জার্মানির ফ্রাংকফুর্টে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভোগ্যপণ্য প্রদর্শনী অ্যাম্বিয়েন্টে অংশ নেয়া বাংলাদেশি প্যাভিলিয়নে ক্রেতা দর্শনার্থীর ব্যাপক সাড়া পাওয়া গেছে।

জার্মানভিত্তিক বিশ্বের সবচেয়ে বড় মেলার আয়োজক প্রতিষ্ঠান মেসে ফ্রাংকফুর্ট এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানিয়েছে।

এতে বলা হয়, মেলাটি শেষ হচ্ছে আজ। এবারের প্রদর্শনীতে বাংলাদেশের ৩১টি প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে বাংলাদেশ রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) অধীনে অংশ নিয়েছে ১২টি প্রতিষ্ঠান। বাকি ১৯টি প্রতিষ্ঠান ইপিবির সহায়তা ছাড়াই তাদের পণ্য প্রদর্শন করছে। প্রদর্শনীতে বাংলাদেশের প্যাভিলিয়নগুলোয় বিপুলসংখ্যক দর্শনার্থী ও ক্রেতার সমাগম লক্ষ করা গেছে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সংসদ সদস্য মোহাম্মদ সানোয়ার হোসেইন এবং উপসচিব শামীমা বেগম এবারের অ্যাম্বিয়েন্ট বাংলাদেশী প্রদর্শকদের প্যাভিলিয়ন পরিদর্শন করেছেন। ইপিবির মোহাম্মাদ হাসান ইমাম খান এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

অ্যাম্বিয়েন্টে প্রদর্শিত বাংলাদেশের প্রধান পণ্যগুলোর মধ্যে রয়েছে— সিরামিক পণ্য, হস্তশিল্প, ঘর সাজানোর উপকরণ ও রান্নাঘরে ব্যবহারের সরঞ্জামাদি।

প্রদর্শনীতে বাংলাদেশের স্টলগুলোয় যুক্তরাষ্ট্র, স্পেন, তুরস্ক, ফ্রান্সসহ ইউরোপ ও মধ্য এশিয়ার দেশগুলো থেকে আসা ক্রেতাদের লক্ষণীয় উপস্থিতি দেখা গেছে।

প্রদর্শনীতে অংশ নেয়া গোল্ডেন জুট প্রডাক্টের সিইও হামীম আলি সরদার বলেন, প্রদর্শনীর শুরু থেকেই আমরা ক্রেতাদের পক্ষ থেকে ইতিবাচক সাড়া পাচ্ছি এবং অনেক নতুন ও লাভজনক অর্ডার আসতে শুরু করেছে।

এএসকে হ্যান্ডিক্রাফটের সিইও আহসান জানান, প্রদর্শনীর প্রথম দিন থেকেই আমাদের পণ্য দেখে দর্শনার্থী ও ক্রেতাদের সাড়া পাওয়ায় আমরা খুবই সন্তুষ্ট।

প্যারাগন সিরামিক ইন্ডাস্ট্রিজের সিইও এমএ জাবেদ বলেন, অ্যাম্বিয়েন্টের নিয়মিত দর্শক ও ক্রেতা ছাড়াও নতুনদের কাছ থেকে আমরা ভালো সাড়া পেয়েছি। আমাদের ব্যবসার জন্য এটি খুব ভালো একটি উদ্যোগ।