সুনামগঞ্জ

সুনামগঞ্জে সুরমা নদীর অব্যাহত ভাঙ্গনে বিলীন হতে চলেছে দোয়ারাবাজার উপজেলা সদরসহ বেশ কয়েকটি গ্রাম। নদী ভাঙনে কৃষিজমি ও বসতভিটে হারিয়ে মানবিক বিপর্যয়ের মুখে ক্ষতিগ্রস্তরা। নদী ভাঙ্গন রোধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি এলাকাবাসীর। বেশ কয়েক বছর ধরেই সুরমা নদীর ভাঙ্গনের কবলে পড়েছে দোয়ারাবাজার উপজেলা সদর। এ বছর ভাঙ্গনের তীব্রতা আরও বেড়েছে। স্থানীয়রা বলছেন, ভাঙ্গন রোধে দ্রুত পদক্ষেপ না নিলে অচিরেই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়সহ সরকারি স্থাপনাগুলো নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাবে। ছাতক-দোয়ারাবাজারের সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে যেকোন সময়। নদী ভাঙ্গনে উপজেলার কাঞ্চনপুর ও হরিপুর গ্রামের দুই শতাধিক ঘর-বাড়ি ইতোমধ্যে তলিয়ে গেছে। ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে দোহালিয়া বাজার, মাজেরগাঁও,

By চ্যানেল আই অনলাইন on সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭ ১১:৩৯

কোরবানি ঈদ সামনে রেখে গরু মোটাতাজা করতে ব্যস্ত সুনামগঞ্জের খামারিরা। দেশি ও প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে গরু মোটাতাজা করছেন তারা। অনেক খামারি কোরবানি ঈদে গরু বিক্রি করে কোটি টাকার ওপরে লাভ করার আশা করছেন। দেশের অনেক জায়গার মত ছাতক উপজেলার কালারুকা ইউনিয়নের বিল্লাই গ্রামে গড়ে উঠেছে জেলার সবচেয়ে বড় গরু মোটাতাজাকরণের খামার। একসাথে সাড়ে তিন’শ গরু মোটাতাজা করা হচ্ছে এখানে। ইতোমধ্যেই গরু বিক্রি শুরু হয়েছে। এখানে স্থানীয় জাতের পাশাপাশি মোটাতাজা করা হচ্ছে নেপালি, হরিয়ানা, সিন্ধি, শাহীওয়াল জাতের গরু। খামারিরা জানান, ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকায় এক একটি গরু কিনে চার থেকে ছয় মাস লালন পালন করা হয়। এরপর একেকটি গরু বিক্রি হয় ৬০ হাজার থেকে আড়াই লাখ টাকায়। তারা বলেন, এসব গরু মোটাতাজা করতে কোন ওষুধ বা ইঞ্জেকশন দেয়

By চ্যানেল আই অনলাইন on বৃহস্পতিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৭ ০৯:১৮

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: শিক্ষক সংকটের কারণে সুনামগঞ্জের সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষা কার্যক্রম মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। তাই অনেকটা বাধ্য হয়ে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের চাঁদায় খণ্ডকালীন শিক্ষক দিয়ে চলছে জগন্নাথপুরের দুটি বিদ্যালয়। এমনিতেই হাওরের জেলা সুনামগঞ্জ দেশের অন্যান্য জেলা থেকে শিক্ষার দিক থেকে এখনো অনেক পিছিয়ে। কেননা শিক্ষার মান উন্নয়নে সেখানে সুষ্ঠু পরিকল্পনা কিংবা তা বাস্তবায়নে তেমন কোন উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। জগন্নাথপুর উপজেলার স্বরূপচন্দ্র সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের দিকে তাকালে সেখানকার শিক্ষার করুণ অবস্থার সামগ্রিক একটি চিত্র দেখতে পাওয়া যায়। কেননা এই স্কুলে প্রধান শিক্ষকে এবং সহকারি শিক্ষকের ১০টি পদ থাকলেও বিদ্যালয়ের ৭টি পদ শূন্য। ৩ জন সহকারি শিক্ষকের ভে

