স্মরণের জানালায় মাহবুবুল হক শাকিল

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী কবি মাহবুবুল হক শাকিলের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে মিলাদ ও দোয়ার আয়োজন করা হয়েছে। স্মৃতিচারণ পর্বে বক্তারা মাহবুবুল হক শাকিলকে একজন মানবতাবাদী উদার রাজনীতিবিদ হিসেবে উল্লেখ করেন। মিলাদ শেষে অনুষ্ঠিত বিশেষ মোনাজাতে মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয়। শাকিলের পরম সুহৃদদের সংগঠন ‘মাহবুবুল হক শাকিল সংসদ’ এর পক্ষ থেকে আয়োজিত মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে মাহবুবুল হক শাকিল-এর সকল বন্ধু, সতীর্থ, সহযোদ্ধা, সহকর্মী, অগ্রজ-অনুজ, শুভাকাঙ্ক্ষীসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখযোগ্যদের মধ্যে ঢাবি উপাচার্য, নোয়াখালী বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য, কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী, প্রতিমন্ত্রী জুনা

By চ্যানেল আই অনলাইন on শুক্রবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৭ ১৮:৫০

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারী ও কবি মাহবুবুল হক শাকিলের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তার নিজ জেলা ময়মনসিংহে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার বাদ আসর বাঘমারায় প্রয়াত শাকিলের বাসভবনে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া মাহফিলে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ ছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও শাকিলের বাবা অ্যাড. জহিরুল হক খোকা, সাধারন সম্পাদক অ্যাড. মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান, পৌর মেয়র ইকরামুল হক টিটু, এফবিসিসিআই’র সাবেক পরিচালক আমিনুল হক শামীম, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি লিয়াকত শিকদার, প্রধানমন্ত্রীর উপ প্রেস সচিব আশরাফুল আলম খোকন, সহকারী প্রেস সচিব আশরাফ সিদ্দিকী বিটু, সিআরআই’র কর্মকর্তা নুরুল আলম পাঠান মিলন, মিডিয়া ব্যাক্তিত্ব

By চ্যানেল আই অনলাইন on বুধবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৭ ১৯:২৭

মরে যাওয়া মানুষ তুমি আর কতদূর যাবে? খাটিয়ার গতি কি ছুঁতে পারে জীবনের গান? খুব বেশি বিষাদ ছিল তোমার নির্ঘুম চোখে? পুড়ে যাওয়া সমস্ত শ্লোক মনে করিয়েছিল ভুল কবিতার খাতা? ভীষণ বাঙ্গময় তুমি আজ নিথর ক্রীতদাস, নিয়তির, যাও অন্ধকারে, মাটিতে, পড়ো ফেলে আসা জ্যোৎস্নার ইতিহাস। (অগস্ত্য যাত্রা, মন খারাপের গাড়ি, পৃ: ১৯) শাকিল ভাইয়ের ২য় কাব্যগ্রন্থ ‘মন খারাপের গাড়ি’ বেরিয়েছিলো ২০১৬ সালের অমর একুশে গ্রন্থমেলায়। আর বইটি আমাকে দিয়েছিলেন মার্চের ৮ তারিখ। সন্ধ্যা বেলায়। ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে। তখন শাকিল ভাইয়ের কানে ছোটখাট একটা অপারেশন হয়েছিলো। বিষয়টা অবশ্য আমার জানা ছিলো না। শাকিল ভাইয়ের ফোন পেয়ে মূলত আড্ডা দিতেই গিয়েছিলাম। ফোন ধরে যখন বললাম ‘কোথায় আসবো’? শাকিল ভাই বললেন ‘অমুক হাসপাতালের

By মুজিব ইরম on বুধবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৭ ১২:৫৬

একুশে বইমেলা বাঙালির অন্যতম উৎসবের নাম। লাখো পাঠক মুখিয়ে থাকেন প্রিয় লেখকের নতুন বই, অটোগ্রাফ আর তার সরাসরি সাক্ষাৎ লাভের আশায়। ফেব্রুয়ারির এই মেলায় স্টলে ঘুরে ঘুরে নতুন বইয়ের গন্ধ নেয়া, সবশেষে বই কিনে বাড়ি যাওয়ার আনন্দটাই আলাদা। এতো গেলো পাঠকের অনুভূতির কথা; যারা এই আয়োজনকে ঘিরে পাঠকদের জন্য বসিয়ে যান অক্ষরের পর অক্ষর, পাঠককে নিজের শিল্পসত্তার সেরাটা দিতে যারা পরিশ্রম করে যান দিনের পর দিন এবং রাতের পর রাত, তাদের অনভূতিটা কেমন? তাদের অনভূতি জানতে চলুন আমরা ঘুরে আসি ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের কিছু ফেসবুক স্ট্যাটাসে। ওই বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারির একটি স্ট্যাটাস ছিল এমন: ‘আজ বইমেলার শেষ দিন। ভাঙনের সুর বাজবে দিনমান। আবার অপেক্ষা, আগামী ফেব্রুয়ারির। সেই ফেব্রুয়ারিতে সবাই থাকবো তো? আমা

