বেগম রোকেয়ার সাংগঠনিক সংগ্রামের একশ বছর

নারী জাগরণের অগ্রদূত বেগম রোকেয়া আন্দোলন করেছেন নারীর শিক্ষা অর্জনে, ধর্মীয় কুসংস্কারের বিরুদ্ধে এবং নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠায়। সমাজ বিশ্লেষক ও নারী অধিকারকর্মীরা বলছেন, দেড়শ বছর পরে এসে বেগম রোকেয়া এখনো প্রাসঙ্গিক কারণ তিনি যে স্বপ্ন দেখেছিলেন, সেই স্বপ্ন পূরণ হয়নি। তিনি নারী-পুরুষের সমতার কথা বলেছেন, কিন্তু সেই সমতা প্রতিষ্ঠিত হয়নি। বেগম রোকেয়ার সুলতানার স্বপ্ন আরো অনেক দূরের ব্যাপার, সেই জায়গাগুলো নির্মাণ হয়নি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন: নারী অধিকার নিয়ে বেগম রোকেয়া যেসব কথা বলেছেন এখনও তার গুরুত্ব আছে। এখনো আমরা নারীর শিক্ষা নিয়ে কথা বলছি। ধর্মীয় কুসংস্কারের বিষয়ে কথা বলছি। যে বিষয়গুলো নারীর

By ফাহমিদা আখতার on শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৬ ১৮:১৪

বেগম রোকেয়া তার সময়ে নারী জাগরণের লক্ষ্যে সময়ের চেয়ে অনেক এগিয়ে থেকে সাহসী লেখা লিখেছেন। লেখার মাধ্যমে এখনো তিনি সমাজকে আলোড়িত করে যাচ্ছেন। বেগম রোকেয়ার মতো সেরকম চিন্তার গভীরতাসহ লেখক আমরা পরে আর পেয়েছি কি? ১৯১৬ সালে বেগম রোকেয়া প্রতিষ্ঠিত 'আঞ্জুমানে খাওয়াতিনে ইসলাম' অর্থাৎ তার সাংগঠনিক সংগ্রামের শতবর্ষ পূর্তিতে তার জন্মবার্ষিকীতে এ প্রশ্নের উত্তরে মিশ্র বক্তব্য পাওয়া গেছে লেখক, সাংবাদিক ও শিক্ষকদের কাছ থেকে। শিক্ষাবিদ আবুল কাশেম ফজলুল হক বলেছেন, ‘বেগম রোকেয়ার লেখার উদ্দেশ্য ছিলো মানুষের মন পরিবর্তন করা এবং নারীর মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করা। তাছাড়াও সমাজ সংস্কার এবং উন্নত জীবন সম্পর্কে তার চেতনা ছিল। এই চেতনা কায়েমী স্বার্থবাদীদের আঘাত করেছে সে কারণে তারা প্রতিক্রিয়া দেখ

By ফাহমিদা আখতার on শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৬ ১৮:১৫

নারী জাগরণ ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে বেগম রোকেয়া পদক পেয়েছেন সমাজকর্মী অ্যারোমা দত্ত ও শিক্ষিকা বেগম নূরজাহান। শুক্রবার ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদকসহ  দুই লাখ করে টাকা এবং ১৮ ক্যারেট মানের ২৫ গ্রাম সোনার পদক তুলে দেন। জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক সদস্য অ্যারোমা দত্ত ১৯৮০ সাল থেকে প্রত্যন্ত অঞ্চলে নারী জাগরণ ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে কাজ করেন। বর্তমানে বেসরকারি সংস্থা প্রিপ ট্রাস্টের নির্বাহী পরিচালক পদে আছেন তিনি। অন্যদিকে স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে স্বাধীন বাংলার পতাকা সেলাই করেন পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার নূর জাহান। কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালনকারী এই নারী শিক্ষকতা করতেন। নারী অধি

By চ্যানেল আই অনলাইন on শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৬ ১১:৪৩

বেগম রোকেয়ার পর তার মতো আর কেউ কি নেই? নাকি সবক্ষেত্রে নারীর যে এগিয়ে চলা সেখানে সকল নারীই একেকজন বেগম রোকেয়া? ১৯১৬ সালে মুসলিম নারীদের জাগরণের জন্য বেগম রোকেয়ার ‘আঞ্জুমানে খাওয়াতিনে ইসলাম’ নামে সংগঠন প্রতিষ্ঠার একশ বছর অর্থাৎ তার সাংগঠনিক আন্দোলনের শতবর্ষ পূর্তিতে নারী আন্দোলনকারী, গবেষক এবং বিশ্লেষকরা এ বিষয়ে দু’রকম মত দিয়েছেন। তাদের কেউ বলেছেন, নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠায় বেগম রোকেয়া ব্যক্তিগতভাবে, সাংগঠনিকভাবে এবং প্রাতিষ্ঠানিকভাবে সমাজে বৈপ্লবিক ভূমিকা রাখতে পেরেছিলেন। ওই অবস্থানটা হয়তো এখন আর নেই; আবার পরিস্থিতি যে আমূল পরিবর্তন হয়ে গেছে সেটাও না। যে কারণে দু’দিক থেকেই বিষয়টা দেখলেও এক ধরণের অগ্রগতির চিত্র পাওয়া যায়। তবে তারা এও বলেন, পুরুষতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গির পর

By ফাহমিদা আখতার on বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৬ ১৭:৫৩

বেগম রোকেয়ার সাংগঠনিক আন্দোলনের শতবর্ষপূর্তিতে নারী আন্দোলনের সংগঠক এবং গবেষকরা বলেছেন, একশ বছরে অনেক সূচকে বাংলাদেশের নারী এগিয়ে গেলেও গুণগত উত্তরণ এখনো অনেক দেরি। এজন্য নারী সংগঠনের প্রয়োজনীয়তা ফুরিয়ে যায়নি, বরং আরো বেড়েছে। কিন্তু বর্তমান বাস্তবতায় নারী সংগঠন বিমুখ উল্লেখ করে তারা বলেছেন, কিছু ক্ষেত্রে নারী সংগঠন ও মুক্তির আন্দোলন শুধুই বিদেশী তহবিল নির্ভর যা উদ্বেগজনক। অনলাইনের বর্তমান দুনিয়ায় নারী এক ধরনের যোগাযোগ নেটওয়ার্কের মধ্যে থাকলেও অনেকক্ষেত্রে তা শুধুই ভার্চুয়াল উল্লেখ করে তারা এও বলেছেন, চেতনার যোগাযোগকে প্রয়োগের জায়গায় নিয়ে যেতে না পারলে তা খুব বেশি দূর এগিয়ে যেতে পারবে না। এ ভূ-খণ্ডের নারী আন্দোলনের অগ্রদূত বেগম রোকেয়া ১৯১৬ সালে মুসলিম বাঙালি নারীদের সংগঠিত করা

By ফাহমিদা আখতার on বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৬ ১৮:৫২