প্রদীপ চৌধুরী
প্রদীপ চৌধুরী

প্রদীপ চৌধুরী

“আমার একটা চাকরি ব্যবস্থা করে দেন। কিছু লাগবে না, দুই বেলা খাবার, চা-বিড়ি আর একরুমের একটা বাসা ভাড়ার খরচটা দিলেই হবে। আর কিছু চাই না আমি।” এমন অসহায় আকুতি নিয়ে তিনি প্রায়ই আমাকে ফোন করতেন। কিন্তু আরেক অসহায় এই আমি তাঁর জন্য কিছুই করতে না পারার অক্ষেপ নিয়ে একে ওকে অনুরোধ করতাম। যাদের কাছে চাকরি আছে, তাদের নম্বরটা দিয়ে বলতাম, এর সাথে একটু যোগাযোগ করে দেখেন, তৈয়ব ভাই। পরে শুনেছি সাবেক অনেক সহকর্মীকে ফোন করে এমন করেই নিজে অসহায়ত্বের কথা জানাতেন তিনি। ৮ নভেম্বর মর্মান্তিক এক খবরে থমকে গেলাম। আমার খুব কাছের এক ছোট ভাই ফোন করে জানালো তৈয়ব ভাই মারা গেছেন। কষ্টের এক নীলস্রোত ঢেউ তুলে সমস্ত শরীরকে স্থির করে দিল; যখন জানলাম মৃত্যুর তিন মাস আগে ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে নির্বাক আর অচল মানুষে

By প্রদীপ চৌধুরী on সোমবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৭ ২১:২৮