মতামত

রোহিঙ্গারা পুরাই ধর্মভীরু ও সংস্কারপ্রবণ। তাদের মেয়েরা ঘরের বাইরে বের হয় না। ঘরের কাজ আর বাচ্চা লালনপালন করে জীবন-ধারণ করা তাদের অভ্যাস। মেয়েদের অনেকে ৫ম বা ৬ষ্ঠ শ্রেণি পাশ। কিন্তু তারা সেটা স্বীকার করে না। অনেক এনজিও তাদের কাছে চাকরির প্রস্তাব (তাদেরই শিশুদের শিক্ষার ব্যবস্থা করা) নিয়ে গেলেও তারা প্রত্যাখ্যান করছে।তারা কেন লেখা পড়া করেনি-এ প্রশ্ন করলে তারা জানায়, মিয়ানমারে মাধ্যমিক পর্যায়ে স্কুলে তাদের ফেল করিয়ে দেয়া হতো। ফলে তারা এইট-নাইনের বেশি পড়ালেখা করেনি। আর এই পড়ালেখায় তাদের কোনো চাকরি জুটতো না। কোনো লাভ না পেয়ে তারা পড়ালেখায় আগ্রহী হয়নি।এক প্রবীণ ব্যক্তিকে জিজ্ঞেস করেছিলাম, আপনারা তো রাখাইনে মেয়েদের ঘরে বাইরে যেতে দিতেন না। এখানে যে ত্রাণ আনতে পাঠাচ্ছেন। ভদ্রলোক

By চিররঞ্জন সরকার on শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০১৭ ২২:০৫

প্রত্যেক বছরই দেশের বিভিন্ন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে নানা কৌশল অবলম্বনে সক্রিয় হয়ে উঠে বিভিন্ন জালিয়াতি চক্র। ঘটে থাকে নানান নেতিবাচক ও বিচ্ছিন্ন ঘটনা। ফলে ভর্তি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে সাংবাদিকদের পালন করতে হয় বাড়তি দায়িত্ব। ছুটে চলতে হয় বিভিন্ন পরীক্ষা কেন্দ্র ও ঘটনাস্থলে। চোখ রাখতে হয় জালিয়াতি চক্রের পিছনে।প্রতিবছরই ভর্তি পরীক্ষা চলাকালীন সক্রিয় ও তৎপর ভূমিকা পালন করে থাকেন বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের সাংবাদিকরা। গত বছরও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা চলাকালীন ও পরবর্তী সময়ে সাংবাদিকদের সহযোগীতায় জালিয়াত চক্রের ১০ জনেরও বেশি সদস্যকে আটক করা হয়। পরবর্তীতে তাদের অপ

By মাহমুদুল হক সোহাগ on শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০১৭ ১৯:৫৭

২৩ আগস্ট। রাত সাড়ে ৮টা। ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসাপাতাল। কার্ডিওলজি মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডাঃ গোবিন্দ্র চন্দ্র রায়ের চিকিৎসাধীন ১ নং ওয়ার্ডের ৭৪ নাম্বার বেডে (মেডিসিন ইউনিট-৫) বসে আছেন বাবা। কর্মসূত্রে আমি ঢাকায় থাকি। গিন্নি রান্নাবান্না করে দিয়েছেন বাবা-মার জন্য। হটপট খুলে মা খাবার দিতে ব্যস্ত। প্রথমে একটা খবরের কাগজের ওপর খাবারের থালা রাখলেন। তারপর এক এক করে ভাত, ভাজি, ইলিশ মাছের ঝোল দিলেন। চকচক করে উঠল বাবার চোখ। মস্তিস্কে রক্তক্ষরণে অনেক কিছু ভুলে গেলেও ইলিশ মাছের কথা ভুলতে পারেননি তিনি, স্মৃতি থেকে মুছে ফেলতে পারেননি আমাকেও।বেডের পাশে আমি দাঁড়ানো। আমার দিকে তাকিয়ে বাবা জিজ্ঞাসা করলেন, তুই খাবি না? আমি বললাম, বাসায় গিয়ে খাব। তোর বাসা কোথায়? আমি বললা

By তুষার কান্তি সরকার on বৃহস্পতিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৭ ১৫:৩৩

