আমীন আল রশীদ
আমীন আল রশীদ

সাংবাদিক, লেখক, গবেষক। যুগ্ম বার্তা সম্পাদক, চ্যানেল টোয়েন্টিফোর।জন্ম, ০৭ মার্চ, ১৯৮০, ঝালকাঠি।কাজের অভিজ্ঞতাপ্রথম আলো: মার্চ ২০০২-ডিসেম্বর ২০০৫ (ঝালকাঠি জেলা প্রতিনিধি)যায়যায়দিন: এপ্রিল ২০০৬-জুন ২০০৮ (স্টাফ রিপোর্টার)এবিসি রেডিও: জুন ২০০৮-জুন ২০১৪ (সিনিয়র রিপোর্টার/নিউজ ইনচার্জ)বিবিসি: ডিসেম্বর ২০১৩-জুলাই ২০১৪ (ফ্রিল্যান্স রিপোর্টার)চ্যানেল টোয়েন্টিফোর: জুলাই ২০১৪-বর্তমানউল্লেখযোগ্য অ্যাওয়ার্ড:অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় থমসন পুরস্কার, ২০১৩অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় টিআইবি পুরস্কার, ২০১৩অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় দুদক পুরস্কার, ২০১৩প্রকাশিত গ্রন্থ ১১উল্লেখযোগ্য: সরকারি বিরোধী দল, ২০১৪সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনী: আলোচনা তর্ক বিতর্ক, ২০১১মানুষের গল্প: ২০০৮কমিউনিটি রেডিও হ্যান্ডবুক: ২০১৪বাংলাদেশের কমিউনিটি রেডিও, অর্জন ও চ্যালেঞ্জ: ২০১২তথ্য অধিকার ও কমিউনিটি রেডিও: ২০১৪

হাইপোথেটিক্যালি ধরে নেয়া যাক খালেদা জিয়াকে লম্বা সময়ের জন্য জেলে থাকতে হবে অথবা জামিনে বের হবার পরে চিকিৎসার জন্য বিদেশে। তাহলে এই সময়ে বিএনপি পরিচালিত হবে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপার্সন তারেক রহমানের নির্দেশে ও নির্দেশনায়। এরইমধ্যে দলের তরফে জানানো হয়েছে, গঠনতন্ত্র অনুযায়ী এখন থেকে তারেক রহমানই চেয়ারপার্সন। কথা হচ্ছে তার নেতৃত্বে দেশের অন্যতম বৃহৎ এই দলটি কতদূর যাবে বা যেতে পারবে কিংবা দেশের রাজনীততে তিনি নতুন কী যুক্ত করবেন? মনে রাখা দরকার, তিনিও তার মায়ের সঙ্গে দুর্নীতির একই মামলায় সাজাপ্রাপ্ত এবং তাকে দেয়া হয়েছে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায়ও তিনি আসামি। ওই মামলায় দোষী সাব্যস্ত হলে তার আরও বড় সাজা হবে। তার মানে ক্ষমতার পালাবদল না হওয়া পর্যন্ত তারেক রহমানের পক্

By আমীন আল রশীদ on শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ ১৬:০২

রাজনীতির অনেক গরম বিষয়ের বাইরে এ মুহূর্তে দুটি খবরের দিকে নজর দেয়া যাক। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন বলেছেন, মিয়ানমার সীমান্তে শাহপরীর দ্বীপ থেকে ২৭১ কিলোমিটার রোডসহ কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণের পরিকল্পনা করা হয়েছে। ৪ ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি জানান, বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত দিয়ে অবৈধ অনুপ্রবেশ রোধ, মাদকদ্রব্যসহ অন্যান্য চোরাচালান প্রতিরোধ, বিভিন্ন প্রকার সীমান্ত অপরাধ দমন এবং দেশের অভ্যন্তরীণ আইনশৃঙ্খলা রক্ষার প্রাথমিক পর্যায়ে মিয়ানমারের সীমান্ত এলাকায় শাহপরীর দ্বীপ থেকে ২৭১ কিলোমিটার রোডসহ কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণের এই পরিকল্পনা পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন করা হবে। দ্বিতীয় আরেকটি খবর দিয়েছে একটি অনলাইন সংবাদপত্র। পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বরা

