অস্কার জয়ী এবং আগামী অস্কারের প্রাথমিক তালিকায় থাকা দুই বাংলাদেশি তরুণ এখন ঢাকায়। তাদের একজন ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান: অ্যাট ওয়ার্ল্ড’স এন্ড’ ছবিতে ডিজিটাল ফ্লুইড ইফেক্টস প্রযুক্তি ব্যবহার করে অস্কার জেতা নাফিস বিন জাফর। আরেকজন হলেন অস্কার জয়ের লড়াইয়ে থাকা ওয়াহিদ ইবনে রেজা।

বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টায় বিশ্বসাহিত্যকেন্দ্রে উপস্থিত থাকবেন এই দুই তরুণ। গবেষক, শিল্পী, ডেভেলপার, চলচ্চিত্র নির্মাতা, বিজ্ঞানী ও ব্যবসায়ীদের জন্য অলাভজনক আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান এজিএম সিগ্রাফ- এর ‘সিগ্রাফ ঢাকা চ্যাপ্টার’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে থাকবেন নাফিস বিন জাফর। আর বিশ্বখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাণ প্রতিষ্ঠান সনি পিকচার্সের ভিএফএক্স ম্যানেজার হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ওয়াহিদ ইবনে রেজা।

এরআগে সিগ্রাফের বিভিন্ন আয়োজনে বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন নাফিস বিন জাফর।

‘সিগ্রাফ ঢাকা চ্যাপ্টার’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। এছাড়াও  মাইটি বাইট-এর এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর নাওশার রহমান, এক্স সল্যুশনস-এর সিইও তাহসীন সায়ীদ ও দ্য লিগ্যাল সার্কেল-এর প্রতিষ্ঠাতা ও অংশীদার আনিতা গাজী ইসলাম অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গেছে।

নাফিস বিন জাফর : ১৬ বছর ধরে হলিউডে কাজ করছেন প্রখ্যাত শিল্পী মুস্তাফা মনোয়ারের দৌহিত্র নাফিস বিন জাফর। তিনি এখন কর্মরত আছেন ড্রিমওয়ার্কস অ্যানিমেশনে। এর অন্যতম মালিক সেলুলয়েডের জাদুকর স্টিভেন স্পিলবার্গ। মঙ্গলবার ঢাকায় পৌঁছান নাফিস।

পরের দিন বুধবার অংশ নিয়েছেন চার দিনের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিষয়ক আয়োজন ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৭’ অনুষ্ঠানে। রোবটমানবী সোফিয়াকে নিয়ে যার উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

অস্কার জেতা ছবি

নাফিসের গ্রামের বাড়ি রাজবাড়ী জেলায়। ২০০৮ সালে ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান: অ্যাট ওয়ার্ল্ড’স এন্ড’ ছবিতে ডিজিটাল ফ্লুইড ইফেক্টস প্রযুক্তি ব্যবহার করে অস্কার জেতেন তিনি। যা তার আগে বাংলাদেশের কেউ অর্জন করেননি।

২০১৫ সালে অ্যাকাডেমি অব মোশন পিকচার আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সেসের দেওয়া ‘সায়েন্টিফিক অ্যান্ড টেকনিক্যাল অ্যাওয়ার্ড’ও পান নাফিস বিন জাফর। প্রতি বছর চলচ্চিত্রে প্রয়োগ উপযোগী প্রযুক্তি উদ্ভাবনের জন্য এ পুরস্কার দেওয়া হয়। ওই সময় ‘ড্রপ লার্জ-স্কেল ডেস্ট্রাকশন সিমুলেশন সিস্টেম’ নামের একটি প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেন তিনি। তার সঙ্গে ছিলেন আরও দুই প্রোগ্রামার।