বুধবারের সন্ধ্যাবেলা। অক্টোবরের ১৮ তারিখ, সাল ২০১৭। মহাখালী থেকে উত্তরের রাজপথ, ঝিমধরে আটকে আছে। কেউ সুনির্দিষ্ট করে কিছু বলতে পারছে না অচল হয়ে যাওয়া পথ কখন সচল হবে! দিন শেষে যারা ঘরে ফিরবে এই শহরের, কিংবা যাবে আরো দূরে অন্যকোনো শহরে বা গ্রামে তারা অসহায়! উপায়-বুদ্ধি না পেয়ে অনেকে হাঁটতে শুরু করে দক্ষিণ থেকে উত্তরে। সেই হাঁটার দলে, হাঁটার মিছিলে নিজেকেও সামিল করে নিতে হয় অগত্যা।কেনো এমন? বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া তিন মাস পর যুক্তরাজ্য থেকে দেশে ফিরবেন। বিমানবন্দর থেকে শুরু করে রাজপথে তাকে নেতাকর্মীরা অভ্যর্থনা জানাবেন এটাই স্বাভাবিক। এখনো এই হা-রাজনীতির দেশে; রাজনীতিবিদরা ভরসার স্থল সাধারণ মানুষের কাছে। আর চরিত্রটি যদি হন খালেদা জিয়া তাহলে বলার অপেক্ষাই রাখে না তাকে দ

By ফজলুর রহমান on বৃহস্পতিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৭ ১৪:০৭

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহাকে নিয়ে গেল ক’মাস ধরে সরগরম ছিলো পুরো দেশ। তাকে নিয়ে শুরু হওয়া এসব আলোচনা-সমালোচনা শেষ, তা নয়। এখনও চলছে, ঢিমেতালে। তবে প্রধান বিচারপতি ইস্যুর স্থলে উঠে এসেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা। ‘জিয়াউর রহমান বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রর্বতক’ মন্তব্য করে এখন তিনি বিরাগভাজন। ইতোমধ্যে সোশ্যাল মিডিয়াসহ বিভিন্ন মাধ্যমে তাকে নিয়ে নানা আলোচনা শুরু হয়েছে। যদিও ক্ষমতাসীন দলের দায়িত্বশীল কোনো নেতা এ নিয়ে এখনও পর্যন্ত তির্যক মন্তব্য করেনি। তারপরও রাজনীতির মাঠে পরবর্তী ‘ইস্যু’ নূরুল হুদা হতে যাচ্ছেন, তা অনুমেয়। ইতোমধ্যে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী হুদা কমিশনের সংলাপ বয়কট করে তার পদত্যাগও দাবি করেছেন।হুদা কমিশন গঠন প্রাক্কালে তার বিরুদ্ধে নানা

By সীমান্ত প্রধান on বৃহস্পতিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৭ ১২:০৬

সম্প্রতি রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে নিউজ টোয়েন্টিফোরের কয়েকটি রিপোর্ট বেশ দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছে। টিআরপি জরিপের কথা বলতে পারবো না, অন্তত সামাজিক মাধ্যমের চিত্র তাই বলে। চ্যানেল হিসেবে একেবারেই নবীন নিউজ টোয়েন্টিফোর। এর ফেসবুক পেজের বয়সও এক বছরের বেশি নয়। সেখানেই কয়েকটি রিপোর্ট দশ থেকে বিশ লাখবার পর্যন্ত দেখেছেন অনলাইন ব্যাবহারকারীরা। ভাইরাল হয়েছে ৮ থেকে ১০টি রিপোর্ট। মিডিয়াপাড়াতেও আলোচনার জন্ম দিয়েছে কয়েকটি।এর মধ্যে বাবা-মা হারানো এক রোহিঙ্গা শিশুকে নিয়ে করা একটি রিপোর্ট নিয়ে বেশি আলোচনা হয়েছিল, হচ্ছে। অনলাইনেই অন্তত এক কোটি মানুষ দেখেছেন প্রতিবেদনটি। এছাড়া ‘খোলা আকাশের নিচে রোহিঙ্গা শিশুর জন্ম’, ‘কাঁটাতারে বিভীষিকা’, ‘অদৃশ্য অপরাধ: ধর্ষণের শিকার রোহিঙ্গা নারীরা’, ‘শরণার্

By রামিম হাসান on বুধবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৭ ২৩:৩৫

বিশ্ব ক্যাথলিক খ্রীষ্ট মণ্ডলীর প্রধান ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস ৩ দিনের আধ্যাত্মিক সফরে ‘সম্প্রীতি ও শান্তির’ বার্তা নিয়ে বাংলাদেশ সফরে আসছেন ৩০শে নভেম্বর। পোপ ফ্রান্সিসের আগে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের প্রাক্কালে উপকূলে ভয়াবহ জলোচ্ছ্বাসের পরপরই ২৬ নভেম্বর, ১৯৭০ খ্রীষ্টাব্দে ঢাকার তেজগাঁও বিমান বন্দরে সংক্ষিপ্ত যাত্রা বিরতি করেন পোপ ৬ষ্ঠ পৌল। দেশের সংগ্রাম, দুর্যোগ এবং চরম ক্রান্তিকালে পোপ ৬ষ্ঠ পৌলের সফর ছিলো আমাদের প্রিয় স্বদেশে কোন পোপের প্রথম সফর।এরপর ১৯৮৬ খ্রীষ্টাব্দের ১৯ শে নভেম্বর বর্তমানে সাধু পোপ ২য় জন পলের স্বাধীন বাংলাদেশে প্রথম পূর্ণাঙ্গ সফর। পোপ ফ্রান্সিস বাংলাদেশের সকল ধর্ম, বর্ণ, জাতি, নৃ-গোষ্ঠীর অন্তরে সম্প্রীতি ও শান্তি প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ সময়ে বা