By আমীন আল রশীদ on সোমবার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ ১৪:৪৬

তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে যে ধরনের ব্যক্তিগত আক্রমণ হয়, সেই প্রবণতা বন্ধে ৫৭ ধারার মতো বিধান থাকা উচিত। এমন মতামত খোদ শিক্ষিত ও সচেতন জনগোষ্ঠীর মধ্য থেকেও বিভিন্ন সময়ে এসেছে। ফেসবুকে এরকম তর্ক বিভিন্ন সময়ে উঠেছে এবং ‘উত্তম বিকল্প’ তৈরির আগ পর্যন্ত ৫৭ ধারা থাকা উচিত বলে মত দিয়েছিলেন, এরকম একজন সাংবাদিকের বিরুদ্ধেও সম্প্রতি ৫৭ ধারায় মামলা হয়েছে। ফলে সোমবার মন্ত্রীসভায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের খসড়াটি অনুমোদিত হবার পরে গণমাধ্যম এবং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যে ধরনের তর্ক-বিতর্ক তৈরি হয়েছে, তাতে দেখা যাচ্ছে যে, এই ‘উত্তম বিকল্প’ নিয়েও এখন নাগরিকরা শঙ্কিত। তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারাটি ইন্টারনেটে ব্যক্তিগত চরিত্র হরণ, সাম্প্রদায়িক উস্কানি ইত্যাদি বন্ধের জন্য করা হয়েছে । এমন যুক

By আমীন আল রশীদ on বৃহস্পতিবার, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ ১৬:০৫

ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির সঙ্গে বাংলাদেশের কয়েকজন বিশিষ্টজনের ছবি নিয়ে বেশ তোলপাড় শুরু হয়েছে। জাত্যভিমান, জাতীয়বাদ, মুরুব্বিজ্ঞান, বড়ভাই তর্ক ইত্যাদি কথাও উঠছে। কারণ ছবিগুলোয় প্রণব মুখার্জি চেয়ারে উপবিষ্ট এবং বাকিরা পেছনে দাঁড়িয়ে। সেই দাঁড়িয়ে থাকা লোকগুলোর মধ্যে রয়েছেন বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীসহ দেশের রাজনীতি, শিক্ষা, সংস্কৃতির নানা ক্ষেত্রের বিশিষ্টজনরা। তবে ভারতীয় দূতাবাসের মাধ্যমে ছবিগুলো দ্রুততম সময়ের মধ্যে ফেসবুকে ভাইরাল হয় এবং একদল অতি জাতীয়তাবাদী এবং বুঝে না বুঝে ভারত বিরোধিতাকারী যেসব মন্তব্য করেছেন, সেই পরিপ্রেক্ষিতে এই লেখা। সবগুলো ছবির ধরন একই। অর্থা

By আমীন আল রশীদ on সোমবার, ২২ জানুয়ারী ২০১৮ ১০:৩০

বাংলাদেশের মতো উঠতি গণতন্ত্রের দেশে, অর্থাৎ যেখানে গণতন্ত্র বানরের তৈলাক্ত বাঁশ বেয়ে উপরে ওঠার মতো; অর্থাৎ দুই হাত উঠলে দেড় হাত নেমে যায় সেখানে বিচার বিভাগের পক্ষে খুব স্বাধীন ও রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত থাকা কঠিন। গণতন্ত্র না থাকলেও, অর্থাৎ একনায়কতন্ত্রের মধ্যেও বিচার বিভাগ স্বাধীন থাকতে পারে যদি সরকারের রাজনৈতিক সদিচ্ছা থাকে। কিন্তু বিচার বিভাগকে নিয়ন্ত্রিত রেখে বা রাজনৈতিক প্রভাব বলয়ের মধ্যে রেখে কাঙ্ক্ষিত গণতন্ত্রের প্রত্যাশা করা অনুচিত। আমাদের বিচার বিভাগ কতটা স্বাধীন ও রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত, তা নিয়ে খুব খোলামেলা আলোচনা করার সুযোগ নেই। কিন্তু তারপরও আমাদের বিচার ব্যবস্থায় রাজনীতি ও ক্ষমতাসীনদের প্রভাব বিস্তারের চেষ্টার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে খোদ প্রধান বিচারপতিরাও ক্ষোভ প্