By চ্যানেল আই অনলাইন on বুধবার, ০৯ অগাস্ট ২০১৭ ১০:৩০

একেএম মুহিম, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: বন্যায় ফসলহানির প্রভাব পড়েছে হাওর অঞ্চলে। কৃষির ওপর অনেকটাই নির্ভরশীল সুনামগঞ্জে নেই ঈদের আনন্দ। ব্যবসায়ীরা পড়ছেন লোকসানে। সুনামগঞ্জ জেলা সদরসহ অন্য উপজেলাগুলোতে এবার নেই ঈদের আনন্দ। আগে রমজানের শেষ দিকে ঈদের কেনাকাটায় মুখরিত হয়ে উঠতো বাজার। তবে এ বছর কেনাকাটায় নেই সেই চিরচেনা রূপ। শহরের লন্ডন প্লাজা, দোজা মার্কেট, নেজা প্লাজা, হকার্স মার্কেটসহ তৈরি পোশাকের দোকানগুলি ক্রেতাশূন্য। যারাও বা কিছু কিনছেন তাদের মনে নেই আনন্দ। গত কয়েক বছরের মধ্যে এবছরই সবচেয়ে কম বিক্রি হচ্ছে বলে জানান বিক্রেতারা। হাওর জেলা সুনামগঞ্জের ৯০ভাগ মানুষ বোরো ধানের উপর নির্ভরশীল। তাই ফসল হারিয়ে যখন বেঁচে থাকা নিয়ে সংগ্রাম করছে নিঃস্ব কৃষক পরিবার তখন ঈদের নতুন পোশাক কেনা তা

By চ্যানেল আই অনলাইন on শুক্রবার, ২৩ জুন ২০১৭ ১১:১৯

একেএম মহিম, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের হাওর এলাকায় থেমে নেই এনজিওদের ক্ষুদ্র ঋণের কিস্তি আদায়। হাওর এলাকায় সাম্প্রতিক ফসলহানীর পর এক বছর কিস্তি আদায় বন্ধ ও সুদমুক্ত নতুন ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে উপেক্ষিত হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা। কিস্তি আদায়ে এনজিও গুলি অবলম্বন করছে নানা কৌশল। সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলে বেশ কিছু বেসরকারি সংস্থার ক্ষুদ্র ঋণ কার্যক্রম রয়েছে। ব্র্যাক, আশা, শক্তি ও গ্রামীণ ব্যাংকেরই আড়াই লাখ ক্ষুদ্র ঋণ গ্রহিতা রয়েছে। এফআইভিডিবি, পদক্ষেপসহ অন্যান্য সংস্থার রয়েছে আরো এক লাখের বেশি সদস্য। হাওরের একমাত্র বোরো ফসলহানীর পর কৃষকদের বেঁচে থাকা যেখানে কষ্ট সাধ্য, সেখানে ক্ষুদ্র ঋণের কিস্তি দেয়া তাদের জন্য প্রায় অসাধ্য। কিন্তু বেশ কিছু এনজিও এ অবস্থায়ও কিস্তির টাকা

By চ্যানেল আই অনলাইন on রবিবার , ১৮ জুন ২০১৭ ১০:৫২

এ কে এম মহিম, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের হাওরের প্রত্যন্ত গ্রামগুলোতে এখনো অনেক ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের কাছে সরকারি ত্রাণ সহায়তা পৌঁছায়নি বলে অভিযোগ রয়েছে। স্থানীয় প্রশাসন বলছে, যারা এখনো সহায়তা পায়নি তাদেরকে পরবর্তী তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে। সরকারি হিসেবে, হাওরে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক পরিবারের সংখ্যা সাড়ে তিন লাখ। প্রশাসন থেকে এ পর্যন্ত ভিজিএফ কার্ড বিতরণ করা হয়েছে দেড় লাখ। এ কারণে ক্ষতিগ্রস্থ অর্ধেক মানুষের কাছে এখনও পৌঁছায়নি  সহায়তা। অভিযোগ, স্থানীয় অনেক ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বাররা তাদের আত্মীয় ও ভোটারদের নাম তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করায় প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তরা ত্রাণ পাচ্ছেন না। এদিকে ওএমএস এর চালের পরিমাণ কম থাকায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়েও ফিরে যেতে হচ্ছে অনেককে। জরু

By চ্যানেল আই অনলাইন on রবিবার , ২১ মে ২০১৭ ১১:৪২

অকাল বন্যায় ফসল হারানো হাওরবাসীর সামনে এখন তীব্র পশুখাদ্যের আকাল। আগামী তিন মাস গবাদি প্রাণী নিয়ে এক অকূল পাথারে পড়তে হবে, শংকা তাদের। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়া পর্যন্ত গোখাদ্যের সহায়তা দাবি করছেন তারা। হাওরের অকাল বন্যায় আকস্মিক নেমে আসা অভাবে অনেকেই ঘরের গরু-বাছুর ধরে রাখতে পারেনি। যাদের ঘরে এখনো টিকে আছে তারা পড়েছেন গোখাদ্যের সঙ্কটে। অবস্থা দেখে মনে হতে পারে হাড় জিরজিরে প্রাণিসম্পদের সমাবেশ। হাওরাঞ্চলে গবাদিপ্রাণীর খাদ্য চাহিদার বড় অংশটি পূরণ হয় ধানের খড় থেকে। এবার ধান ডুবে যাওয়ায় মানুষের খাদ্যের সঙ্গে সঙ্গেই নিঃশেষ হয়ে গেছে গবাদিপ্রাণীর খাদ্য। এই পরিস্থিতিতে গবাদিপ্রাণীর দ্রুত খাদ্য ও পুষ্টি সহায়তা নিয়ে সুনামগঞ্জের দেখার হাওরের মধ্যবর্তী ইছাগড়ি শান্তিগঞ্জে সাহ