By আহসান কামরুল on বুধবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৭ ১২:২৩

প্রথমে খবরটি পাই ফেসবুকে সাংবাদিক অঞ্জন রায়ের পোস্ট, মাহবুবুল হক শাকিল, তার পরে অনেকগুলো ডট। প্রথমে ভাবছিলাম পোস্টের নীচে মজা করে কিছু লিখব কারণ মাহবুবুল হক শকিল আর অঞ্জন রায় দুজনের সাথে-ই আমার সম্পর্কটা একটু ভিন্ন ধরনের। কিন্তু একটু পরেই তার আরেক ছায়াসঙ্গী বন্ধু আনিসুর রহমান লিটু আর বেগ শাহীনের ফোনে নিশ্চিত হই চারদিক আঁধার করে আসা সেই অবিশ্বাস্য খবরটি। শাকিল ভাই নেই। শাকিল ভাই, মাহবুবুল হক শাকিল। আমাদের হলের বড় ভাই, বয়সের সীমা ছাড়িয়ে যিনি হয়ে উঠেছিলেন আমাদের বন্ধু, স্বজন। তার জীবনবোধ, ব্যবহার, লাইফ স্টাইল ছিল একটু ব্যতিক্রম। শাকিল ভাই-এর জীবনের অনেকগুলো অধ্যায় ছিল, তিনি ছাত্ররাজনীতি করতেন। ছাত্রনেতা ছিলেন। একটা আদর্শ ধারণ করতেন মনে প্রাণে। যেখানে কোন খাদ ছিল না। রাজনীতি করতেন বুঝ

By শরিফুজ্জামান শরিফ on বুধবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৭ ১২:১০

প্রজ্ঞা, মেধা, মনন, দায়িত্বশীলতা, সৃজনশীলতা এবং সততায় সৃষ্টিশীল মানুষগণ তাদের সবটুকু আলোকচ্ছটা পৃথিবীতে ছড়িয়ে দেওয়ার আগেই হারিয়ে যান পৃথিবীর মায়া ছেড়ে। কিন্তু এ স্বল্প সময়ের তাদের জ্ঞানের আর কর্মের কারণে আশেপাশের মানুষ পেয়ে থাকে আশার আলো, পায় ভবিষ্যতের আলোকবর্তিকা, অন্যেরা হয়ে উঠেন আলোকিত।এ রকমই একজন প্রতিভাবান মানুষ ছিলেন মাহবুবুল হক শাকিল। তার জীবনাচরণে আশাহীন যুবক পেতে পারে সৃষ্টিশীল জীবনের হাতছানি। ক্ষমতার সর্বোচ্চ শিখরে থেকেও লালসাহীন জীবনযাপনের জন্য তিনি ছিলেন অনন্য। দলমত নির্বিশেষে সকল শ্রেণির পেশাজীবীদের নিকট তিনি আলাদা মর্যাদার আসন তৈরি করতে পেরেছিলেন নিজস্ব ধারাতে। প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী হিসেবে তিনি যে ভূমিকা কিংবা বিশেষ নজির তৈরি করতে পেরেছিলেন, ভবিষ্যতে

By মো. সাখাওয়াত হোসেন on বুধবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৭ ১০:১৮

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ও কবি মাহবুবুল হক শাকিলের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০১৬ সালের এই দিনে তিনি আকস্মিকভাবে মৃত্যুবরণ করেন। ১৯৬৮ সালের ২০ ডিসেম্বর টাঙ্গাইলে নানার বাড়িতে শাকিলের জন্ম। ময়মনসিংহ জিলা স্কুলের মেধাবী ছাত্র মাহবুবুল হক শাকিল ১৯৮৪ সালে এসএসসি পাশ করেন। আনন্দ মোহন কলেজে ভর্তি হবার পর যোগ দেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগে। ১৯৮৬ সালে এইচএসসি পাস করার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৯০ সালে সমাজবিজ্ঞানে স্নাতক এবং ১৯৯১ সালে স্নাতকোত্তর শেষ করেন। স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন এবং নব্বইয়ের গণঅভ্যুত্থানের সক্রিয় অংশগ্রহণকারী শাকিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্যার এ এফ রহমান হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক, কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সদস্য, সাংগঠনিক সম্পাদক এবং সহ-সভাপতির দায়িত

By চ্যানেল আই অনলাইন on বুধবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৭ ০৮:৫৯