By আমীন আল রশীদ on বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৮ ২২:২৩

পেশাগত কারণে অনেক বিখ্যাত, কুখ্যাত এবং সাধারণ মানুষের সাক্ষাৎকার নিতে হয়েছে। কিন্তু ২০০৭ সালের জানুয়ারিতে বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে একটি দীর্ঘ প্রতিবেদনের জন্য তাবলিগ জামাতের একজন মুরুব্বির সাক্ষাৎকার নেয়ার ঘটনাটি উল্লেখ করার মতো। বিশ্ব ইজতেমার প্রাথমিক তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহের পর গন্তব্য কাকরাইল মসজিদ। আগে থেকেই এটা জানা ছিল যে, তাবলিগের মুরুব্বিরা সাধারণত মিডিয়ার সামনে আসেন না। কাউকে সাক্ষাৎকার দেন না। ফলে ওটা ছিল একটা আমার জন্য একটা বড় চ্যালেঞ্জ। বাঁশের লাঠি হাতে গেটরক্ষীর কাছে নিজের পরিচয় দিয়ে মাওলানা জোবাযের সাহেবের সাথে দেখা করতে চাই জানালে প্রহরী আমাকে বলেন, সানগ্লাস খুলে এবং জুতা হাতে নিয়ে ভেতরে প্রবেশ করুন। কারণ ‘আপনি এমন একজন ব্যক্তির সাথে দেখা করতে চাচ্ছেন যার নামে গুনাহ মাফ

By আমীন আল রশীদ on শনিবার, ১৩ জানুয়ারী ২০১৮ ১১:৫৬

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে যখন বাংলাদেশ-মিয়ানমার যৌথ ওয়ার্কিং কমিটি কাজ করছে, সেই মুহূর্তে আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি বা আরসা’র নামে কিছু বিবৃতি এবং টুইট গণমাধ্যমে আসছে, যেগুলো নতুন করে কিছু প্রশ্নের জন্ম দিচ্ছে। সবশেষ গত ৭ জানুয়ারি রাখাইনে লড়াই চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়ে আরসা নেতা আতাউল্লাহর একটি টুইট সংবাদ শিরোনাম হয়েছে, যেখানে তিনি বলেছেন, “রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর ‘রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসবাদের’ বিরুদ্ধে লড়াই ছাড়া আর কোনো উপায় নেই।” এই টুইটের দুদিন আগেই সেনাসদস্যদের বহনকারী একটি গাড়িতে হামলার অভিযোগ ওঠে। গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, আরসা ওই হামলার দায় স্বীকার করেছে। রাখাইনে রোহিঙ্গা নিধনের ঘটনা নতুন কিছু নয়। দশকের পর দশক ধরে মিয়ানমার সেনাবাহিনী অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে সেখানে এই