By শাইখ সিরাজ on রবিবার , ০৭ মে ২০১৭ ১৩:৩৯

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেছেন, হাওর অঞ্চলে ৫০ হাজার জেলেকে ভিজিএফ কার্ড দেয়া হবে। আজ বৃহস্পতিবার সচিবালয়ের সভাকক্ষে হাওর অঞ্চলের চলমান বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সমন্বয় কমিটির সভায় তিনি এ তথ্য জানান। মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেন, হাওর অঞ্চলে কৃষকদের পাশাপাশি জেলেরাও কর্মহীন হয়ে পড়েছে। তাই কৃষকদের পাশাপাশি ৫০ হাজার জেলেকে ভিজিএফ কার্ড দেয়া হবে এবং তাদের সকলের বিকল্প কর্মসংস্থান করা হবে। প্রাথমিকভাবে হাওর অঞ্চলের ৩ লক্ষ ৩০ হাজার প্রান্তিক দরিদ্র লোককে ভিজিএফ সহায়তা দেয়া হবে। এ সংখ্যা বাড়তে থাকলে বাড়তি লোকদেরও সহায়তা করা হবে। এর পাশাপাশি সুলভ মূল্য ও ওএমএস কার্যক্রম চলমান থাকবে। মায়া বলেন, ইতোমধ্য

By মাহবুব মোর্শেদ on বৃহস্পতিবার, ০৪ মে ২০১৭ ১৮:৫৫

অকাল বন্যায় হাওরের একমাত্র ফসল বোরো ধান হারিয়ে খাদ্য সংকটের ঝুঁকিতে পড়েছে সাত জেলার হাওরনির্ভর লাখ লাখ মানুষ। ধান মাড়াই এবং শুকানোর কাজও নেই তাদের। বড় ধরনের খাদ্য সংকটে পড়ার আশঙ্কায় আছেন হাওর পাড়ের মানুষ। দেশের পূর্ব মধ্য ও পূর্বাঞ্চলের সাত জেলার হাওরঅধ্যুষিত এলাকার মধ্যে মাছ এবং ধান উৎপাদনে সব চেয়ে এগিয়ে জেলার মধ্যে অন্যতম সুনামগঞ্জ। সুনামগঞ্জ সড়কে ঢুকলেই বোঝা যায়, কৃষকের কতটুকু ক্ষতি করেছে সর্বনাশা অকাল বন্যা। অন্যান্য বছর এ সময় রাস্তায় ধান শুকানোর কারণে সুনামগঞ্জ সদর থেকে বিশ্বম্ভরপুর হয়ে জেলার সর্বশেষ উপজেলা তাহেরপুর সড়ক ধরে হাঁটাই কষ্টকর হতো। কিন্তু এ বছর পানির নিচ থেকে কাঁচা এবং পচা ধান কেটে পাড়ে তোলার চেষ্টা করছেন স্থানীয়রা। মুক্তিযুদ্ধের পর হাওর অঞ্চলের কোনো কৃষককেই

By শফিকুল ইসলাম on মঙ্গলবার, ০২ মে ২০১৭ ১২:০৭

সুনামগঞ্জের হাওরে অকাল বন্যায় ফসলের পাশাপাশি জীববৈচিত্র্যেরও অনেক ক্ষতি হয়েছে। মারা গেছে মাছসহ জলজ প্রাণী ও বিভিন্ন উদ্ভিদ। জলবায়ু পরিবর্তনজনিত এসব ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে হাওর ব্যবস্থাপনায় দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা নেয়ার কথা বলছেন, বিশেষজ্ঞ ও স্থানীয়রা। স্থানীয়রা বলছেন, পোকা মাকড় ও রোগ বালাই দমণের জন্য ফসলে ব্যবহৃত বিভিন্ন ধরণের কীটনাশক ও রাসায়নিক পদার্থ পানিতে মিশে এই বিপর্যয় হয়েছে। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হাওরে এখন মাছের আকাল দেখা দিয়েছে। এবারের অকাল বন্যায় মারা গেছে প্রায় সব ধরণের জলজ প্রাণী। ক্ষতি হয়েছে উদ্ভিদরাজিরও। স্থানীয়রা বলছেন, পোকা মাকড় ও রোগ বালাই দমণের জন্য ফসলে ব্যবহৃত বিভিন্ন ধরণের কীটনাশক ও রাসায়নিক পদার্থ পানিতে মিশে এই বিপর্যয় হয়েছে। এ থেকে পরিত্রাণ পেতে হ

By মো. জাহিদুজ্জামান on মঙ্গলবার, ০২ মে ২০১৭ ১১:২৩