মতামত

‘হ্যালো ফ্রেন্ডস, নায়লা নাইম কখনও ব্ল্যাফ দেয়না। সি, আই এম হেয়ার। একদম রেডি। সো কাউন্টডাউন স্টার্ট কর’। স্তন ক্যান্সার সচেতনতা বাড়াতে একটি বিজ্ঞাপনী সংস্থার নির্মিত এক স্বল্পদৈর্ঘ্য অনলাইনকেন্দ্রিক যৌন আহবানমূলক একক নাটকে এভাবেই উপস্থাপন করা হয় তথাকথিত মডেল নায়লা নাইমকে। নাটকের বাকি ডায়লগ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যাণে মোটামুটি অনেকেই জেনেছে বা দেখেছে। এটিকে নাটক কেন বলছি? বিজ্ঞাপন বলতে আমরা বুঝি, এটি একটি উপায় যার মাধ্যমে নতুন কিছুর আগমন বার্তা জানানো হয়। শুধু তাই নয় পুরোনো বা এরই মধ্যে বাজারে চালু পণ্য বা সেবার নতুন গ্রাহক তৈরির কৌশল হচ্ছে বিজ্ঞাপন। পণ্যের প্রচার ছাড়া সামাজিক সচেতনতামূলক বিজ্ঞাপনও রয়েছে। সরকার বা যেকোন সংস্থা কোন বিশেষ সময়ে বা বিষয়ে সামাজিক সচেতনতা বাড়াতে বি

By ফারাহ জাবিন শাম্মী on শুক্রবার, ২০ জানুয়ারী ২০১৭ ১৮:১২

দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচে ইমরুল-মুশফিক-মুমিনুল থাকছেন না। ভিনদেশে ভিন্ন আবহাওয়াতে বাংলাদেশ ক্রিকেট টিমের জন্য এরচেয়ে বড় পরীক্ষা মনে হয় না আর এসেছে। প্রথম টেস্টে দারুণ শুরু করেও ইনজুরির পাহাড় মাথায় নিয়ে পরাজয় মেনে নিতে হয়েছে টাইগারদের। ফেসবুকে অভিনন্দন আর গালি-নন্দন দুই'ই সইতে হয়েছে টাইগারদের। তবে যারা ক্রিকেট খেলেছে আর ক্রিকেটের সঙ্গে মাঠে থেকেছে, তারা জানেন 'বাতাস' কতো বড় একটা বিষয়; তাও যদি হয় বিশ্বমানের কোনো প্রতিযোগিতায়। সবকিছুর সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে প্রথম টেস্টে টাইগারদের লড়াইকে ব্যক্তিগতভাবে সম্মান জানাই। দ্বিতীয় টেস্টে বাংলাদেশ দলে কে কে খেলবেন, কেমন খেলবেন, কাকে কাকে ভাল খেলতে হবে, কে আউট হলে দল চাপে পড়বে এমন নানা সমীকরণের সহজ সমাধান খুঁজে বেড়াচ্ছেন ক্রিকেট বিশ্লেষকরা। তবে সাধারণ

By আব্দুল্লাহ আল সাফি on বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৭ ১৮:৪৪

খবরটা পড়ার পর থেকে বারবার চোখের সামনে ভেসে উঠছিল শিরোনামটি ‘ফাঁঁসি ঘোষণা হওয়ার পরও আসামিরা নির্বিকার ও পরিপাটি।’ খবরের বর্ণনায় বলা হয়েছে, ২৬জন আসামির মধ্যে মাত্র দু’জন রায় শুনে কেঁদেছেন। বাকিদের চেহারা ছিল ভাবলেশহীন। আদালতকক্ষে আসার সময় তাদের কারো কারো মুখে চাপা হাসিও ছিল। কীভাবে সম্ভব মৃত্যুদণ্ডাদেশ পাওয়ার পরও মুখে হাসি টেনে রাখা!! হয়তো তখনও তারা বুঝে উঠতে পারেননি, কি ঘটতে যাচ্ছে? তখনও হয়তো ভেবে চলেছেন প্রবল পরাক্রমে অপরাধ করতে করতে এই যাত্রায়ও হয়তো পার পেয়ে যাবেন। কিন্তু না, প্রমাণিত হয়ে গেছে কেউ অপরাধ করলে, তাকে শাস্তি পেতেই হবে। আসামিদের এই ভাবলেশহীনতাই প্রমাণ করে, এরাই অপরাধী, ভয়াবহ অপরাধী। নারায়ণগঞ্জ হত্যাকাণ্ড যারা ঘটিয়েছিল তাদের মধ্যে সাজাপ্রাপ্ত ২৫ জনই ৫ বাহিনীর সাবে

