প্রচলিত চিকিৎসাব্যবস্থার পাশাপাশি বিকল্প চিকিৎসা পদ্ধতি হিসেবে দেশে এখনও জনপ্রিয় ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা। এ চিকিৎসা ব্যবস্থায় এমবিবিএস সমমানের স্নাতক ডিগ্রি ও চিকিৎসাসেবা দিচ্ছে ঢাকার সরকারি ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল।

বাংলাদেশের গ্রাম এমনকি শহরেও অনেকে ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা সেবা নিয়ে থাকেন। এ প্রেক্ষাপটে ১৯৮৯ সালে মিরপুরে প্রতিষ্ঠা করা হয়  ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক ডিগ্রি কলেজ ও হাসপাতাল। ২০১২ সাল থেকে এটি সরকারি ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল হিসেবে যাত্রা শুরু করে। মেডিকেল কলেজে ব্যাচেলর অব ইউনানী মেডিসিন এন্ড সার্জারি এবং ব্যাচেলর অব আয়ুর্বেদিক মেডিসিন অ্যান্ড সার্জারি কোর্সের স্নাতক ডিগ্রি দেয়া হয়, যা এমবিবিএস সমমানের।

ইউনানী বিভাগের বিভাগীয় প্রধান বলেন, মিরপুরে ৩ একর জায়গার ওপর এ মেডিকেল কলেজে ২৮টি বিভাগে শিক্ষার্থী প্রায় তিনশ’। আর হাসপাতালটি একশ’ শয্যার। এতে আউটডোরের পাশাপাশি নারী ও পুরুষের জন্য আলাদা ওয়ার্ড রয়েছে।

সরকারি ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের অধ্যক্ষ বলেন, কলেজ ও হাসপাতাল চত্বরে নানা ধরনের ওষুধী গাছের বাগান ছাড়াও আছে উৎপাদন ও গবেষণাগার, প্যাথলজি, আয়ুর্বেদিক ফার্মাকোলজি, ইউনানী ফার্মাকোলজি ও ফার্মেসির ল্যাব এবং অ্যানাটমি মিউজিয়াম।