শাকিল ভাইকে নিয়ে কিছু লিখতে গেলে এখন কোনো শব্দই খুঁজে পাই না, কখনোবা মনে হয় শাকিল ভাইকে নিয়ে লেখার মতো কোনো শব্দই আমার অভিধানে নেই। মানুষ হিসেবেও শাকিল ভাই তেমনই, মাঝেমধ্যে মনে হয় মানুষটিকে আমি খুব বেশি চিনতে পেরেছিলাম, আবার মনে হয় আমি তাকে আদৌ বুঝতে পারিনি। শাকিল ভাই আসলে কখনো ছিলেন বহুরূপী, কখনোবা বর্ণচোরা। তবে সবকিছু ছাপিয়ে আমি যে শাকিল ভাইকে আবিষ্কার করেছিলাম তা হচ্ছে কোমল মনের শিশুসুলভ এক শাকিল ভাইকে। শাকিল ভাইয়ের সাথে আমার ব্যবধান এক প্রজন্মের, যেকোনো সম্পর্কের ক্ষেত্রে বয়স প্রায়ই অন্যতম বাঁধা হয়ে দাঁড়ায় অথচ শাকিল ভাইয়ের সাথে কাটানো সময়গুলোতে আমার কখনো মনে হয়নি আমাদের মাঝে বয়সের একটি পার্থক্য আছে, মনে হতো আমি আমার প্রিয় বন্ধুর সাথেই আছি, কখনো মনে হতো অগ্রজ সহোদর তার অনুজ

By মোফাজ্জল হোসেন সুমন on মঙ্গলবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৭ ১৪:৫০

ছাত্ররাজনীতির জনপ্রিয় মুখ মাহবুবুল হক শাকিলের বাড়ি ময়মনসিংহ। শহরের বাঘমারা এলাকায় তার বেড়ে ওঠা। জন্ম ১৯৬৮ সালের ২০ ডিসেম্বর, টাঙ্গাইলে নানার বাড়িতে । ছোটবেলা থেকেই রাজনীতির সাথে পরিচয়। শৈশবেই আইনজীবী বাবা মোঃ জহিরুল হককে সক্রিয় রাজনীতিতে দেখেছেন। সৈয়দ নজরুল ইসলামের প্রিয় শিষ্যদের একজন জহিরুল হক এখন ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। শাকিলের একমাত্র সহোদর নাইমুল হক বাবু পেশায় সাংবাদিক। শাকিলের মা স্কুল শিক্ষক নুরুন নাহার খান সন্তানের মননশীলতা গড়ে তোলার ব্যাপারে ছিলেন যত্নশীল। তার প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ নজরদারিতে বেড়ে ওঠা শাকিলের ব্যক্তিত্বে তাই এসময়ের রাজনীতিকদের মধ্যে বিরলতম গুণ শিল্পরসিকতা যুক্ত হয়েছিলো। যা তাঁকে কবি, সাহিত্যিক ও শিল্পী মহলের ‘শেষ ভরসায়’ পরিণত করেছিলো।

By চ্যানেল আই অনলাইন on মঙ্গলবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৭ ০৯:৫৫

কবিতা পড়তে পড়তে, লেখার সকুণ্ঠ চেষ্টা করতে করতে একজন জনপ্রিয় ছাত্রনেতা ও রাজনীতি-সংলগ্ন তরুণ হয়ে উঠলেন কবি। তিনি মাহবুবুল হক শাকিল। এভাবে কবি হয়ে ওঠা পৃথিবীতে বিরল ঘটনা নয়। কিন্তু বাংলাদেশে তা আগে দেখা যায়নি। শাকিল তাঁর পুরো সত্তাব্যাপী আমাদের জন্য বিস্ময় ধরে রেখেছিলেন। তাঁর স্বল্পকালীন রাজনৈতিক জীবন, তার চেয়েও হ্রস্ব সময়ের জন্য কবিতাযাপন, এবং চল্লিশ পেরুতে না পেরুতে আমাদের মতো গুণমুগ্ধদের শোকস্তব্ধ করে দিয়ে তাঁর আকস্মিক চলে যাওয়া--- এসবের পুরোটাই আমাদের জন্য বিপুল এক বিস্ময়। আমার অভিজ্ঞতা থেকে বলি, মাহবুবুল হক শাকিলের মতো এমন বহুমুখী প্রতিভার তরুণ আমি সাম্প্রতিককালে দেখিনি। ধারালো ছিলো তাঁর পর্যবেক্ষণ শক্তি, ছিলেন আপাদমস্তক অমায়িক, সংবেদনশীল, মিশুক ও বন্ধুবৎসল---সর্বোপরি

By শিহাব সরকার on সোমবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৭ ১৮:৪১