রাজধানীর তেজগাঁওয়ে পশ্চিম নাখালপাড়ার রুবি ভিলায় এর আগেও তিন বার জঙ্গিবিরোধী অভিযান পরিচালিত হয়েছে বলে জানিয়েছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও স্থানীয়রা। র‌্যাব বলছে, ২০১৩ ও ২০১৬ সালে দু’বার রুবি ভিলায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা অভিযান পরিচালনা করে বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছিল।

পশ্চিম নাখালপাড়ার বাসিন্দা ও ২৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক নাসির উদ্দিন চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, এই বাড়ি থেকে ২০১৬ সালের ১৪ আগস্ট আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী অভিযান চালিয়ে সন্দেহভাজন বেশ কয়েকজনকে ধরে নিয়ে যায়। আবারও কেন এই বাসায় জঙ্গি, মাথায় আসে না।

তিনি আরো বলেন, গত বছরও এখানে র‌্যাব অভিযান চালিয়েছিল। এই পাঁচ তলা থেকেই সেদিন ১২ জনকে আটক করা হয়েছিল বলে শুনেছিলাম। সেদিন বাড়ির মালিক সাব্বির সাহেবকেও আটক করা হয়েছিল।

জুমার নামাজের পর বাসায় ফেরার পথে রুবি ভিলার সামনে দাঁড়ানো স্থানীয় ইসমাইল আহমেদ বলেন, এই বাড়িতে এর আগেও একাধিকবার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অভিযান চালিয়েছে।

রুবি ভিলা সম্পর্কে জানতে চাইলে তেজগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, গত বছর আমরা ওই বাসায় অভিযান চালিয়েছিলাম। তখন জামায়াত শিবিরের তিন কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে নাশকতার মামলা ছিল।

নাখালপাড়ার ওই বাড়িতে আগেও অভিযান চালানোর খবর নিশ্চিত করে র‌্যাবের মুখপাত্র মুফতি মাহমুদ খান ব্রিফিংয়ে বলেন, এর আগে ২০১৩ ও ২০১৬ সালে র‌্যাব আরও দুইবার অভিযান চালায় এই বাসায়। সেসময় কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে সংশ্লিষ্ট তেজগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, ২০১৬ সালের ১৪ আগস্ট রুবী ভিলায় অভিযান চালিয়ে একটি মেস থেকে জামায়াত-শিবিরের ৩ নেতাকর্মীকে ধরা হয়।

এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, রুবি ভিলা নামের ছয় তলা বাড়িতে র‌্যাব অভিযান চালায় তার মালিক সাব্বির হোসেনের গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহে। তিনি বিমান বাহিনীতে ফ্লাইট সহকারী হিসেবে কাজ করতেন বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও এমপি হোস্টেলের পিছনে রাজধানীর পশ্চিম নাখালপাড়ায় একটি ছয় তলা বাড়িতে জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পায় র‌্যাব। বৃহস্পতিবার গভীর রাত থেকেই পশ্চিম নাখাল পাড়ার ১৩/১ রুবি ভিলা নামের ৬ তলা বাড়িটি ঘিরে ফেলে র‌্যাব সদস্যরা।

র‌্যাবের মুখপাত্র মুফতি মাহমুদ খান সাংবাদিকদের জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ৬ তলা বাড়িটির পঞ্চম তলায় কয়েকজন জঙ্গি সদস্য রয়েছেন বলে তারা জানতে পারেন। এই তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালাতে গেলে বাড়ির ভিতর থেকে গুলিবর্ষণ ও গ্রেনেড ছুড়ে মারা হয়। র‌্যাব সদস্যরা পাল্টা গুলি ছুড়লে হতাহতের ঘটনা ঘটে। এসময় দুই র‌্যাব সদস্যও আহত হন।

ছবি: ওবায়দুল হক তুহিন