By শাহানা হুদা on বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৭ ১৫:১১

২০ জানুয়ারি ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের এবং একই সঙ্গে বিশ্বের দায়িত্ব নেবেন। আমেরিকায় তার ব্যাপক প্রস্তুতি চলছে। বিশ্ববাসীও এক ধরনের শঙ্কা ও ভয় নিয়ে প্রহর গুণছে ট্রাম্পযুগে প্রবেশ করার। দায়িত্ব গ্রহণের আগে প্রশাসনের শীর্ষ পদগুলোয় যাদের নাম তিনি ঘোষণা করেছেন, তাতেই বিশ্ববাসী চমকিত হয়েছেন। এ তালিকায় একদিকে যেমন আছেন বিলিয়নেয়ার, পাগলাটে জেনারেল, তেমনি আছেন একসময়ের কট্টর ট্রাম্পবিরোধী ব্যক্তিও। তবে তাদের অধিকাংশই কট্টর রক্ষণশীল। একজন ইসলামবিদ্বেষী, তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের প্রবক্তা, একদা দায়িত্বজ্ঞানহীনতাবশত পদচ্যুত কূটনীতিককে দেশের পররাষ্ট্র সচিব পদে বসানো, না কি এক প্রবল গোঁড়া ব্যবসা-স্বার্থান্ধ পরিবেশচুক্তি-বিদ্বেষীকে পরিবেশ বিষয়ক উপদেষ্টা রূপে নিযুক্ত করা কোনটি

By চিররঞ্জন সরকার on বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৭ ১১:৩৪

স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র লিখবার সময় তিনটি শব্দ ব্যবহার করেছিলাম যেগুলোয় মূল্যবোধের ব্যাপারে গুরুত্ব দেয়া হয়েছিল। যার মধ্যে নিহিত ছিল আমরা কেনো যুদ্ধ করছি, স্বাধীন হলে আমরা কী ধরণের সমাজ ও রাষ্ট্র গঠন করবো? সেই তিনটি কথা ছিলো সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক ন্যায়বিচার। আর দুটি কথা ছিলো সরকার সম্পর্কে যে আমরা ন্যায়ানুগ এবং নিয়মতান্ত্রিক সরকার গঠন করব। এই পাঁচটি কথার উপরেই আমাদের সংবিধান প্রস্তুত করা হয়েছে যেখানে জনগণকে সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে এবং একটি ন্যায়ানুগ গণতান্ত্রিক সরকারকে জনগণের প্রতিনিধি হিসেবে রাষ্ট্রপরিচালনার ভার দেয়া হয়েছে। রাষ্ট্র ও সমাজব্যবস্থার এই মূলনীতিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড় বিপর্যয় হয়েছে সাম্যের প্রশ্নে। সাম্য প্রতিষ্ঠিত হয়নি

By ব্যারিস্টার এম. আমীর-উল ইসলাম on বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৭ ১০:২৯

দলীয় পরিচয়, দলীয় প্রতীক ও দলীয় নেতাকর্মীদের শ্রমের মধ্য দিয়েই সাংসদ নির্বাচিত হন। পরে সাংসদ থেকে কেউ মন্ত্রী, কেউ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি, কেউ স্পিকার, ডেপুটি স্পিকার হয়ে থাকেন। স্পিকার থেকে রাষ্ট্রপতিও হয়ে থাকেন। রাজনৈতিক পদমর্যাদার এই স্তরগুলোতে পৌঁছার তাদের মূল শেকড় দল। দলীয় নেতাকর্মীদের দলগত আবেগই ধাপে ধাপে তাদের রাজনৈতিক পরিপুষ্টতা অর্জনে নির্যাসের ভূমিকা রাখে। কিন্তু ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে যাওয়ার পরে আর অনেকেরই শেকড় নিয়ে ভাবার ও এতে অধিকতর রস সঞ্চারের আগ্রহ থাকে না।আত্মীয়-স্বজন প্রীতি মগ্ন হয়ে তখন আর দলকে নিয়ে কেউ ভাবে না। দল ক্ষমতায় গেলে ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে চলে আসেন এপিএসরা। অথচ এই এপিএস নিয়োগে দলীয় নেতাকর্মীদের মতামতের কোনো বিষয় থাকে ন

By এখলাসুর রহমান on বুধবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৭ ১৬:০৬

অনেকেই বলে যেখানে সমস্যা সেখানেই সম্ভাবনা। বন্যা, ঘূর্ণিঝড়ের মতো নদী ভাঙ্গনও আমাদের দেশের জন্য একটি দুর্যোগ৷ এ দেশের বড় বড় নদীগুলোতে ভাঙ্গন এখন স্বাভাবিক ঘটনা, নদীভাঙ্গন এমন এক ধরনের দুর্যোগ যা মূলত আস্তে আস্তে ঘটে৷ ৭০ ও ৮০'র দশক থেকে এ দেশে নদী ভাঙ্গনের তীব্রতা যেমন বেড়েছে তেমনি ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণও বেড়েছে অনেক৷ প্রতি বছর বাংলাদেশে গড়ে ৮,৭০০ হেক্টর জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়৷ যার অধিকাংশই হলো কৃষি জমি৷ এছাড়া প্রতি বছর নদী ভাঙ্গনে প্রায় ১০ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়৷ এই ক্ষতিগ্রস্ত মানুষজনের অর্ধেকের বেশির পক্ষে টাকার অভাবে ঘরবাড়ি তৈরি করা সম্ভব হয় না৷ তারা পরিণত হয় গৃহহীন, ছিন্নমূল মানুষে৷ এ ধরনের গৃহহীন, ভূমিহারা মানুষেরা সাধারণত বাঁধ, রাস্তা, পরিত্যক্ত রেলসড়ক, খাসচর, খাসজমিতে ভ