২০০৯ সালে মুক্তি পাওয়া ‘২০১২’ ছবি দিয়ে শুরু করে বিভিন্ন সময়ে হলিউডের ছবিতে ব্যবহার হয়েছে এই প্রযুক্তি। অ্যাকাডেমি অব মোশন পিকচার আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সেসের ডিজিটাল ইমেজিং টেকনোলজি সাব-কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন নাফিস বিন জাফর। অস্কারে কারিগরি কাজগুলোকে স্বীকৃতি দেওয়ার কাজ করে থাকে এই কমিটি।

নাফিস কাজ করেছেন এমন ছবির তালিকায় রয়েছে ‘কুংফু পান্ডা থ্রি, ‘কুংফু পান্ডা টু’, ‘পেঙ্গুইনস অব মাদাগাস্কার’, ‘হাউ টু ট্রেইন ইউর ড্রাগন টু’, ‘মিস্টার পিবডি অ্যান্ড শেরম্যান’, ‘টার্বো’, ‘মাদাগাস্কার ৩: ইউরোপ’স মোস্ট ওয়ান্টেড’, ‘পুস ইন বুটস’, ‘মেগামাইন্ড’, ‘শ্রেক ফরএভার আফটার’, ‘পার্সি জ্যাকসন অ্যান্ড দ্য লাইটেনিং থিফ’, ‘দ্য সিকার: দ্য ডার্ক ইজ রাইজিং’, ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান: অ্যাট ওয়ার্ল্ড’স এন্ড’, ‘ফ্ল্যাগস অব আওয়ার ফাদার’, ‘২০১২’, ‘স্টিলথ’, ‘দ্য ক্রুড’।

ওয়াহিদ ইবনে রেজা: আগামী অস্কারের ‘ভিএফএক্স’ ক্যাটাগরির প্রথম ২০টি ছবির তালিকায় স্থান পেয়েছে ‘গার্ডিয়ানস অব দ্য গ্যালাক্সি ভলিউম টু’। ছবিটিতে প্রোডাকশন ম্যানেজার হিসেবে কাজ করেছেন বাংলাদেশের ওয়াহিদ ইবনে রেজা। মঙ্গলবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে খবরটি তিনি নিজেই জানিয়েছেন।

২০০৭ সালের বইমেলায় হিমু সাজে আসা ওয়াহিদ ইবনে রেজা বুয়েট থেকে পড়াশোনা করেছেন। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। অভিনয় করেছিলেন হুমায়ূন আহমেদ এর ‘চন্দ্র কারিগর’ নাটকসহ  বেশ কয়েকটি নাটকে।

অস্কারে মনোনীত ছবি

কার্টুনিস্ট-লেখক আহসান হাবীব সম্পাদিত উন্মাদ-এর বিদেশ প্রতিনিধি ওয়াহিদ ২০১০ সালে দেশ ছেড়ে কানাডায় পড়তে যান। ভর্তি হন ইউনিভার্সিটি অব ব্রিটিশ কলাম্বিয়ায়, ফিল্ম প্রোডাকশন বিষয়ে  পড়াশোনা করেন।

সর্বশেষ তিনি কাজ করেন হলিউডের বিখ্যাত ছবি ‘গার্ডিয়ানস অব দ্য গ্যালাক্সি ভলিউম টু’র ভিজ্যুয়াল ইফেক্টস টিমে। ওয়াহিদ ‘ব্যাটম্যান ভার্সেস সুপারম্যান: ডন অব জাস্টিস’ ছবির প্রজেক্ট কো-অর্ডিনেটর ছিলেন।

‘ক্যাপ্টেন আমেরিকা : সিভিল ওয়ার’ ও ‘ডক্টর স্ট্রেঞ্জ’ ছবির ভিজ্যুয়াল টিমে কাজ করেছেন তিনি। ছিলেন এইচবিও চ্যানেলের টিভি ধারাবাহিক গেম অব থ্রোনস এবং নাইট অ্যাট দ্য মিউজিয়াম: সিক্রেট অব দ্য টুম্ব, ফিউরিয়াস সেভেন, ফিফটি শেডস অব গ্রের মতো সিনেমার ভিজ্যুয়াল ইফেক্ট দলে।