By প্রণয় পলিকার্প রোজারিও on বুধবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৭ ২২:১২

প্রধান বিচারপতিকেন্দ্রিক উদ্ভূত বাস্তবতায় মনের কোনে ইদানীং বহুরূপী প্রশ্নেরা ডানা মেলছে। তবে স্মৃতির পটে ভেসে থাকা প্রধান বিচারপতির একটি তাৎপর্যপূর্ণ বক্তব্য সময়ের বাস্তবতায় খুব বেশিই মনে পড়ছে।সময়টা ২০১৬ সালের ২ এপ্রিল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরি সিনেট ভবনে আইন কমিশনের সদস্য অধ্যাপক শাহ আলমের লেখা দুটি বইয়েরে মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠান। প্রধান অতিথির বক্তব্যে সে অনুষ্ঠানে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বলেন, ‘আমাদের এই দেশের যেখানে রন্ধ্রে রন্ধ্রে অনিয়ম সেখানে বিচার বিভাগ আলাদা কোনো দ্বীপের মতো নয় যে, সব জায়গায় অনিয়ম থাকবে আর বিচার বিভাগের সব ফেরেশতা হয়ে যাবে-- এটা হতে পারে না।’অদূর অতীতে বলা প্রধান বিচারপতির এই বক্তব্যকে একটু দূরে ঠ

By এস এম আশিকুজ্জামান on বুধবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৭ ১৬:০৫

রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবিরগুলোতে এখন ছোট ছোট দোকান গড়ে উঠেছে। ফ্লাস্কের চা, পান-সিগারেট-গুল, চানাচুর, বিস্কুট, বিভিন্ন ড্রিংকস (স্পিড, টাইগার ইত্যাদি) বিক্রি হচ্ছে এসব দোকানে। দোকানগুলো প্যান্ডেল আকারের। পেছনটা ত্রিপালে আটকানো। উপরেও ত্রিপাল। তিনদিক খোলা। দোকানগুলো রোহিঙ্গা পুরুষদের আড্ডাখানায় পরিণত হয়েছে। এই দোকানের টাকা কোথায় পেয়েছে, এমন প্রশ্নে উত্তরে নানান জন নানা ধরনের উত্তর দিয়েছে। কেউ বলেছে, ধারকর্জ করে টাকা ম্যানেজ করেছে, কেউ বলেছে, সামান্য কিছু টাকা তারা সঙ্গে নিয়ে এসেছিল, সেই টাকাতেই দোকান! কেউবা নিরুত্তর থেকেছে।টেকনাফের উনচিপ্রাংয়ে আমরা এক দোকানে গিয়ে আড্ডা জমাই। অনেককেই পেয়ে যাই এই আড্ডায়। আমি জিজ্ঞেস করি, এই মুহূর্তে আপনাদের কাছে সবচেয়ে বড় সমস্যা কোনটি? দেখলাম, তা

By চিররঞ্জন সরকার on বুধবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৭ ১৫:২০

শেখ রাসেলের বাবা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আর মা শেখ ফজিলাতুননেছা মুজিব। পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে সর্বকনিষ্ঠ ছিল শেখ রাসেল। বড় বোন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বড় ভাই শেখ কামাল ও শেখ জামাল এবং আরেক বোন শেখ রেহানা।বঙ্গবন্ধু পরিবারের সর্বকনিষ্ঠ সদস্য শেখ রাসেল ১৯৬৪ সালের ১৮ অক্টোবর ঐতিহাসিক ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুলের ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রাবস্থায় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নির্মমভাবে হত্যাকাণ্ডের শিকার হন পরিবারের সবার আদরের শেখ রাসেল।সংসারের সর্বকনিষ্ঠ সন্তান হিসেবে রাসেল সকলের কাছে অত্যন্ত প্রিয় পাত্র হয়ে উঠেছিলেন। এ ঘটনাগুলি বঙ্গবন্ধু পরিবারের জীবিত দুই সদস্যের স্মৃতিচারণ হতে শুনতে পাই। মা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব বই পড়তে ভ

By মো. সাখাওয়াত হোসেন on বুধবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৭ ০৭:৩৮