কিছু শর্তে রোববার থেকে ধর্মঘট স্থগিত করার ঘোষণা দিয়েছে মাংস ব্যবসায়ী সমিতি। গাবতলী গরুর হাটের বাড়তি ইজারা বন্ধ করা, হুন্ডি ব্যবসায়ীদের বিচার, পশুর চামড়ার ন্যায্য দামসহ কয়েকটি দাবি জানিয়েছেন তারা। সরকার এসব দাবি মানলে তারা প্রতি কেজি মাংস ৩শ’ টাকায় বিক্রি করতে পারবেন বলেও জানিয়েছেন।

শুক্রবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সামনে মানববন্ধনের পর সংবাদ সম্মেলন করেন মাংস ব্যবসায়ীরা। সেখানে ধর্মঘট প্রত্যাহারসহ এসব বিষয়ে কথা বলেন সমিতির মহাসচিব রবিউল আলম।

তিনি বলেন, চারদফা দাবিতে গত ১৩ ফেব্রুয়ারি থেকে এক সপ্তাহের ধর্মঘট শুরু করেন মাংস ব্যবসায়ীরা। এরই মধ্যে তারা তাদের দাবির পক্ষে সরকার, গণমাধ্যমসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলেন।

রবিউল আলম বলেন, আমাদের ছয়দিনের ঘোষিত ধর্মঘট কাল (শনিবার) পুরো হবে। তারপর দিন থেকে আমরা সেটা স্থগিত করলাম। রোববার বেলা ১১টায় বাণিজ্যমন্ত্রী আমাদের ডেকেছেন সেখানে আমরা কথা বলবো। সেদিনই বেলা ২টার সময় উত্তর সিটি করপোরেশন আমাদের ডেকেছেন। রোববারের পরে যদি ফলপ্রসূ আলোচনা না হয়, গাবতলী গরুর হাটের ইজারা যদি বাতিল না হয়, তাহলে সবার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত হবে আবার কবে থেকে আমরা সারা বাংলাদেশের মাংসের ব্যবসা বন্ধ করে দেব।

এক সপ্তাহের ধর্মঘটের পেছনে তাদের যুক্তিও তুলে ধরেন মাংস ব্যবসায়ীরা। মহাসচিব বলেন, ঢাকা সিটি করপোরেশনে ছয়শ’ দরখাস্ত জমা আছে। একটি দরখাস্তও বিবেচনা করা হয় নাই।

মাংস ব্যবসায়ীরা বলেন, তাদের সাথে আলোচনা করে সরকার সঠিক ব্যবস্থা নিলে তারা ৩শ’ টাকা কেজি দরেও গরুর মাংস বিক্রি করতে পারবেন। এজন্য দাবি বাস্তবায়নের পাশাপাশি সবার সহযোগিতা দরকার।