পাকিস্তানে সুফি দরবেশ লাল শাহবাজ কালান্দার মাজারে আত্মঘাতি বোমা হামলার দায় স্বীকার করেছে জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)।

দেশটির সিন্ধ প্রদেশের এই মাজারে আত্মঘাতি হামলায় কমপক্ষে ৭২ জন নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

লাশবহনকারী অ্যাম্বুলেন্সের দেয়া তথ্য মতে, ৭২ জনের লাশ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। নিহতদের মধ্যে ২০ জন শিশু, ৯ জন নারী এবং ৪৩ জন পুরুষ। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

পাকিস্তান পুলিশের উচ্চপদস্থ এক কর্মকর্তা জানান, আত্মঘাতী সন্ত্রাসী মাজারের ‘গোল্ডেন গেট’ দিয়ে প্রবেশ করে। প্রথমে একটি গ্রেনেড ছোড়ার পর শরীরে বাঁধা বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। তবে ছুড়ে দেয়া গ্রেনেডটি বিস্ফোরিত হয়নি।

ওই মাজারে ধর্মীয় অনুষ্ঠান চলার সময় পাকিস্তানের বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রচুর সংখ্যক মানুষ সমবেত হয়েছিলেন। বিস্ফোরণের পরপরই ঘটনাস্থলে আইনশৃঙ্খলা ও উদ্ধারকর্মীরা গিয়ে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করেন।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ বর্বরোচিত এই হামলার নিন্দা জানিয়েছেন। এ ঘটনায় দেশটির সেনাবাহিনীর স্টাফ জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া আহত সাধারণ নাগরিকদের দ্রুত সহায়তার নির্দেশ দিয়েছেন।

এর আগে গত বছরের ১২ নভেম্বর বেলুচিস্তান প্রদেশের খুজদার জেলার শাহ নুরানি মাজারে আত্মঘাতী বোমা হামলার ঘটে ঘটে। ওই হামলায় অন্তত ৫২ জন নিহত ও ১০২ জন আহত হন।

সুন্নি মুসলমিরা ছাড়া নিয়মিত উগ্রপন্থী গোষ্ঠী এবং জঙ্গি হামলার লক্ষ্যবস্তু হচ্ছে পাকিস্তানের অন্যান্য সম্প্রদায়ের মুসলিমরা। সাম্প্রতিক হামলাগুলোতে নিহতদের বেশির ভাগই শিয়া মুসলিম।