বাংলাদেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে রপ্তানিমুখি পোশাক শিল্পের জন্য এখনও ঝুঁকিপূর্ণ বলে গ্রুপ ফোর যে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে তাকে নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা ছাড়াও উদ্যোক্তারা প্রত্যাখ্যান করেছেন। তারা বলছেন, বাংলাদেশে বর্তমানে কোন ধরনের সন্ত্রাসী হুমকি নেই। এখানে কাজ করার সম্পূর্ণ ইতিবাচক পরিবেশ বিরাজ করছে।

আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা সংস্থা গ্রুপ ফোরের ঝুঁকি বিষয়ক প্রতিবেদনকে উদ্ধৃত করে ড্রাপারস অনলাইন ‘এখনও সন্ত্রাসবাদের হুমকিতে বাংলাদেশের পোশাক শিল্প’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করার পর এ খাতের উদ্যোক্তা এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সাবেক কর্মকর্তারা তা নাকচ করে দেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সন্ত্রাসবাদ এখনও বাংলাদেশের পোশাক শিল্পের ব্র্যান্ড ও খুচরা বিক্রেতাদের ব্যবসার ক্ষেত্রে প্রভাব রাখছে। ২০১৬ সালে দেশের মোট রপ্তানির ৮০ শতাংশই এসেছে পোশাক খাত থেকে যা প্রায় ২৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। কিন্তু, সন্ত্রাসী ঝুঁকির কারণে অনেকে বিনিয়োগ কৌশলে পরিবর্তন আনছেন এবং বাংলাদেশের পরিবর্তে কম্বোডিয়া, ভিয়েতনাম এবং এল সালভাদরের কথা চিন্তা করছেন।

গ্রুপ ফোরের রিস্ক কনসাল্টিং-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক চার্লি বারব্রিজ বলেন, ঝুঁকি এবং হামলার হুমকি অনেক সময় ব্যক্তিগত হয়। তাই আমরা নিরপেক্ষভাবে কাজ করি, এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। নিজেদেরকে নিরাপদ রাখতে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের উচিত নিজেদের ঝুঁকি নিয়ে সার্বিকভাবে মূল্যায়ন প্রতিবেদন তৈরি করা এবং জরুরি নিরাপত্তার জন্য পরিকল্পনাগুলো প্রস্তুত রাখা।

তিনি আরও বলেন, ভবিষ্যতের সন্ত্রাসী হামলা আগে থেকেই নির্মূল করা সম্ভব হবে না। সামনে পোশাক শিল্পকে টার্গেট করে যেকোন ধরণের হামলা হতে পারে। সরকারের নানা উদ্যোগের কারণে এখন বড় ধরনের হামলার আংশকা কমে গেছে। কিন্তু আইএসের ছদ্মবেশে ছোট সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর বিক্ষিপ্ত ও অপরিকল্পিত হামলার উল্লেখযোগ্য ঝুঁকি এখনও বিদ্যমান।

এরকম প্রতিবেদনের সঙ্গে দ্বিমত প্রকাশ করেছে পোশাক মালিকদের সংগঠন গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশন (বিজিএমই)।

বিজিএমই সহসভাপতি এবং এভারগ্রিন সোয়েটার্স কোম্পানির নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ নাসির চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, প্রতিবেদনটিতে যেসব তথ্য দেয়া হয়েছে, সেগুলোর সাথে আমরা একমত নই। কারণ বাংলাদেশে এখন কোন ধরনের সন্ত্রাসী হুমকিতে নেই।

তিনি বলেন, আমাদের দেশ অতীতের যেকোন সময়ের চেয়ে এখন সবচেয়ে বেশি নিরাপদ। এখানে দেশি-বিদেশি সব নাগরিকের যথেষ্ট নিরাপত্তা ব্যবস্থা রয়েছে। কাজেই নিরাপত্তা হুমকির কারণে, তা ছোটো-বড় যাইহোক না কেন, বিদেশি বিনিয়োগকারীরা এখানে আগ্রহ হারাচ্ছেন, আমি এমনটি মনে করি না।

পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) নুরুল হুদা চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, নিরাপত্তা ব্যবস্থা দুর্বল এমন কারণ দেখিয়ে কোন ব্যবসায়ী বাংলাদেশ ত্যাগ করতে চাইবে, আমি তা মনে করি না।

‘উন্নত এবং অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী দেশগুলোতেও সম্প্রতি সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। তার মানে এটি নয় যে সেসব দেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা দুর্বল,’ মন্তব্য করে তিনি বলেন: এই ধরনের প্রতিবেদনের পেছনে বিভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি থাকে।

‘তাই এই প্রতিবেদনের সাথে আমি একমত নই।’

সাবেক আইজিপি একথাও বলেছেন, সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের ফলে দেশে এখন বড় ধরনের কোন হুমকি নেই।