাবা-মাকে নিয়ে তার স্মৃতি অটুঁট থাকলেও তার প্রকাশ একদমই কম, তবে কোনো শিশুকে বাবা-মায়ের সঙ্গে দেখলে কিছুটা বিচলিত হয়ে ওঠে মেঘ। চ্যানেল আই অনলাইনকে এমনটাই জানিয়েছেন নিহত মেহেরুন রুনির ছোটভাই নওশের আলম রোমান। রোমান বলেন, মেঘ খুবই লক্ষী একটা ছেলে। সে তার বাবার মতো চুপচাপ, কিন্তু খুবই বুদ্ধিমান। পরিবারের ভালমন্দ থেকে শুরু করে বাস্তব পরিস্থিতি খুব ভাল বুঝতে পারে। তার বয়সী অনেক বাচ্চা যেমন ঝামেলা তৈরি করে, মেঘ তা মোটেও করে না। কম্পিউটার-মোবাইল আর তার পড়াশোনা নিয়ে অন্য সাধারণ বাচ্চাদের মতো সে বেড়ে উঠছে। 'আমরা চেষ্টা করছি সম্ভব সবকিছু করতে।' রাজধানীর এ

By আব্দুল্লাহ আল সাফি on শুক্রবার, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ২২:৩৮

মেঘের বয়স এখন ১০ বছর। ৫ বছর বয়সে বাবা-মায়ের হত্যাকাণ্ডের বিচারের দাবিতে তাকে রাস্তায় দাঁড়াতে হয়েছিলো সে কথা হয়তো ওর মনেও নেই। সাংবাদিক সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ডের বিচারের দাবিতে সোচ্চার সাংবাদিকদের কণ্ঠগুলোও এখন বজ্রকণ্ঠ হয় কেবল ১১ ফেব্রুয়ারি এলে। বিচারহীনতার হতাশায় ২০১২ সালের বিক্ষোভ ৫ বছরের মাথায় আজ ছাই চাপা আগুন। এতোদিনেও চাঞ্চল্যকর ওই হত্যাকাণ্ডের তদন্তে ধীরগতি, অভিযোগপত্র দিতে টালবাহানায় সরকার-প্রশাসনের আন্তরিকতা নিয়েই প্রশ্ন তুলছেন সাংবাদিক সংগঠনগুলোর নেতারা। তাদের কয়েকজন মনে করেন খুনিরা অত্যন্ত প্রভাবশালী। কারণ বাংলাদেশের আইন-শৃংঙ্খলা বাহিনী চাইলে দোষীরা আইনের আওতায় আসে এই দৃষ্টান্ত নতুন নয়। অথচ অদৃশ্য কোনো কারণে সাগর-রুনি হত্যা রহস্য চাপা দেয়া হচ্ছে। তবে আশা ছাড়

By নাসিমুল শুভ on শুক্রবার, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ২২:১২

মাহির সরওয়ার মেঘ আমাদের সন্তান। মেঘের মা-বাবা মেহেরুন রুনি ও সাগর সরওয়ারকে পাঁচ বছর আগে নিজেদের বাসায় হত্যা করা হয়। রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের ভাড়া বাসায় এই সাংবাদিক দম্পতির ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার করা হয় ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি সকালে। হত্যাকাণ্ডের সময় এই দম্পতির একমাত্র সন্তান মেঘের বয়স ছিল সাড়ে চার বছর। ৫ বছর হয়ে গেলো সাগর-রুনির খুনি সনাক্ত হলো না, বিচার হলো না, আমরা ভুলে গেলাম সাগর-রুনিকে। বিচারের দাবি নিশ্চিত করতে সাংবাদিকরাও সোচ্চার না। এখন শুধু তাদের নিহত হওয়ার দিনটিতে প্রতিবাদ সমাবেশ করে সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠন। সর্বশেষ গত ৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকার মহানগর হাকিম মাজহারুল ইসলাম এই মামলার তদন্তের অগ্রগতি সম্পর্কে তদন্ত কর্মকর্তা- র‌্যাবের এএসপি মহিউদ্দিনকে আগামী ২১ মার্চ প্র