By আমীন আল রশীদ on সোমবার, ০৮ জানুয়ারী ২০১৮ ১৫:১৩

বেতন বৈষম্য দূর করা এবং এমপিওভূক্তির দাবিতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শিক্ষকদের আন্দোলনের মধ্যেই একটা খবর বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। তা হলো, উল্টো পথে বিলাসবহুল বিএমডব্লিউ গাড়ি চালিয়ে পুলিশের সাথে দুর্ব্যবহারের অভিযোগে বেসরকারি ঢাকা বিজ্ঞান কলেজের অধ্যক্ষ এস এ মালেক এখন কারাগারে। খবরে বলা হচ্ছে, গত ২৪ ডিসেম্বর রাজধানীর নিমতলি এলাকায় উল্টোপথে যাচ্ছিলো একটি বিএমডব্লিউ গাড়ি। সেটি আটক করেন সার্জেন্ট মোহাম্মদ মহিবুল্লাহ। কিন্তু এতে ক্ষেপে যান ‘শিক্ষক’ এস এ মালেক। শিক্ষক শব্দটিকে বন্ধনীর ভেতরে রাখছি এ কারণে যে, তিনি যে ভাষায় এবং যে ভঙ্গিতে ওই পুলিশ কর্মকর্তার সাথে আচরণ করেছেন, তা কোনোভাবেই শিক্ষকসুলভ নয়। তার উত্তেজিত চেহারা এবং কথাবার্তা এরইমধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে

By আমীন আল রশীদ on শুক্রবার, ২৯ ডিসেম্বর ২০১৭ ১২:১০

যাকাতের কাপড় আনতে গিয়ে পদদলিত হয়ে মৃত্যুর ঘটনা প্রায় প্রতি বছরই খবরের শিরোনাম হয়। তবে এবার চট্টগ্রামে পদদলিত হয়ে অন্তত ১০ জন লোকের মৃত্যুর যে ঘটনাটি সংবাদ শিরোনাম হয়েছে, সেটি আরও করুণ। কারণ ওই মানুষগুলো গিয়েছিলেন তাদেরই প্রাণপ্রিয় নেতার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনার জন্য আয়োজিত কুলখানিতে অংশ নিতে। কিন্তু এখন ওই হতভাগ্য মানুষগুলোর জন্যই হয়তো কুলখানির আয়োজন হবে। কুলখানি বা কারো মৃত্যুর পরে হাজার হাজার মানুষকে দাওয়াত করে খাওয়ানো কতটা ধর্মসম্মত, পণ্ডিতরা তার ব্যাখ্যা দিতে পারবেন। তবে একজন সাধারণ শিক্ষিত মানুষের পক্ষেও এটা বোঝা কঠিন নয় যে, যাকাতের মতো এই বৃহত্তর আয়োজনের কুলখানির পেছনেও যতটা না ধর্মীয় অনুশাসন কিংবা মৃত ব্যক্তির শান্তি কামনার বিষয়টি থাকে, তার চেয়ে অনেক বেশি ক

By আমীন আল রশীদ on মঙ্গলবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৭ ১০:১৪

কিছু মৃত্যু পাহাড়ের মতো ভারী–এই প্রবাদটি যাদের জন্য, আনিসুল হক নিঃসন্দেহে সেই মানুষগুলোর অন্যতম; যারা স্বপ্ন বোনেন, স্বপ্ন দেখান। ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র আনিসুল হক সেরকমই একজন স্বপ্নবান মানুষ যিনি এই মহানগরীর মানুষ স্বপ্ন দেখাতে শুরু করেছিলেন। কিছু স্বপ্নের বাস্তবায়নও করেছিলেন। কিন্তু আরও অনেক কাজ বাকি। গত বছর একটি টেলিভিশন চ্যানেলের অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, দুই বছরের মধ্যে ঢাকার চেহারা বদলে যাবে। কিন্তু তা আর হলো না। এই স্বপ্নের বাস্তবায়নের আগেই তিনি চলে গেছেন স্বপ্নেরও বহু দূরে। আর তাঁকে আমরা খুঁজে পাব না। তিনি মিশে যাবেন দূর নক্ষত্রে…গোধূলীর লাল মেঘে…রাতের নিকষ অন্ধকারে…শিউলির সাদায়…শীতের কুয়াশায়। …বিদায় নায়ক। রাজনীতিবিদদের সম্পর্কে আমাদের গড়পরতা যে ধারণা বা বিশ্বাস, ত

By আমীন আল রশীদ on শুক্রবার, ০১ ডিসেম্বর ২০১৭ ০০:০৩