By সায়েদুল আরেফিন on বুধবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৭ ১৫:৩৫

সান ডিয়েগো, ক্যালিফোর্নিয়া, যুক্তরাষ্ট্র থেকে: আর মাত্র ক'দিন পরই বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর রাষ্ট্রের প্রধান হিসেবে শপথ গ্রহণ করবেন ডোনাল্ড ট্রা¤প। সে-নিয়ে জল্পনা-কল্পনার অন্ত নেই। ট্রাম্পের বিদেশনীতি কি হবে, অর্থনীতির ক্ষেত্রে নতুন কোনো চমক আনবেন কিনা, অভিবাসী সংক্রান্ত বিষয়ে কোনো হার্ড লাইনে যাবেন কিনা এমন হাজারতর প্রশ্ন ঝুলে রয়েছে। তবে এ সকল কিছুর সাথে সমালোচকরা কথা বলছেন একটি কালো এটাচি কেসের ভবিষ্যত নিয়েও। কি আছে ওই এটাচি কেসে এবং এটি নিয়ে তাঁদের এতো শঙ্কা কেন সে নিয়ে কিছু আলোচনা করা যাক। অনেকেই নিশ্চয়ই খেয়াল করেছেন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হোয়াইট হাউস ছেড়ে যখন অন্যত্র যান, তখন সর্বদাই একজন মেরিন সেনা তার অনুগামী হয় দু-হাতে দুটি এটাচি কেসসহ। না, গুরুত্বপূর্ণ কোনো দলিলাদি

By সঞ্জয় দে on মঙ্গলবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৭ ১২:৩৫

গত দশ বছরে রোবটিক্স বা রোবট দিয়ে নানা ধরনের কাজ করানোর যন্ত্র বাজারে এসেছে। এর সাথে একই সময় শুরু হয়েছে আমেরিকা, ইউরোপ ইত্যাদি দেশে তাদের হারানো ম্যানুফাকচারিং জবগুলো ফিরিয়ে নেবার পলিটিকাল আন্দোলন। আগামী ১০ বছরে যা হবে তা হচ্ছে, রাজনৈতিক চাপ এর কারণে এবং রোবট টেকনোলজির অভূতপুর্ব উন্নতির কারনে, 'লো টেক ম্যানুফাকচারিং' এর যে কাজ গুলো এতো দিন বাংলাদেশে আসতো আমেরিকা বা ইউরোপে থেকে, সেগুলো সেই দেশ গুলতে ফেরত যাবে। যেমন ধরুন রেডি মেইড গার্মেন্টস। বাংলাদেশের প্রায় ৯০% বিদেশে রপ্তানিজাত পণ্য হচ্ছে এই গার্মেন্টস। সারা পৃথিবীর সব চাইতে সস্তা শ্রমের বাজার বাংলাদেশ । ঢাকা বা চট্টগ্রামের মতো মাত্র ৩০-৪০ মাইল ব্যাসার্ধের জায়গায় কোটি কোটি অল্প শিক্ষিত, পরিশ্রমী তরুণ তরুণীর বসবাস পৃথিবীতে বিরল। এই একারণে

By শাফকাত রাব্বী on রবিবার , ১৫ জানুয়ারী ২০১৭ ১৮:০৫

নানা রকম ভাষার সঙ্গে আমাদের পরিচয়। ব্যবহারিক ভাষা, ব্যাকরণসম্মত ভাষা, তৃতীয় লিঙ্গের ভাষা, নৈঃশব্দের ভাষা, দেহকেন্দ্রিক ভাষা, ছাত্র পড়ানোর ভাষা, মুখ খারাপের ভাষা, মাস্তানি ভাষা, পাগলামির ভাষা, মায় সিনেমার ভাষাও। তবে এখন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে বিশেষ এক প্রতীক-নির্ভর ভাষা। যাকে বলা হয় ইমোজি। ‘ইমোজি’ শব্দটির উৎপত্তি জাপানি শব্দ ‘ইমোডজি’ থেকে। এর অর্থ ‘স্মাইলি’ অর্থাৎ ‘হাসিমুখ’। এটা মূলত ফেসবুক, টুইটার, হোয়াটসআপ, ভাইবার, ইমো ইত্যাদি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীদের ভাষা। সমীক্ষায় প্রকাশ, ‘হাসতে হাসতে চোখ দিয়ে পানি বের হয়ে যাচ্ছে’ বা ‘চোখে-জল-মুখে-হাসি’ এই অভিব্যক্তি-বাচক ‘ইমোজি’-ই এখন বিশ্বের সর্বাধিক জনপ্রিয় ইমোজি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগান বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের এক জরিপ

By চিররঞ্জন সরকার on শনিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০১৭ ১৬:৪৭