By সম্পাদনা পর্ষদ on শুক্রবার, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ২০:২০

সাগর সরওয়ার, সাগর মামা। আমার একমাত্র আপন মামাকে নিয়ে লিখবার মতো কথা ফুরোবার নয়, কিন্তু সেটাই সবচেয়ে কঠিন কর্ম হয়ে দাঁড়ায় পরিস্থিতির কারণে। মন যে স্থিত হবে না কোনোদিন, এই ভবিতব্য। কিন্তু আমাকে তাও লিখতেই হবে। আমার দেখা সাগর মামা ও তার বেড়ে ওঠার চিত্র যেটা ধারণা করি অনেকেই আবছা আবছা জানেন, কিন্তু পুরো চিত্রটা জানেন না সেটাই পারিবারিক স্মৃতি ও শ্রুতির সূত্রে সবিস্তারে বলার চেষ্টা করবো যাতে কীভাবে একজন স্বাপ্নিক তরুণ ধীরে ধীরে একজন বিশিষ্ট ও প্রতিষ্ঠিত সাংবাদিক সাগর সরওয়ার হয়ে ওঠেন অসংখ্য মানবিক গুণাবলি নিয়ে, সেটা পাঠকের সামনে তুলে ধরা যায়। সাগর মামার জন্ম হয়েছিল উত্তাল পদ্মাপাড়ে, নানাবাড়িতে। রাজবাড়ির গোয়ালন্দ উপজেলার এক নদীঘেরা গ্রাম। তখন ঘোর বর্ষা। চারপাশ পানিতে থইথই। যেন

By মুহিত হাসান on শুক্রবার, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১৯:৪০

গত ২১ বছরে রাজধানীসহ সারাদেশে সাংবাদিক হত্যার ঘটনা ঘটেছে ২৮টি। বিভিন্নভাবে ২৮ জন সাংবাদিক সহিংসতার শিকার হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত একটি হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু বিচার হয়নি। দুর্বল তদন্ত ও শক্তিশালী মহলের চাপের কারণে খালাস পেয়ে যাচ্ছে আসামীরা। ২০০২ সালে খুলনা থেকে প্রকাশিত দৈনিক পূর্বাঞ্চলের সিনিয়র রিপোর্টার হারুন উর রশিদ হত্যা এবং ২০০৪ সালে খুলনা প্রেসক্লাব সভাপতি দৈনিক জন্মভূমির সম্পাদক হুমায়ুন কবির বালু হত্যা মামলার সব আসামি খালাস পেয়েছে। অন্যান্য মামলাগুলো ঝুলে আছে। দুর্বল তদন্তের কারণেই আসামিরা খালাস পেয়ে যাচ্ছে বলে মনে করছেন সাংবাদিক নেতারা। এ বিষয়ে জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, এ পর্যন্ত যত সাংবাদিক হত্যা

By আফরিন আপ্পি on শুক্রবার, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১৫:২৩

পাঁচ বছর হয়ে গেলো! তবু আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী (র‌্যাব) আদালতে দাখিল করতে পারলো না সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যা ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন! আলোচিত এই হত্যাকাণ্ডের একটি পুর্নাঙ্গ তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করতে না পারাকে দায়িত্বপ্রাপ্ত তদন্ত কর্মকর্তার ‘চরম ব্যর্থতা’ বলে উল্লেখ করেছেন, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী খুরসিদ আলম খান। সর্বশেষ গত ৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকার মহানগর হাকিম মাজহারুল ইসলাম এই মামলার তদন্তের অগ্রগতি সম্পর্কে তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাবের এএসপি মহিউদ্দিনকে আগামী ২১ মার্চ প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন। এর আগে গত পাঁচ বছরে ৪৬ বার সময় নিয়েও আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেনি র‌্যাব। তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলে দীর্ঘ সময় যাওয়া প্রসঙ্গে আইনজীবী খুরসিদ অালম খান চ্যানেল আই

By এস এম আশিকুজ্জামান on শুক্রবার, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১১:৪০